বড়াইগ্রামে গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

আপডেট: এপ্রিল ৩, ২০২০, ১১:০৫ অপরাহ্ণ

বড়াইগ্রাম প্রতিনিধি:


নাটোরের বড়াইগ্রামে স্বামীর পরকীয়ায় বাধা দেয়ায় চাঁদ সুলতানা রাণী (৩৬) নামে এক গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। রাণী উপজেলার বড়াইগ্রাম পৌরসভার মৌখাড়া এলাকার রবিউল করিমের স্ত্রী এবং লালপুর উপজেলার ফুলবাড়ি গ্রামের মৃত আবদুল মোমিন মন্ডলের মেয়ে।
রাণীর ভাই সুইট বলেন, প্রায় ১৭ বছর আগে রাণীর বিয়ে পারিবারিকভাবে। তখন একটি এনজিওতে চাকরি করতেন রবিউল করিম। সেখানে এক সহকর্মীর সঙ্গে পরকীয়ায় জড়ানোর ফলে চাকরি হারায় রবিউল। পরে আকিজ কো-অপারেটিভ ব্যাংক, বনপাড়া, নাটোর শাখায় পুনরায় চাকরি হয়। এখানে চাকরিকালে পুনরায় স্থানীয় এক মেয়ের সঙ্গে পরকীয়ায় জড়ায় রবিউল। এর প্রতিবাদ করলেই বোনের উপর শারীরিক নির্যাতন চালাতো। ইতোমধ্যে বোনের ঘরে এক ছেলে (১৪) ও এক মেয়ে (৭) জন্ম হয়। বাচ্চাদের মুখের দিকে তাকিয়ে নির্যাতন সহ্য করে যাচ্ছিলেন রাণী। এর ধারাবাহিকতায় বৃহস্পতিবার (২ এপ্রিল) রাতভর শারীরিক নির্যাতন করে ঘরের খাটের সঙ্গে বেধে রাখে রাণীকে। সকালে খবর পেয়ে তিনি (সুইট) ও বড়ভাই আলতাব হোসেন গিয়ে বোন-রবিউলকে বুঝিয়ে মিল করে দিয়ে বাড়ি ফিরে যাই। বাড়ি ফেরা মাত্র মোবাইল ফোনে রবিউল জানায় রাণী গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। এ বিষয়ে সুইট আরো বলেন, মূলত আমরা ফিরে আসার পর তাকে গলাটিপে হত্যা করে আত্মহত্যা বলে চালানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। কারণ, বোন এতো নির্যাতন সহ্য করেছে কোনোদিন আত্মহত্যার কথা মুখেও আনেনি। আবার ঘটনার পর থেকে মোবাইল বন্ধ করে সে বাড়ি থেকে পালিয়েছে।
নিহতের বড়ভাই আলতাব হোসেন বলেন, বোনের মুখে তাকে নির্যাতনের অনেক কথা শুনেছি তবু বাচ্চদের কথা ভেবে এখানেই থেকে গেছে। অবশেষে তাকে যে রবিউল মেরে ফেলবে এটা ভাবতে পারিনি। আমি এর সুষ্ঠু বিচারের জন্য থানায় মামলা করাসহ সব ধরনের পদক্ষেপ নেবো।
বড়াইগ্রাম থানার অফিসার ইনর্চাজ (ওসি) দিলিপ কুমার দাস ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নাটোর সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে নিহতের বড়ভাই লিখিত অভিযোগের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। ময়না তদন্তের প্রতিবেদন এবং অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ