ভারতের কর্ণাটকে নারী আন্দোলনে রাবি শিক্ষার্থীদের সংহতি

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ১০, ২০২২, ৯:২৮ অপরাহ্ণ

রাবি প্রতিনিধি:


হিজাব পরে কলেজে আসাকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট বিতর্কের জেরে ভারতের কর্ণাটকে নারী শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে সংহতি জানিয়ে মানববন্ধন করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) কিছু শিক্ষার্থী।

বৃহস্পতিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যারিস রোডে আয়োজিত এক মানববন্ধন থেকে তারা এ সংহতি জানান।

মানববন্ধনে ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের মির্জা সুমাইয়া ফারহানা বলেন, হিজাব শুধু আমাদের পোশাকি চয়েজ না, এটি আল্লাহর দেয়া ফরজ বিধান। হিজাবের নামে ক্যাম্পাস সহ সারাবিশ্বে যে হয়রানি চলছে একজন মুসলিম নারী হিসাবে আমারা এর প্রতিবাদ জানাই।

যেনো আমাদের অধিকার ফিরিয়ে দেয়া হয় এবং এটি নিয়ে যেনো আমারা আর কোন প্রকার বুলিং এর শিকার না হই। হিজাব আমাদের মেধাকে কখনো আটকায় রাখতে পারে না। আমাদের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দিয়ে কোন রকম কাজ করা যাবে না।

ফিন্যান্স বিভাগের শিক্ষার্থী ফার্দিন অন্তর বলেন, যার যার জায়গা থেকে সে তার ধর্মকে শ্রদ্ধা করবে। এটা নিয়ে বাড়াবাড়ি করা যাবে না। ভারতের ঘটনায় যিনি প্রতিবাদ করেছেন আমাদের প্রত্যেককে সেটি সাহস যোগাবে যে কোথাও অন্যায় হলে তা প্রতিবাদ করতে হবে। অনেকে অনেক জায়গা হেনস্তার শিকার হচ্ছে কিন্তু কিছু বলতে পারছে না।

এই আন্দোলন কিংবা তার একটা হুংকারের মাধ্যমে সবাই নিজের জায়গা টা প্রকাশ করছে। তাই ধর্ম নিয়ে আমাদের বাড়াবাড়ি করা যাবে না।সবাই যেনো সুন্দর ভাবে তাদের ধর্ম পালন করতে পারে সেই পরিবেশ তৈরি করতে হবে।

মানবন্ধনে শিক্ষার্থীরা ভারতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করে ধর্মের নামে বাড়াবাড়ি, আমরা যেন না করি’; ‘মুসলিমদের অনুভূতিতে আঘাত বন্ধ হোক’; ‘আল্লাহু আকবার, আল্লাহ; ‘হিজাব ইস আওয়ার আইডেন্টিটি’ ‘হিজাব ইস আওয়ার প্রাইড’ ‘হিজাব ইজ মাই চয়েস’; ‘শিক্ষাঙ্গনে মেয়েদের হিজাবের জন্য অপদস্ত করা বন্ধ হোক’; ইত্যাদি লিখা সম্বলিত প্ল্যাকার্ড প্রদর্শন করেন।

উল্লেখ্য, ভারতের দক্ষিণাঞ্চলীয় রাজ্য কর্ণাটকে সম্প্রতি একটি সরকারি কলেজে মুসলিম শিক্ষার্থীদের হিজাব নিষিদ্ধ ও হিজাব পরিহিতা মুসলিম নারীকে হেনস্তা করা হয়। এ নিয়ে মামলাও হয় হাইকোর্টে। যা নিয়ে সহিংসতা ও বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে ভারতে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ