ভয়াল কালরাত্রির স্মৃতিবাহী ‘গণহত্যা দিবস’ পালিত

আপডেট: মার্চ ২৬, ২০১৭, ১২:৪৪ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


দেশের মাটিতে ‘নারকীয় ও বর্বরোচিত হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের চরম ঘৃণা জানায়’ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে ২৫ মার্চকে ‘গণহত্যা দিবস’ উপলেক্ষ র‌্যালি ও আলোচনা সভা পালিত হয়েছে। গতকাল শনিবার নগর ও জেলা আওয়ামী লীগসহ সহযোগি বিভিন্ন সংগঠনের উদ্যোগে এ র‌্যালি ও সভা অনুষ্ঠিত হয়।
সেই ভয়াল ও বীভৎস কালরাত্রির স্মৃতিবাহী ২৫ মার্চ জাতীয় গণহত্যা দিবস। মানব সভ্যতার ইতিহাসে একটি কলঙ্কিত হত্যাযজ্ঞের দিন। একাত্তরের অগ্নিঝরা এই দিনে বাঙালির জীবনে নেমে আসে নৃশংস ও বিভীষিকাময় কালরাত্রি। এ রাতে বর্বর পাক বাহিনী ‘অপারেশন সার্চলাইট’ নামে স্বাধীনতাকামী বাঙালির ওপর হিং¯্র দানবের মতো ঝাঁপিয়ে পড়েছিল। আর এদিন বাঙালি জাতিসহ বিশ্ববাসী প্রত্যক্ষ করেছিল ইতিহাসের এক নৃশংস বর্বরতা।
মহানগর আ’লীগ : গণহত্যা দিবস উপলক্ষে মহানগর আ’লীগের উদ্যোগে সকাল ১০ টায় কুমারপাড়াস্থ দলীয় কার্যালয়ের স্বাধীনতা চত্বরে বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। এরপর সন্ধ্যা ৭ টায় কুমারপাড়াস্থ আওয়ামী লীগ দলীয় কার্যালয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। নগরীর গুরুতপূর্ণ মোড়ে প্রজেক্টরের মাধ্যমে গণহত্যা দিবস ও বঙ্গবন্ধুর উপর নির্মিত প্রামান্য চিত্র প্রদর্শণ করা হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন, মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মীর ইকবাল। সভা পরিচালনা করেন, মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার।
সভায় বক্তব্য দেন, নগর আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি নওশের আলী, অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান বাদশা, সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আসলাম সরকার, সদস্য আহসানুল হক পিন্টু, এনামুল হক কলিন্স, বোয়ালিয়া (পূর্ব) থানা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক শ্যামল কুমার ঘোষ।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, মহানগর আ’লীগের সহ-সভাপতি সমাজসেবী শাহীন আকতার রেনী, শাহাদৎ হোসেন, নিঘাত পারভীন, যুগ্মসম্পাদক মোস্তাক হোসেন, রেজাউল ইসলাম বাবুল, নাঈমুল হুদা রানা, দপ্তর সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম বুলবুল, সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল আলম বেন্টু, সাংস্কৃতিক সম্পাদক কামার উল্লাহ কামাল, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক ফিরোজ কবির সেন্টু, উপ-দপ্তর সম্পাদক শফিকুল ইসলাম দোলন, সদস্য মকিদুজ্জামান জুরাত, আব্দুস সালাম, ডা. আব্দুল মান্নান, রাজপাড়া থানা আ’লীগ সভাপতি হাফিজুর রহমান বাবু, সাধারণ সম্পাদক শেখ আনসারুল হক খিচ্চু, বোয়ালিয়া (পশ্চিম) থানা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক শামসুজ্জামান রতন, মতিহার থানা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আলাউদ্দিন , শাহ্মুখদুম থানা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক শাহাদত আলী শাহু, এছাড়াও সহযোগী সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ও বিভিন্ন ওয়ার্ডের সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদকবৃন্দ।
জেলা আ’লীগ : রাজশাহী জেলা আ’লীগের উদ্যোগে জাতীয় গণহত্যা দিবস উপলক্ষে বিকেল ৪ টায় লক্ষ¥ীপুর মোড় থেকে কালো পতাকা মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। এরপর মিছিল শেষে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবশে সভাপতিত্ব করেন, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বদরুজ্জামান রবু। সভায় বক্তব্য দেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোহা. আসাদুজ্জামান আসাদ। বক্তব্যে আসাদ বলেন, আমরা আগে থেকেই এই দিবসটি পালন করে এসেছি। তবে এই প্রথম জাতীয় সংসদে জাতীয় গণহত্যা দিবস পালনের সর্বসম্মতভাবে পাশ হয়। যাতে এখন থেকে প্রতিটি স্তরে গণহত্যা দিবস পালন করা হয়। ২৫ মার্চে পাকিস্তানের হানাদারা যেভাবে বাঙালিদের হত্যা করেছে তা পৃথিবীর ইতিহাসে আর কোথাও ঘটেনি। এমন ভয়াবহ নরকীয় হত্যাযজ্ঞ ইতিহাস কেউ হার মানিয়েছে।
বক্তব্য দেন, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অধ্যক্ষ একরামুল হক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট লায়েব উদ্দিন লাভলু, অধ্যক্ষ মোস্তাফিজুর রহমান মানজাল, জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক খালেদ ওয়াশি কেটু, কৃষকলীগের সভাপতি রবিউল আলম বাবু, তাঁতী লীগের সভাপতি সালে হামিম টুটু।
সমাবেশ পরিচালনা করেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আলফোর রহমান। ২৫ মার্চ সন্ধ্যায় গণহত্যার উপর প্রামাণ্য চলচ্চিত্র প্রদর্শন করা হয়। সূর্যোদয়ের সাথে সাথে দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়।
জেলা প্রশাসন : এদিবস উপলক্ষে রাজশাহী জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে গতকাল সকাল ১০টায় শিল্পকলা একাডেমীতে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন, রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার নূর-উর-রহমান। বিশেষ অতিথি ছিলেন, মহানগর আ’লীগের সহসভাপতি সমাজসেবী শাহীন আকতার রেনী, রাজশাহী রেঞ্জের ডিআইজি এম খুরশীদ হোসেন, মহানগর পুলিশ কমিশনার শফিকুল ইসলাম, রাজশাহী পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোয়াজ্জেম হোসেন ভুঁঞা, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ইউনিট কমান্ডার ফরহাদ আলী মিঞা, মহানগর ইউনিট কমান্ডার ডা. আবদুল মান্নান। এতে সভাপতিত্ব করেন, জেলা প্রশাসক কাজী আশরাফ উদ্দিন।
রাবি প্রশাসন : ‘গণহত্যা দিবস’ উপলক্ষে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) প্রদীপ প্রজ্জ্বালন ও পুষ্পস্তবক অর্পণ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও বধ্যভূমিতে এসব কর্মসূচি পালন করা হয়। এছাড়া বধ্যভূমি স্মৃতিস্তম্ভে ৭১’র গণহত্যা সম্পর্কে একটি প্রামাণ্যচিত্রও প্রদর্শিত হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত ভিসি ও কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক সায়েন উদ্দিন আহমেদ, ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার অধ্যাপক মু. এন্তাজুল হকসহ প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন। এরআগে সকাল ৮টার দিকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় স্কুলে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে বীর মুক্তিযোদ্ধা ডা. আব্দুল মান্নান ও শহিদ সুখরঞ্জন সমাদ্দারের পুত্র ডা. সলিল রঞ্জন সমাদ্দার মুক্তিযুদ্ধকালে তাদের অভিজ্ঞতা বর্ণনা করেন।
এদিকে ‘আগুনের পরশমণি ছোঁয়াও প্রাণে’ গানটি পরিবেশনের সঙ্গে সঙ্গে প্রদীপ প্রজ্জ্বালন করে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) পালিত হয়েছে গণহত্যা দিবস। শনিবার সন্ধ্যা সাতটায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে এভাবেই দিবসটি পালন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় সাংস্কৃতিক জোট, অরণী সাংস্কৃতিক সংগঠন, ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি, রাবি শিক্ষক সমিতি ও প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ।
বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের বেদীতে মোমবাতি প্রজ্জ্বালনের পর সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে কেন্দ্রীয় সাংস্কৃতিক জোট। জোটের সাধারণ সম্পাদক আকাশ কুমারের সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য দেন সমাজকর্ম বিভাগের অধ্যাপক ছাদেকুল আরেফিন মাতিন, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি ও বাংলা বিভাগের অধ্যাপক পি এম সফিকুল ইসলাম, জোটের সভাপতি আব্দুল মাজিদ অন্তর প্রমুখ।
এসময় অধ্যাপক সাদেকুল আরেফিন মাতিন বলেন, ’৭১ এর আজকের এই দিনে পাকিস্তান সেনাবাহিনী বাঙালি জাতির ওপর যে নৃশংস গণহত্যা চালায় তা ইতিহাসে বিরল। গণহত্যার সেই বিভৎস স্মৃতিকে ধারণ করতে কিছুদিন আগে বাংলাদেশ সরকার দিনটিকে জাতীয়ভাবে পালনের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। আজকের এই দিনের নৃশংস গণহত্যায় নিহত সকল শহীদের প্রতি জানাই বিন¤্র শ্রদ্ধা।
এসময় ১ মিনিট নিরবতা পালন করে শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয়। পরে একে একে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ঘাতক-দালাল নির্মূল কমিটি, অরণী সাংস্কৃতিক সংগঠন, রাবি শিক্ষক সমিতি ও প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের নেতাকর্মীরা গণহত্যায় নিহত শহিদদের প্রতি প্রদীপ প্রজ্জ্বালন করে শ্রদ্ধা নিবেদন করে।
সাংসদ দারা : ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ কাল রাত্রে নিরীহ জনগণের মাঝে বর্বর হামলা নির্যাতন চালিয়েছিল পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ও তার দোসররা। তাদের নির্যাতনের কথা কেউ ভুলেনি। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীকে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে সহযোগিতা করেছিল এদেশের আলবদর, আল-শামস ও রাজাকার বাহিনী। তাদের দোসররা আমাদের দেশে এখনো ঘাপটি মেরে আছে। তাই আমাদেরকে সচেতন থাকতে হবে। তাদেরকে মোকাবেলা করার জন্য আওয়ামী লীগসহ মুক্তিযুদ্ধের শক্তিকে অটুট রাখতে হবে। গতকাল শনিবার পুঠিয়া ও দুর্গাপুর উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে পৃথক গণহত্যা দিবসের আলোচনাসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে সাংসদ দারা এসব কথা বলেন।
দুর্গাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আনোয়ার সাদাতের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশষে অতিথি ছিলেন, দুর্গাপুর উপজেলা চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা নজরুল ইসলাম, উপজেলা আ’লীগের সাবেক সহ-সভাপতি এককেএম শামসুল ইসলাম, অধ্যক্ষ মোজাম্মেল হক, যুগ্মসম্পাদক আবু ওবায়দা মাসুম, আওয়ামী লীগ নেতা শাহাদাৎ হোসেন, দুর্গাপুর পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজাহার আলী, দুর্গাপুর মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুর রব, দুর্গাপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আলমগীর হোসে, সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক শরিফুজ্জামান প্রমুখ।
এদিকে পুুঠিয়া উপজেলা উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে গণহত্যা দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন, সাংসদ আব্দুল ওয়াদুদ দারা। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমা রহমানের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ারুল ইসলাম জুম্মা, পুঠিয়া উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রধান শিক্ষক আব্দুল মালেক, পুঠিয়া পৌরসভার মেয়র রবিউল ইসলাম রবি, রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা অধ্যক্ষ মনিরুল ইসলাম তাজুল, পুঠিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি কাজী শরীফ প্রমুখ।
রাজশাহী কলেজ : এদিবস উপলক্ষে বিভিন্ রাজশাহী কলেজে গতকাল শনিবার সকাল ১১ টায় কলেজের প্রতিটি বিভাগে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মহা. হবিবুর রহমান বলেন, ১৯৭১ সালের এই দিনে ঘুমন্ত বাঙালির উপর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী অপারেশন সার্চলাইট নামে নৃশংস হত্যাযজ্ঞ চালায়। এই নারকীয় হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িদের প্রতি তীব্র নিন্দা জানান তিনি।
প্রতিটি বিভাগে ২৫ মার্চের সেই ভয়াল গণহত্যা, মুক্তিযুদ্ধ এবং শহিদ বীরশ্রেষ্ঠদের উপর বিশেষ ডকুমেন্টরি প্রদর্শিত হয়।
এসময় উপস্থিত ছিলেন, কলেজের উপাধ্যক্ষ প্রফেসর আল-ফারুক চৌধুরী, শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ড. জুবাইদা আয়েশা সিদ্দিকাসহ সকল শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। গত ২০ মার্চ এই দিনটিকে জাতীয় গণহত্যা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করা হয়।
পরিচালনা করেন, কলেজের শরীর চর্চা শিক্ষক মামুন-উর-রশিদ।
নিউ গভ. ডিগ্রি কলেজ: এ দিবসটি উপলক্ষে আলোচনাসভা ও প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন, সাংস্কৃতিক কমিটির আহ্বায়ক ড. শিখা সরকার। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন, কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক জার্জিস কাদির। বিশেষ অতিথি ছিলেন, উপাধ্যক্ষ অধ্যাপক হাবিবুর রহমান। অনুষ্ঠানে কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।
সরকারি সিটি কলেজ: এ দিবসটি উপলক্ষে কলেজ অডিটরিয়ামে প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শনী ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন, কলজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মফিজদ্দিন মোল্লা। এসময় উপস্থিত ছিলেন, উপাধ্যক্ষ অধ্যাপক নিলুফার পারভীন, শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক এএফএম বজলুল কবীর। গণহত্যার উপর আলোচনা করেন, ইতিহাস বিভাগের বিভাগীয় প্রধান শাহ তৈয়বুর রহমান চৌধুরী। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন, বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. আজিজুর রহমান।
বঙ্গবন্ধু কলেজ: এ দিবসটি উপলক্ষে আলোচনসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এসময় উপস্থিত ছিলেন, অধ্যক্ষ নুরুল ইসলাম, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ইকবাল হোসেন, সমাজবিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ওয়াহেদা সুলতানাসহ কলেজের শিক্ষার্থীবৃন্দ।
একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি ও সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট : এ দিবসটি উপলক্ষে মশাল মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। মিছিলটি নগরীর আলুপট্টি বঙ্গবন্ধু চত্বর থেকে শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। এসময় উপস্থিত ছিলেন, ভাষাসৈনিক আবুল হোসেন, কলাম লেখক প্রশান্ত কুমার সাহা, রাসিকের সাবেক দায়িত্বপ্রাপ্ত মেয়র সরিফুল ইসলাম বাবু, মেট্রোপলিটন কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ জুলফিকার আহমেদ গোলাপ, মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান আলী বরজাহান, বরেন্দ্র কলেজের অধ্যক্ষ আলমগীর মালেক প্রমুখ।
মহানগর যুবলীগ : দিবসটি উপলক্ষে মহানগর আওয়ামী লীগের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে মহানগর যুবলীগ স্বাধীনতা চত্বরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও জাতীয় চার নেতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করে। এসময় উপস্থিত ছিলেন, মহানগর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মোশারফ হোসেন বাচ্চু, যুব নেতা মনিরুজ্জামান খান, মাহমুদ হাসান খান চৌধুরী ইতু, অ্যাড. মাজেদুল আলম , আরকান উদ্দিন বাপ্পি, আলমগীর হোসেন প্রমুখ।
রাজশাহী প্রেসক্লাব : রাজশাহী প্রেসক্লাবের উদ্যোগে সন্ধ্যা ৬টায় রাজশাহী প্রেসক্লাব মিলনায়তনে আয়োজিত এক আলোচনা সভা থেকে দিবসটির আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি দাবি করেন বক্তারা। এ সময় প্রধান অতিথি হিসেবে মোবাইলফোনে বক্তব্য রাখেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক আআমস আরেফিন সিদ্দিক।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, জাতীয় সংসদে প্রস্তাব পাশ হয়েছে যে, ২৫ মার্চকে আন্তর্জাতিকভাবে গণহত্যা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া হোক। তাই আমাদের ১৬ কোটি মানুষেরও দাবি, জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে আন্তর্জাতিক গণহত্যা ও প্রতিরোধ দিবস হিসেবে পালন করা হোক। আর আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির মাধ্যমে এই বার্তাটি পৌঁছাবে যে, গণহত্যা কখনোই সমর্থনযোগ্য হতে পারে না। একই সাথে যাতে পৃথিবীতে করে আর কখনো ৭১ এর কোনো ঘটনার পুনরাবৃত্তি না ঘটে এজন্য আমাদের সবার সচেষ্ট হওয়ার প্রয়োজন আছে। তিনি বলেন, জঙ্গিবাদী গোষ্ঠী, সন্ত্রাসী গোষ্ঠী যেভাবে তাদের কার্যকলাপ চালাচ্ছে তা খুবই দুঃখজনক। আমরা এ থেকে পরিত্রান চাই। ৭১ এর ভয়াবহ স্মৃতি ধারণ করে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান এই শিক্ষাবিদ।
রাজশাহী প্রেসক্লাবের সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) গোলাম সারওয়ারের সভাপতিত্ব এবং সাধারণ সম্পাদক সাইদুর রহমানের পরিচালনায় আলোচনা সভায় অংশ নেন- রাজশাহী প্রেসক্লাবের আজীবন সদস্য কলামিস্ট প্রশান্ত কুমার সাহা, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. আব্দুল ওয়াদুদ, নিউ গভ. ডিগ্রি কলেজের অধ্যাপক আব্দুল আওয়াল আনসারী, রাজশাহী প্রেসক্লাবের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আসলাম-উদ-দৌলা, রাজশাহী বারের নব-নির্বাচিক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শিরাজী শওকত সালেহীন এলেন, প্রয়াত সাংবাদিক মাহাতাব চৌধুরীর মাতা নাজমা চৌধুরী, মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি সংগ্রাহক ওয়ালিউর রহমান বাবু ও সাংবাদিক কাজী রকিব উদ্দিন।
প্রগতিশীল নাগরিক সংহতি : বাংলাদেশের গণহত্যা দিবসকে আর্ন্তজাতিক স্বীকৃতির দাবিতে গতকাল শনিবার বিকেল ৫ টায় নগরীর শহীদ কামারুজ্জামান চত্বরে প্রগতিশীল নাগরিক সংহতির উদ্যোগে মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সংগঠনের আহবায়ক ভাষাসৈনিক মোশাররফ হোসেন আখুঞ্জির সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব কলাম লেখক শাহ মো. জিয়াউদ্দিনের সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য দেন, অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান বাদশা, যুগ্মআহবায়ক মুক্তিযোদ্ধা আলী আর্সলান অপু, যুগ্মআহবায়ক মিনহাজ উদ্দিন মিন্টু, যুগ্ম সদস্য সচিব শিল্পী আজমল সাচ্চু, কার্যকরি পরিষদের সদস্য কেএম রেজাউল করিম খোকন, সায়েদুজ্জামান শিপন, হাসান মুনজুর মোরশেদ চুন্না ,মুক্তিযোদ্ধা রণজিৎ বর্ধন, হাবিবুর রহমান তুহিন, শান্তিরঞ্জন ভৌমিক, আশরাফ হোসেন, সুমনসহ প্রমুখ।
সমাবেশে বক্তরা ২৫ মার্চকে আর্ন্তজাতিক গণহত্যাদিবস হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার জন্য জাতিসংঘসহ আর্ন্তজাতিক মহলের কাছে দাবি জানান।
সরকারি পিএন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়: পিএন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের উদ্যোগে শনিবার বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তৌহিদ আরা’র সভাপতিত্বে বিদ্যালয়ের শিক্ষক মিলনায়তনে ‘রক্তাক্ত ২৫ শে মার্চ, বিপন্ন মানবতা’ শীর্ষক আলোচনাসভা এবং ডকুমেন্টারি ফিল্ম প্রদর্শন করা হয়। সেই সঙ্গে এ দিবসটিকে ‘আন্তর্জাতিক গণহত্যা দিবস’ হিনেবে পালনের দাবি জানানো হয়। সবশেষে সকল শহিদদের আত্মার মাগফেরাত এবং দেশ ও জাতির সমৃদ্ধি কামনা করে মোনাজাত করা হয়।
মসজিদ মিশন অ্যাকাডেমি : দিবসটি উপলক্ষে মসজিদ মিশন অ্যাকাডেমিতে প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ আকবর আলীর সভাপতিত্বে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে অংশ নেন, মাও. মো. আফজাল হোসেন, মাও. আইয়ুব আলী শেখ, মাহফুজুল্লা জাহির প্রমুখ।
মেট্রোপলিটন কলেজ: এ দিবসটি উপলক্ষে কলেজ মিলনয়তনে সকালে গণহত্যা প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শিত করা হয়েছে। এসময় কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।
কমেলা হক ডিগ্রি কলেজ: এ দিবসটি উপলক্ষে আলোচনাসভা ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে বক্তব্য দেন, সহকারী অধ্যাপক একরামুল হক, আয়নাল হক, প্রভাষক একএম নূরুজ্জামান। কলেজের অধ্যক্ষ মহসিন আলীর সভাপতিত্বে সভা পরিচালনা করেন, গণিত বিভাগের প্রভাষক এনামুল হক মোল্লাহ। এসময় কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।
বরেন্দ্র কলেজ: এ দিবসটি তাৎপর্য তুলে ধারা হয়। কলেজের অধ্যক্ষ আলমগীর মো. আবদুল মালেকের সভাপতিত্বে সমাজকল্যাণ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সেলিনা আক্তার ও কলেজের শিক্ষার্থীরা বক্তব্য দেন। অনুষ্ঠানের শুরুতে ২৫ মার্চ শহিদদের স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। অনুষ্ঠান
জেলা আওয়ামী সাংস্কৃতিক জোট : আওয়ামী সাংস্কৃতিক জোটের সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আওয়ামী সাংস্কৃতিক জোট জেলা কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ড. জামিনুর রহমানের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য দেন, সহসভাপতি জাফর ইকবালসহ সভাপতি প্রকৌশলী কামাল হোসেন, মিজানুর রহমান সরকার, সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ শরিফুল ইসলাম (উপাধ্যক্ষ), এসএম কামরুজ্জামান প্রমুখ।
জাতীয় বিজ্ঞান গবেষণা ও প্রযুক্তি মহাবিদ্যালয় শিরোইল হলরুমে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তারা বলেন, জাতিসংঘ ১৯৪৮ সালের ৯ ডিসেম্বর ‘জেনেসাইড কনভেনশন’ গ্রহণ করে, কাজেই আমরা ৯ ডিসেম্বরের পরিবর্তে ২৫ মার্চকে আর্ন্তজাতিক গণহত্যা দিবস ঘোষণা করার জোর দাবি জানাচ্ছি।
ইলা মিত্র শিল্পী সংঘ : দিবসটি উপলক্ষে ইলা মিত্র শিল্পী সংঘের উদ্যেগে সংগঠনের কার্যালয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় সভাপতিত্ব করেন, সংগঠনের সহসভাপতি সেলিম রেজা। আলোচনা করেন, তাপস মজুমদার, মৌ, নিশা আয়েশা, শ্রুতি ও সূচনা।
বাঘা : বাঘা উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে অডিটোরিয়ামে এই গণহত্যা দিবস উপলক্ষে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ হামিদুল ইসলাম। প্রভাষক ওয়াহেদ সাদেক কবীরের পরিচালনায় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও প্যানেল চেয়ারম্যান-১, মুক্তিযোদ্ধা শফিউর রহমান শফি, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম বাবুল, ভূমি কর্মকর্তা নাকিব হাসান তরফদার, কৃষি কর্মকর্তা সাবিনা বেগম, মৎস্য কর্মকর্তা আমিরুল ইসলাম, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আরিফুর রহমান, প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ইয়াকুব আলী, বাঘা থানার অফিসার ইনচার্জ আলী মাহমুদ, অধ্যক্ষ আবদুল কাদের, অধ্যক্ষ সামরুল হোসেন, শিক্ষক বাবুল ইসলাম প্রমুখ।
মহিষবাথান আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় : দিবসটি উপলক্ষে মহিষবাথান আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করে। কর্মসূচীর মধ্যে ছিল সূর্যদোয়ের সাথে সাথে জাতীয় পতাকা উত্তলন, সকালে শিক্ষার্থী সমাবেশে জাতীয় সংগীত শেষে এক মিনিট নিরাবতা পালন, সমাবেশ শেষে গণহত্যা দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের সভাপত্বি এ.কে মাসুদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন, বিশিষ্ট সমাজসেবী সেলিম মনোয়ার। সভায় সভাপতিত্ব করেন, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাহাবুব-উল-আলম। সভায় বক্তব্য দেন, সহকারী শিক্ষক ইব্রাহীম খলিলুল্লাহ, উত্তম সরকার, পারভীন সুলতানা। সভা সঞ্চালনা করেন, শরীর চর্চা শিক্ষক দিল আরা শামীম। সভা শেষে শহীদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া করা হয়।
চারঘাট : দিবস পালন উপলক্ষে আলোচনা সভা ও মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার সকালে পরিষদ হলরুমে উপজেলা প্রশাসন আয়োজনে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। ইউএনও আশরাফুল ইসলামের সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক ফকরুল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মিজানুর রহমান, উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা সাইফুল ফেরদৌস, প্রকৌশলী মোজাহার আলী, জেলা আওয়ামীলীগ সদস্য সাইফুল ইসলাম বাদশা, আ’লীগের সাবেক দফতর জেলা সম্পাদক মাজদার রহমান, নিমপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান মনিরুজ্জামান ও মডেল থানার ওসি নিবারন চন্দ্র বর্মন প্রমূখ।
নাচোল : নাচোলে উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা আ’লীগ ও বিএম ফাজিল মাদরাসার পৃথক আয়োজনে গণহত্যা দিবস পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে গতকাল বিকেল সাড়ে ৫টায় নাচোল উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে ইউএনও মুহাম্মদ নাজমুল হকের সভাপতিত্বে আলোচনাসভা ও সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল কাদের। অন্যদের মাঝে বক্তব্য রাখেন, নাচোল সরকারি কলেজের অফিসার ইন্চার্জ হাফিজুর রহমান, মহিলা ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ ওবাইদুর রহমান, উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) পাপিয়া সুলতানা। অপরদিকে সকাল সাড়ে ১০টায় উপজেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে দলীয় কার্যালয়ে সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদেরের সভাপতিত্বে এবং বেগম মহসিন ফাজিল মাদরাসা মিলনায়তনে অধ্যক্ষ মাওলানা ইসাহাক আলীর সভাপতিত্বে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
গোদাগাড়ী : গোদাগাড়ী উপজেলা পরিষদ হলরুমে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জাহিদ নেওয়াজের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ইসহাক আলী বিশ্বাস, সহকারী কমিশনার (ভূমি) সারোয়ার, পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি অয়েজ উদ্দীন বিশ্বাস, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি বদিজউজ্জামান, গোদাগাড়ী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হিজপুর আলম মুন্সি, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার অশোক কুমার চৌধুরী ও উপজেলা প্রেসক্লাব সভাপতি আলমগীর কবরি তোতা। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন, পৌর যুব লীগ সভাপতি অধ্যাপক আকবার আলী। এদিকে দিবসটি উপলক্ষ্যে বিকাল ৪ টায় ডাইংপাড়া ফিরোজ চত্বরে পৌর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে সমাবেশ ও র‌্যালি বের করা হয়।
মান্দা : নওগাঁর মান্দায় আলোচনাসভা ও প্রামান্যচিত্র প্রদর্শনের মধ্যদিয়ে জাতীয় গণহত্যা দিবস পালন করা হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে ইউএনও মো. নুরুজ্জামানের সভাপতিত্বে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়।
ইউএনও’র সভা কক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য দেন, উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) ফয়সাল আহমেদ, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সরদার জসিম উদ্দিন, সহসভাপতি ব্রহানী সুলতান গামা, আব্দুল লতিফ শেখ, মুক্তিযোদ্ধা অ্যাড. আব্দুল মান্নান, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আফসার আলী মন্ডল, যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা পরিতোষ কুমার মন্ডল, উপজেলা আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক অনুপ কুমার মহন্ত, স্বেচ্চাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক নওসাদ আলী, যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুর রহমান প্রমুখ। শেষে গণহত্যা বিষয়ক প্রামান্যচিত্র প্রদর্শিত হয়।
অন্যদিকে গোটগাড়ী শহীদ মামুন হাইস্কুল ও কলেজ, চকউলি ডিগ্রি কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গণহত্যা দিবস পালন করা হয়েছে।
মোহনপুর : মোহনপুর উপজেলা প্রশাসন ও মোহনপুর গার্লস ডিগ্রি কলেজের উদ্যোগে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার উপজেলা হলরুমে মোহনপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আলমগীর কবিরের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আব্দুস সামাদ, ভাইস চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ, বানেছা বেগম, থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এস এম মাসুদ পারভেজ, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মফিজ উদ্দিন কবিরাজ, যুগ্মসাধারণ সম্পাদক ও কেশরহাট পৌরসভার মেয়র শহিদুজ্জামান শহিদ, সহসভাপতি ও কাউন্সিলর রুস্তম আলী, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সিদ্দিকুর রহমান, জেলা পরিষদের সদস্য শফিকুল ইসলাম, রাবিয়া খাতুন সীমা, প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোখলেসুর রহমান প্রমুখ। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন উপজেলা কৃষি অফিসার রহিমা খাতুন। অপরদিকে মোহনপুর গার্লস ডিগ্রী কলেজে অধ্যক্ষ আব্দুল মালেক মন্ডলের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন, মোহনপুর গার্লস ডিগ্রী কলেজের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি প্রধান শিক্ষক দীলিপ কুমার তপন। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কলেজের উপাধ্যক্ষ আব্দুল আলিম কাজী, অধ্যাপক আব্দুল করিম, দেওয়ান মো: মোস্তাফিজুর রহমান, রনি পারভেজ প্রমুখ। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সহকারি অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম।
তানোর : শনিবার বিকালে গোল্লাপাড়া বাজার দলীয় কাযালয় থেকে উপজেলা আ’লীগের উদ্দ্যোগে শোক র‌্যালি বের হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মামুন, সাংগঠনিক সম্পদক আবুল কাশেম, তানোর থানা যুবলীগের সভাপতি ও কলমা ইউপি চেয়ারম্যান লুৎফর হায়দার রশিদ ময়না, সম্পাদক জুবায়ের ইসলাম, তানোর পৌর যুবলীগ সভাপতি হিরো সরকার,সাধারণ সম্পাদক ওহাব সরদারসহ দলীয় নেতাকর্মীরা। অপরদিকে দিবসটি উপলক্ষে সকালে উপজেলা পরিষদ হলরুমে আলোক চিত্র প্রদর্শনী, আলোচনাসভা হয়। আলোচনা সভায় উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শ্রী বন্দনা রানীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শওকাত আলী।
বিশেষ অতিথি ছিলেন, তানোর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মীর্জা আব্দুস সালাম, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ফাতেমা খাতুন, উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা আরাফাত সিদ্দিকী, তানোর পৌরসভা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রবিউল ইসলাম, আকচা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আসলাম উদ্দীন, চাপড়া উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জিল্লার রহমান প্রমুখ।