ভ্যাপসা গরমের মাঝে প্রশান্তির বৃষ্টি, তবুও স্বস্তি কাড়ে বিদ্যুতের ভেলকিবাজি

আপডেট: August 4, 2020, 11:49 pm

নিজস্ব প্রতিবেদক


টানা কয়েকদিনের ভ্যাপসা গরমের মধ্যে পালিত হয়েছে কোরবানি ইদ। এরমধ্যে চলেছে বিদ্যুতের ভেলকিবাজি। এতে করে ঘরে ও বাইরে অতিষ্ঠ হয়ে পড়ে প্রাণ। মঙ্গলবার (৪ আগস্ট) দুপুরে বিদ্যুতের ভেলকিবাজির মধ্যে প্রশান্তির বৃষ্টিতে কিছুটা হলেও ভ্যাপসা গরমের ভাব কেটেছে।
রাজশাহী আবহাওয়া অফিসের পর্যবেক্ষক নাজমুল ইসলাম জানান, বাতাসের আর্দ্রতা বেশি ছিল। সেইসাথে সাগরে লঘুচাপের কারণে গরম বেশি ছিল। তবে দুপুরের বৃষ্টিতে সাময়িক গরমটা কিছুটা কেটেছে। কিন্তু মেঘ কেটে গেলে আবারও গরম আবহাওয়া হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
তিনি আরও জানান, মঙ্গলবার দুপুর ১টা ২০ মিনিট থেকে ৪ টা ১৫ মিনিট পর্যন্ত রাজশাহীতে ৩৭ দশমিক ২ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। এর আগে ২৯ জুলাই ৩৩ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছিল। মঙ্গলবার সকালে বাতাসের আর্দ্রতা ছিল ৯৭ শতাংশ ও সন্ধ্যায় ৯৬ শতাংশ।
রাজশাহী আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের ইনচার্জ আবহাওয়া কর্মকর্তা রহিদুল ইসলাম বলেন, উত্তর বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপের সৃষ্টি হয়েছে। এতে মৌসুমি বায়ু আবারো সক্রিয় হয়ে উঠেছে। যার প্রভাবে দেশের অনেক জেলাতেই বৃষ্টিপাত হচ্ছে বা হবে। তার ধারাবাহিকতায় রাজশাহীতে বৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে। এর প্রভাবে আগামী দুইদিন রাজশাহীতে ভারী বর্ষণের সম্ভাবনা রয়েছে।
অন্যদিকে নগরীর উপশহরসহ বিভিন্ন এলাকায় বেশ মঙ্গলবার বেশ কয়েকবার ঘন ঘন বিদ্যুৎ গেছে। এতে করে জনজীবন অতিষ্ঠ হয়ে উঠে।
ঘন ঘন বিদ্যুৎ যাওয়ার প্রসঙ্গে নেসকোর রাজশাহীর তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী হাসিনা দিলরুবা জানান, আজকে (মঙ্গলবার) বৃষ্টির সাথে হালকা ঝড় হয়েছে। এতে করে বিদ্যুৎ লাইনের অনেক জায়গায় সমস্যা দেখা দিয়েছে। সেগুলো চেক করে ভালো করার জন্য ঘন ঘন বিদ্যুৎ যাওয়া-আসা করছে।
এদিকে পবা উপজেলার মুরারীপুর এলাকার ইমন আলী জানান, সোমবার দিবাগত রাত ৩ টা থেকে ভোর ৬ পর্যন্ত বিদ্যুৎ ছিল না। একে তো গরম। এর সাথে ফ্রিজে কোরবানি মাংস রাখা আছে। অথচ বিদ্যুৎ থাকলে গরম থেকে কিছুটা ফ্যানের বাতাস পাওয়া যায়। সেইসাথে ফ্রিজে রাখা মাংসসহ অন্য খাবার নষ্ট হওয়ার আশংকা থাকে না। কিন্তু বিদ্যুৎ না থাকায় গরমের সাথে চিন্তায় পড়ে যায়। শুধু পবা উপজেলা নয়, কয়েকদিনের গরমে অন্য উপজেলায় বিদ্যুতের ভেলকিবাজিতে জনজীবনে অতিষ্ঠ হয়ে পড়ে।
এ ব্যাপারে নেসকোর রাজশাহীর তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী হাসিনা দিলরুবা জানান, বিদ্যুৎ গেছে। এটা অস্বীকার করবো না। তবে দীর্ঘস্থায়ীভাবে বিদ্যুৎ য়ায় নি। এটা আমার জানা নেই। কারণ গরমের কারণে আমরা চেষ্টা করছি বিদ্যুৎ স্বাভাবিক রাখতে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ