মস্কোয় কনসার্ট হল হামলার দায় স্বীকার করল ইসলামিক স্টেটের

আপডেট: মার্চ ২৩, ২০২৪, ২:৫৭ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক:


মস্কোর কনসার্ট হলে হামলার দায় স্বীকার করল আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদী সংগঠন ইসলামিক স্টেট। শুরুর দিকে হামলার নেপথ্যে চেচেন জঙ্গিদের হাত থাকতে পারে বলে মনে করা হচ্ছিল। তবে আইএসের দাবি গোটা পরিস্থিতির মোড় ঘুরিয়ে দিয়েছে। প্রশ্ন উঠছে, মস্কোয় কি ছায়া পড়েছে ‘গ্লোবাল জেহাদে’র?

শুক্রবার নিজেদের টেলিগ্রাম চ্যানেল ‘আমাক’-এ একটি বিবৃতি প্রকাশ করে ইসলামিক স্টেট (ওঝওঝ)। সংগঠনটির দাবি, মস্কোর কনসার্ট হলে হামলা চালিয়েছে তাদেরই ফিদায়েঁ মুজাহিদরা। এই ঘোষণার পরই রীতিমতো সিঁদুরে মেঘ দেখছে ক্রেমলিন। রুশ নিরাপত্তা সংস্থাগুলোর কপালেও চিন্তার ভাঁজ গভীর হয়েছে। রুশ সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, শুরুর দিকে গোয়েন্দা সংস্থার একাংশ মনে করছিল হামলার নেপথ্যে চেচেন জঙ্গিদের হাত থাকতে পারে। তবে আইএসের দাবি গোটা পরিস্থিতির মোড় ঘুরিয়ে দিয়েছে। প্রশ্ন উঠছে, মস্কোয় কি ছায়া পড়েছে ‘গ্লোবাল জেহাদে’র? কেন এই হামলা?

বিশ্লেষকদের মতে, বিশ্বজুড়ে খিলাফত (ইসলামিক শাসন) স্থাপনের লড়াই চালাচ্ছে ইসলামিক স্টেট। আমেরিকা থেকে আফ্রিকা জেহাদের আগুন জ্বালিয়ে দিতে তৎপর তারা। আইএসের ফৌজে রয়েছে উজবেক, তাজিক, কিরঘিজ, পাকিস্তানি ও ইরানি জঙ্গিরা। শুধু তাই নয়, আমেরিকা, ব্রিটেন ও অন্যান্য পশ্চিমি দেশ থেকে সদস্য জোগাড় করেছে আইএস।

রাশিয়ার মুসলমান প্রধান চেচনিয়া প্রদেশ বা চেচেন প্রজাতন্ত্রে শিকড় জমাতে চাইছে ইসলামিক স্টেট। চেচেন জঙ্গিদের হাত করে খিলাফতের চেষ্টা চালাচ্ছে তারা। তাই মস্কোর কনসার্ট হলে হামলা একপ্রকার শক্তিপ্রদর্শন। তাছাড়া, রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লদিমির পুতিনকে মুসলিম বিদ্বেষী হিসেবে দেখে আইএস। চেচনিয়া যুদ্ধে পুতিনের নির্দেশে মুসলিমদের গণহত্যা করা হয়েছে বলে দাবি সংগঠনটির। তাই আবারো পুতিন মসনদে বসতেই হামলা করে শক্তিপ্রদর্শন করল আইএস।

মার্কিন নিরাপত্তা সংস্থাগুলোর মতে, ইরাক ও সিরিয়ায় পরাজিত হলেও যথেষ্ট শক্তি ধরে আইএস। আমেরিকা, ইউরোপ, আফ্রিকা ও এশিয়ায় ক্রমে শক্তি বাড়াচ্ছে তারা। আফগানিস্তান থেকে মার্কিন ফৌজ সরে যাওয়ায় সে দেশে আরও বেশি সক্রিয় হয়েছে আইএস। আল কায়দার আসন কেড়ে নিয়ে নিজেদের শরীয়তের ধ্বজাধারী হিসেবে প্রতিপন্ন করতে চাইছে সংগঠনটি। বলে রাখা ভালো, ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর আমেরিকার টুইন টাওয়ারে হামলা চালায় আল কায়দা। পালটা আফগানিস্তানে সামরিক অভিযান শুরু করে আমেরিকা। সমর বিশেষজ্ঞদের একাংশের মতে, তৎকালীন আল কায়দা প্রধান ওসামা বিন লাদেন জানত, আমেরিকার ‘মিশন আফগানিস্তান’ই বৈশ্বিক জেহাদের বারুদে স্ফুলিঙ্গের কাজ করবে। তবে আল কায়দাকা সরিয়ে সেই গ্লোবাল জেহাদের মুখ এখন অনেকটাই ইসলামিক স্টেট।
তথ্যসূত্র: সংবাদ প্রতিদিন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Exit mobile version