ভারতের লোকসভা নির্বাচন : সব দলের পতাকা,টিশার্ট, শাড়ি, টুপিতে রঙিন বাজার

আপডেট: এপ্রিল ২, ২০২৪, ১:২১ অপরাহ্ণ


সোনার দেশ ডেস্ক :


সদ্য শেষ হয়েছে দোল যাত্রা। রঙের উৎসব শেষ হয়ে গেলেও বাজার কিন্তু এখনও রঙিন। সৌজন্যে লোকসভা নির্বাচন। ইতোমধ্যেই, দেশজুড়ে চলছে ভোটের দামামা। গণমানুষের কাছে পৌঁছে যেতে প্রত্যেক রাজনৈতিক দলই জোর দিয়েছে অভিনবত্বের ওপর। পাড়ায় পাড়ায় প্রচার, দেওয়াল লিখন, সোশ্যাল মিডিয়ার পাশাপাশি জোর দেয়া হয়েছে নানা জিনিসের ওপর। ছাতা, টুপি, সান গার্ড, শাড়ি, টি-শার্ট, জুতো, পতাকা, উত্তরীয় কী নেই সেখানে।

কলকাতার বড়বাজার এলাকার পগেয়াপট্টি স্ট্রিটে পা রাখলেই রাস্তার দু’ধারে চোখে পড়বে সব দলের পতাকা। তৃণমূল, সিপিএম, কংগ্রেস, বিজেপির পতাকায় কার্যত ছেয়ে গিয়েছে বড়বাজার চত্বর। পতাকার চাহিদাও সবথেকে বেশি। রণাঙ্গণে একে অপরের বিরোধী হলে কী হবে, দোকানগুলিতে পাশাপাশি বিক্রি হচ্ছে মোদি, মমতা, রাহুলের মুখোশ।

সোমবার (১ এপ্রিল) দুপুরে বিহার থেকে এক ভদ্রলোক এসেছিলেন বড়বাজারে বিজেপির পতাকা কিনতে। জানালেন, ‘এতো ভ্যারাইটি আর কোথাও পাব না। সে কারণেই এখানে ছুটে আসা। ১ হাজার পিস অর্ডার দিয়ে যাচ্ছি।’ তবে ভোটের ফ্যাশনে অন্যদের তুলনায় কয়েক গুণ এগিয়ে রয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। পতাকা হোক কিংবা টি-শার্ট, রাজ্যের শাসক দলের ধারে কাছে নেই অন্যরা।

বিশেষত্ব রয়েছে টি- শার্টেও। কোনোটায় মমতা- অভিষেকের মুখ আঁকা, কোনোটায় আবার ঘাসফুলের ছবি। সতীশ সিং নামে এক বিক্রেতা জানালেন, ‘আমার দোকানে ৫৫ টাকা থেকে শুরু টি- শার্টের দাম। ১০০- ১২০ টাকা দামেরও রয়েছে। শুধু কলকাতা নয় কৃষ্ণনগর, রানাঘাট এমনকি দার্জিলিং থেকেও অর্ডার পেয়েছি। অনেকে আসছেন কাস্টমাইজড টি- শার্ট বানাতে। সেরকমভাবেও আমরা বানিয়ে দিচ্ছি।’

ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেল, মূলত ৫০ থেকে ৭০ টাকার টি- শার্ট বিক্রি বেশি। পিছিয়ে নেই শাড়িও। ১০০ থেকে ২০০ টাকার মধ্যে এক একটি শাড়ির দাম। দলীয় প্রতীকের ছবি দেয়া শাড়ি। কেউ আসছেন পদ্মফুলের শাড়ি নিতে, কারোর আবার দরকার ৫০০ পিস জোড়াফুলের প্রতীকের শাড়ি। ৪ টাকা থেকে শুরু পতাকার দাম যা পাইকারি হারেই বিক্রি হচ্ছে বেশির ভাগ জায়গায়।

১০০ পিসের দাম ৪০০ টাকা। নির্বাচনের আগে বিভিন্ন জনসভায় ভিড় জমাচ্ছেন দলের কর্মী সমর্থকরা। আর কড়া রোদ থেকে বাঁচতে চাহিদা বাড়ছে ছাতার। ৭০ টাকা থেকে শুরু করে ১০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে বিভিন্ন দলের প্রতীকের ছাতা। ব্যবসায়ীদের মতে, সরঞ্জাম বিক্রির শীর্ষে রয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে সিপিএম, তারপর বিজেপি এবং শেষে রয়েছে কংগ্রেস। আবার অনেকে জানাচ্ছেন, আগামী দু” মাস ধরে তো ভোট চলবে। পরের দিকেও অনেক জায়গা থেকে অর্ডার পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
তথ্যসূত্র: আজকাল অনলাইন