ভিড় বেড়েছে সেমাই, চিনি ও মসলার দোকানে

আপডেট: মে ৯, ২০২১, ১০:৪৬ অপরাহ্ণ

স্মৃতি আক্তার:


কদিন পরেই ইদ। ইদের দিন সকালে মিষ্টিমুখ করেই দিনটি শুরু করেন মুসলমানরা। ইদুল ফিতরের দিনে সেমাই দিয়ে আপ্যায়ন করা হয়, এটাই স্বাভাবিক। ইদের নামাজ শেষে সবাই বেরিয়ে পড়েন আত্মীয়স্বজনের বাড়িতে বেড়াতে। এদিনে অতিথি আপ্যায়নে কমবেশি সবার ঘরেই থাকে নানা ধরনের খাবারের সাথে সেমাই, ফিরনিসহ অন্যান্য আয়োজন।
রমজানের প্রথম দিক থেকে ইদের কেনাকাটায় ব্যস্ত থাকে ক্রেতারা। তবে রমজানের শেষের দিকে অনেকের ইদের পোশাক কেনা এখন শেষ। ক্রেতাদের ভিড় লক্ষ্য করা গেছে খাদ্যের দোকানগুলোতে। ইদের দিন নিজেদের খাওয়া এবং অতিথি আপ্যায়নের জন্য বিভিন্ন রকমের খাবারে আইটেম থাকবে সেটা কিনছে তারা। সবমিলিয়ে বিক্রেতারাও ব্যস্ত সময় পার করছেন।
বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সেমাই চিনি ও মশলা ছাড়াও গুঁড়ো দুধ, ঘি, সয়াবিন তেল, নারকেল, সুগন্ধি চাল, কিসমিস, বাদাম, কাজু বাদাম, পেস্তা বাদামসহ বিভিন্ন আইটেমের পণ্য বিক্রি করছেন তারা।
শনিবার (৮ এপ্রিল) নগরীর সাহেববাজারে ঘুরে দেখা যায়, লাচ্ছা-সেমাইয়ের দোকানগুলোতে জমেছে ভিড় সঙ্গে মসলার দোকানেও। চাহিদা বাড়ায় এসব পণ্যের দাম বেড়ে গেছে। রমজানের মাঝে কিছুটা কমলেও ইদ সামনে রেখে কেজিতে ২ থেকে ৩ টাকা বেড়েছে চিনির দাম।
সঙ্গে পোলাও এর চালও ভালো বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া ক্রেতারা মাছ মাংসের বাজারেও যাচ্ছেন। লাচ্চা সেমাই সাদা ১২০ টাকা, লাল ১৪০ টাকা, স্পেশাল লাচ্চা ২২০ টাকা, প্যাকেটজাত লাচ্চা সেমাই ১৩৫ থেকে ১৪০ টাকা, খিল সেমাই ৮৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। খোলা পোলাও চাল ৮৫ ও প্যাকেটজাত ১১০ টাকা টাকা কেজি প্রতি। চিনি ৭০ টাকা।
ক্রেতা জসিম বলেন, ইদে সেমাই না হলে চলে না। ইদের দিন সকাল থেকেই আত্মীয়-স্বজনরা বাসায় আসে। তাদের আপ্যায়নে সেমাই অবশ্যিক।
এছাড়াও ইদ উপলক্ষে সেমাইও বিক্রি হচ্ছে বেলীফুলের মিষ্টির দোকানে। ডালডা সেমাই প্রতিকেজি ২২০ টাকা, ঘি প্যাকেটজাত ২০০ থেকে ২২০ টাকা, স্পেশাল ঘি সেমাই ৭২০ টাকা দরে বিক্রে হচ্ছে। ব্যবসায়ীরা জানান, রমজানের শেষের দিকে ভিড় বাড়ে। বর্তমানে তেমন কোনো ভিড় নেই।