মসুলে আইএস জঙ্গিরা মরবে : মার্কিন দূত

আপডেট: মার্চ ১৪, ২০১৭, ১২:১৩ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


আইএসবিরোধী অভিযানের সমন্বয়কারী মার্কিন দূত হুঁশিয়ার করেছেন, মসুলে থাকা জঙ্গিরা মরবে। মসুল থেকে বের হওয়ার সবশেষ রাস্তাটি ইরাকি বাহিনী বিচ্ছিন্ন করে দেওয়ার পর জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামি স্টেটের (আইএস) বিরুদ্ধে অভিযানের মার্কিন সমন্বয়ক ব্রেট ম্যাকগার্ক এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন। জঙ্গিরা মসুল শহরের ভেতরে আটকা পড়েছে।
ইরাকের দ্বিতীয় বৃহৎ শহর মসুল। ২০১৪ সালে সহিংস তা-ব চালিয়ে এটি দখলে নেয় আইএস। সেই থেকে সেখানে ধ্বংসলীলা চালাচ্ছে আইএস।
ইরাকি বাহিনী সম্প্রতি মাসব্যাপী অভিযানের মাধ্যমে মসুলের অধিকাংশ অঞ্চল পুনর্দখল করতে সক্ষম হয়েছে। মসুলের পূর্বাঞ্চলের পুরোটাই নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে ইরাকি বাহিনী। যুক্তরাষ্ট্রের সহযোগিতায় ৫ মার্চ থেকে শুরু হওয়া অভিযানে সরকারি সদরদপ্তর, মসুল জাদুঘরসহ মসুলের পশ্চিমাঞ্চলের গুরুত্বপূর্ণ অংশ পুনর্দখল করতে সক্ষম হয়েছে ইরাকি বাহিনী।
রোববার বাগদাদে মার্কিন দূত ম্যাকগার্ক জানিয়েছেন, যেখানে ব্যাপক যুদ্ধ চলছে। গত রাতে ইরাকের নবম সেনা ডিভিশন মসুল থেকে বের হওয়ার সবশেষ রাস্তাটিও বিচ্ছিন্ন করে দিয়েছে।
তিনি বলেন, ‘যেসব আইএস জঙ্গি মসুলে থেকে গেছে, তারা মরতে বসেছে, কারণ তারা আটকা পড়েছে।’
ম্যাকগার্ক আরো বলেন, ‘মসুলে তাদের শুধু পরাজিত করতেই আমরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ নই, বরং এটিও নিশ্চিত করতে পারি, তারা কেউ ছাড় পাবে না।’
ইরাকের এলিট কাউন্টার-টেররিজম সার্ভিসের মেজর জেনারেল মান আল-সাদ জানিয়েছেন, মসুলের পশ্চিমাঞ্চলের এক-তৃতীয়াংশের বেশির নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে ইরাকি বাহিনী।
জেনারেল মান-সাদ মনে করেন, মসুলের পূর্বাঞ্চল দখল করতে যত বেশি সময় লেগেছিল, পশ্চিমাঞ্চল দখল করতে অত বেশি সময় লাগবে না। পূর্বাঞ্চল দখলে গত বছর অক্টোবর মাসে শুরু হওয়া অভিযান শেষ হয় জানুয়ারি মাসে।
তবে জাতিসংঘ জানিয়েছে, মসুলের আইএসের নিয়ন্ত্রণে থাকা অংশে এখনো প্রায় ৬ লাখ বেসামরিক মানুষ আটকা পড়ে আছে। তাদের বাঁচিয়ে এ অভিযানের সফল সমাপ্তির কথা ভাবছে ইরাক।
এদিকে, মসুল শহরে আশপাশে কয়েকটি গণকবর পাওয়া গেছে। যেখানে শত শত মানুষকে চাপা দেওয়া হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।- রাইজিংবিডি