বৃষ্টিমূখর ছুটির দিনের লকডাউনেও তৎপর ছিলো আইন শৃঙ্খলাবাহিনী

আপডেট: জুলাই ৩০, ২০২১, ১০:২৫ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে চলমান কঠোর লকডাউন। দ্বিতীয় সপ্তাহের প্রথম দিন বৃষ্টিমুখর ছিলো। সকালে থেকেই থেমে থেমে বৃষ্টি হয়েছে। এরমধ্যেও নগরীতে ব্যক্তিগত গাড়ি চলাচল কিছুটা বেশিই ছিলো। বিধিনিষেধ বাস্তবায়নে তৎপর থাকতে দেখা গেছে আইন শৃঙ্খলাবাহিনীকে।
শুক্রবার (৩০ জুলাই) নগরীর গুরুত্বপূর্ণ এলাকাগুলো ঘুরে দেখা যায়, ভোর থেকে কঠোর লকডাউনে রাজশাহীর রাজপথগুলো ফাঁকা ছিলো। তবে বেলা বাড়তে থাকলে জনসমাগম বাড়তে থাকে। যদিও দিনের একটা বড় অংশ থেমে থেমে বৃষ্টি হয়েছে।
নগরীর প্রত্যেক মোড়ে আনসার ও পুলিশের অবস্থান ছিলো। চলাচলকারী পরিবহণ চালকদের পুলিশি জেরার মুখে পড়তে হয়েছে। নগরীতে সেনাবাহিনী ও বিজিবির টহল দলও নিয়োজিত ছিলো।
নগরীর প্রবেশপথগুলোতেও অব্যাহত ছিলো নজরদারি। কাশিয়াডাঙ্গা চেকপোস্টের দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরা জানান, সরকারি নির্দেশ অনুযায়ী তারা কঠোরভাবেই লকডাউন বাস্তবায়ন করছেন। জরুরি প্রয়োজনে নগরীতে প্রবেশ করছেন এটা প্রমার্ণে ব্যর্থ হলে তাদের ঘুরিয়ে দেয়া হচ্ছে। আর যারা আসছেন তারা প্রায় সবাই মুখে মাস্ক ব্যবহার করছেন। সর্বোপরি সুন্দরভাবেই লকডাউন বাস্তাবায়ন হচ্ছে।
সাপ্তাহিক ছুটির দিনের লকডাউনে নগরীর লক্ষ্মীপুর এলাকাতেও মানুষের সমাগম অন্য দিনের চেয়ে কম ছিলো। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া যেন কোনো গাড়ি এখানে না আসে তা নিশ্চিতে তৎপর ছিলো আইনশৃঙ্খলাবাহিনী। তবে এরমধ্যেও নগরীর ভেতরের রাস্তাগুলো দিয়ে ছোট যানবাহন চলাচল করতে দেখা গেছে। আর নগরীর অধিকাংশ ফার্মেসির কর্মীদের সঠিক নিয়মে মাস্ক না পরেই বেচাবিক্রি করছিলেন। হাসপাতালের সামনে অবস্থানকারী অ্যাম্বুলেন্স চালক ও কর্মীদেরসহ ছোট্ট খাবারের দোকানগুলোতেও স্বাস্থ্যবিধি না মেনে চলাচল করতে দেখা গেছে।
নগরীর কাঁচাবাজারগুলোতে সকালের দিকে ক্রেতা সমাগম বেশি ছিলো। কঠোর লকডাউনে রাজশাহীর অফিস-আদালত, গণপরিবহন, শপিংমলও বন্ধ ছিলো। নগরীতে মানুষের অপ্রয়োজনীয় যাতায়াত ও আড্ডাও তেমন দেখা যায় নি।
রাজশাহী অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) শরিফুল হক জানান, লকডাউন বাস্তবায়নে সেনাবাহিনী, পুলিশ, র‌্যাব ও আনসার সদস্যরা কাজ করছেন। নগরীতে ৪ টি ও ৯ টি উপজেলায় জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ টিম কাজ করছে। নির্দেশনা অমান্য করলে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। উপজেলা পর্যায়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) কাজ করছেন। সকলের সম্মেলিত প্রচেষ্টায় ও অংশগ্রহণে সুন্দরভাবে রাজশাহীতে লকডাউন পালিত হচ্ছে।