‘ভেবেছিলাম মোটামুটি একটা অভিষেক হলেই হয়’

আপডেট: অক্টোবর ২০, ২০১৬, ১০:৩৩ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক
‘মিরাজ তুমি আমাদের বাঁচাও!’ গত সোমবার অনুশীলনে দারুণ এক ক্যাচ ধরার পর মাহমুদউল্লাহ রসিকতা করেই বলছিলেন মেহেদী হাসান মিরাজকে। নিছক রসিকতাই, তবে মাহমুদউল্লাহর এই কথায় ছিল দলের নবীনতম সতীর্থকে প্রশংসা আর সামনে এগিয়ে যেতে পিঠ চাপড়ে দেওয়া। মেহেদী কথা রেখেছেন! দুর্বল এক বোলিং আক্রমণ নিয়ে মাঠে নামার দুশ্চিন্তা প্রথম দিনেই দূর করে দিয়েছেন। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম দিনে বাংলাদেশ যে এগিয়ে থাকছে, সেটা তাঁর অসাধারণ বোলিংয়েই।

 
বাংলাদেশের সপ্তম বোলার হিসেবে অভিষেকেই ৫ উইকেট হলেও মেহেদী একটি জায়গায় থাকছেন সবার ওপরে। টেস্ট অভিষেকে বাংলাদেশের হয়ে ৫ উইকেট পাওয়া সবচেয়ে কম বয়সি বোলারই তিনি। টেস্ট ইতিহাসেই চতুর্থ। এমন স্বপ্নের অভিষেক আসলে মেহেদী নিজেও আশা করেন নি, ‘ভাবি নি আমার অভিষেকটা এমন হবে, ৫ উইকেট পাব।

 

 

ভেবেছিলাম, মোটামুটি একটা অভিষেক হলেই হয়। ২-৩টি উইকেট কিংবা ব্যাটে ৩০ রান। টিম ম্যানেজমেন্টও আমার কাছে ৫-৬ উইকেট আশা করেনি। তারা চেয়েছে, অভিষেকে যেন আমি শতভাগ দিয়ে চেষ্টা করি আর ভালো জায়গায় বোলিং করি।’
উইকেটের চরিত্র বুঝে ওভারের পর ওভার বোলিং করা, মারাত্মক সব বাঁকে ইংলিশ ব্যাটসম্যানদের বোকা বানানো-মেহেদী এমনই সপ্রতিভ, বোঝার উপায় নেই যে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রথমবারের মতো গতকাল বোলিং করছেন। ৩৩ ওভার বোলিং করে ৬ মেডেন। রান দিয়েছেন ৬৪। ইকোনমি ১.৯৩! উইকেটসংখ্যা? আগেই বলা হয়েছে।

 

 
মেহেদী গতকাল সংবাদ সম্মেলনে নিজের সাফল্যের গল্প বলতে গিয়ে কৃতজ্ঞতা জানালেন দুজনকে-আবদুর রাজ্জাক, বাংলাদেশ দলে ব্রাত্য হয়ে পড়া বাঁহাতি স্পিনার আর সোহেল ইসলাম, বাংলাদেশ যুব দলের সহকারী কোচ, ‘যখন জাতীয় লিগ খেলেছি, খুলনা বিভাগের অধিনায়ক রাজ ভাই (রাজ্জাক) আমাকে সব সময়ই নানা নির্দেশনা দিয়েছেন। জাতীয় দলে সুযোগ পাওয়ার পরও তাঁর সঙ্গে কথা হয়েছে। তিনি একটা কথাই বলেছেন, চার দিনের ক্রিকেটে যা করেছিস, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটেও সেটি করবি। ওখানে টানা ৩০-৪০ ওভার এবং জায়গায় বোলিং করতে হবে। জায়গায় যদি বোলিং করিস, তোকে কেউ খেলতে পারবে না। সোহেল স্যারও আমাকে একই নির্দেশনা দিয়েছেন।’
সোহেলকে যে একরকম নিজের শিক্ষাগুরু মানেন, সেটিও জানালেন, ‘সোহেল স্যার আমাকে অনূর্ধ্ব-১৫ থেকেই এখনো পর্যন্ত নানা নির্দেশনা দিচ্ছেন। কীভাবে উন্নতি করা যায়, এ নিয়ে সব সময় তাঁর সঙ্গে আমার আলোচনা হয়। আমার যেমন ভালো লাগছে, তাঁরও নিশ্চয়ই তেমন।’

 

 
দুর্দান্ত এক টার্নে বেন ডাকেটকে বোল্ড করে শুরু; জনি বেয়ারস্টোকে দিয়ে ৫ উইকেট পূর্ণ। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রতিটি উইকেটই মূল্যবান। তবে মেহেদীর কাছে এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ মনে হয়েছে জনি বেয়ারস্টোর উইকেটটিই, ‘সেরা উইকেট বলব ওই আউটটা…যেটাই পঞ্চম উইকেট হলো (বেয়ারস্টো)। বল পড়ে সোজা গেছে। আমিও বুঝিনি, সে-ও বোঝেনি!’
মেহেদীর সামনে বড় এক অর্জনের হাতছানি। ৭৪ রানে ৬ উইকেট নিয়ে অভিষেকে বাংলাদেশের সেরা বোলিংয়ে সবার ওপরে আছেন সোহাগ গাজী। তাঁকে ছুঁতে ১টি, ছাড়িয়ে যেতে ২ উইকেট লাগবে মেহেদীর। তবে রেকর্ডের চেয়েও নিশ্চয়ই তাঁর কাছে বেশি গুরুত্বপূর্ণ, ইংল্যান্ডের বাকি তিন উইকেট যত দ্রুত সম্ভব তুলে নেওয়া। রেকর্ড, সে তো এমনই আসবে-যাবে।-প্রথম আলো অনলাইন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ