বোর্ড সভাপতির কাছে স্ত্রীর অভিযোগ, অস্বীকার করলেন শহীদ

আপডেট: জুলাই ১০, ২০১৭, ১২:১৭ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


শনিবার শোনা গিয়েছিল জাতীয় দলের পেসার মোহাম্মদ শহীদের স্ত্রী ফারজানা আক্তার মিরপুর হোম অব ক্রিকেটে আসবেন। সেদিন না গেলেও গতকাল মিরপুরে সকাল-সকাল হাজির ফারজান আক্তার।
বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের কাছে স্বামী শহীদের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করতে বিসিবিতে যাওয়া ফারজানার। বোর্ড সভাপতিকে পাওয়ার সুযোগ নেই ফারজানার। দেখা করেছেন বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজনের সঙ্গে। চার পৃষ্ঠার অভিযোগপত্র দিয়েছেন প্রধান নির্বাহীর কাছে। যেখানে শহীদের বিরুদ্ধে শুধু অভিযোগ করা হয়নি, শাস্তি এবং পরিস্থিতির মীমাংসার দাবি করেছেন ফারজানা।
শহীদের স্ত্রীর অভিযোগ,‘তারকাখ্যাতি পাওয়ার পর থেকেই সংসার এবং তার প্রতি আগ্রহ কমতে থাকে শহীদের। পাশাপাশি শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করতে শুরু করে। প্রথম সন্তান ছেলে হওয়ায় তাকে আদর করে কিন্তু দ্বিতীয় সন্তান মেয়ে হওয়ায় তাকে কাছে টানে না। অন্তঃসত্ত্বা থাকা অবস্থায় পেটে লাথি মেরে সন্তান নষ্ট করে দিতে চেয়েছিল শহীদ। পরকিয়ায় আসক্ত শহীদ। তারকাখ্যাতিকে কাজে লাগিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ারা মাধ্যমে অসংখ্য তরুণীর সঙ্গে পরিচয় হয়, প্রেমের সম্পর্কে জড়ায় এবং তাদের সঙ্গে বিভিন্ন স্থানে দেখা করে।’
চার পৃষ্ঠার অভিযোগপত্রটি হাতে পেয়েছে রাইজিংবিডি। সেখানে স্ত্রী উল্লেখ করে, ২০১১ সালের ২৪ জুন শহীদের সঙ্গে বিয়ে হয় ফারজানা আক্তারের। দুজনের ঘরে রয়েছে দুই সন্তান আরাফ (৩) ও আরহী (১১ মাস)। সন্তানের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে ফারজানা মীমাংসা করতে আগ্রহী। অভিযোগপত্রে ফারজানা লিখেছেন,‘আমি আমার দুই সন্তান নিয়ে স্বামীর সংসারে ফিরে যেতে চাই এবং স্ত্রীর পূর্ণ অধিকার নিয়ে স্বামীর সংসার করতে চাই। বাবা ছাড়া আমার দুই সন্তানের ভবিষ্যৎ অন্ধকার।’ সন্তানদের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে বিসিবি সভাপতিকে ন্যায়বিচারের অনুরোধ করেন ফারজানা।
বিসিবি প্রধান নির্বাহী জানিয়েছেন, পারিবারিক বিষয়টি দুই পরিবার মিলে দ্রুত সমাধানের পরামর্শ দেন। তবে শহীদের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগগুলো সত্যি কিনা তা যাচাইয়ের কথা জানান। বিসিবি বিষয়টি তদন্ত করবে বলে জানিয়েছেন নিজামউদ্দিন সুজন।
এদিকে অপ্রীতিকর পরিস্থিতিগুলোকে ‘ষড়যন্ত্র’ বলছেন পেসার শহীদ। তার দাবী তার শ্যালিকার স্বামী বিষয়গুলো মিডিয়াতে ছড়াচ্ছেন এবং তার স্ত্রীকে ভুলিয়ে-ভালিয়ে এগুলো বলানো হচ্ছে। আগামী ৫-৬ দিনের মধ্যে দুই পরিবার মিলে বিষয়গুলো সমাধান করবে বলে জানিয়েছেন শহীদ।
ইনজুরি থেকে সেরে উঠে পূর্নবাসন প্রক্রিয়ায় আছেন শহীদ। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজে তার খেলা অনিশ্চিত। তবে খেলতে পারেন দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজে। রাইজিংবিডি

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ