মহাদেবপুরে উদ্ধার হওয়া দুই কন্যা শিশু কে পৃথক পরিবারে হস্তান্তর

আপডেট: July 29, 2020, 10:10 pm

মহাদেবপুর প্রতিনিধি


নওগাঁর মহাদেবপুরে দুটি পৃথক স্থান থেকে উদ্ধার হওয়া কন্যা শিশু দুটিকে সাময়িক বিকল্প পরিচর্যার জন্য পৃথক দুটি পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।
গত মঙ্গলবার বিকেলে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কক্ষে উপজেলা শিশু কল্যাণ বোর্ড সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক ১দিন বয়সি কন্যা শিশুটিকে দিনাজপুরে কর্মরত অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ড. রুহুল আমিন সরকারের কাছে নওগাঁ পুলিশ সুপার প্রকৌশলী আব্দুল মান্নান বিপিএম ও সাড়ে ৩ মাস বয়সি অপর কন্যা শিশুটিকে জেলার বদলগাছী উপজেলার চাকরাইল গ্রামের মৃত আবু হেনা চৌধুরীর পুত্র মো. শিহাব নোমান চৌধুরী ও মোছা. দিলরুবা নাসরিন ইতি দম্পত্তির নিকট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মিজানুর রহমান সাময়িক বিপল্প পরিচর্যার জন্য হস্তান্তর করেন।
ঘটনাটি গত সোমবার সকালে উপজেলার মাতাজিহাটে একটি পরিত্যক্ত বাড়ির ঝোপের মধ্য থেকে এক নবজাতক কন্যা শিশুকে উদ্ধার করেন এলাকাবাসী। পরে স্থানীয় চেয়ারম্যান এর মাধ্যমে এক দম্পত্তির হেফাজতে রাখা হয়। এ ঘটনাটি এলাকায় জানাজানি হলে শিশুটিকে দত্তক নিতে অনেকেই ভিড় করতে থাকেন। অপর ঘটনাটি ঘটে উপজেলা সদরের বাসস্ট্যান্ড এলাকায়। স্থানীয় সেভেন স্টার হোটেলের রান্নার কাজে সহায়তাকারী পরী বানু জানান, তিনি কাজ শেষে সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টার দিকে বেতন নেয়ার জন্য হোটেলের সামনে দাঁড়িয়ে ছিলেন। এমন সময় একজন নারী বাস থেকে ব্যাগ নিয়ে আসার কথা বলে তার কাছে প্রায় সাড়ে ৪ মাস বয়সের একটি কন্যা শিশু দিয়ে দিয়ে চলে যায়। অনেকক্ষণ পরেও নারীটি ফিরে না আসায় অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তাকে পাওয়া যায়নি। পরে থানায় খবর দিলে পুলিশ এসে শিশুটিকে তার হেফাজতে রেখে দেন। পরদিন মঙ্গলবার বিকেলে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কক্ষে উপজেলা শিশু কল্যাণ বোর্ড সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক শিশু দুটিকে সাময়িক বিকল্প পরিচর্যার জন্য ১দিন বয়সি কন্যা শিশুটিকে দিনাজপুরে কর্মরত অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ড. রুহুল আমিন সরকার এর নিকট এবং সাড়ে ৩ মাস বয়সি অপর কন্যা শিশুটিকে জেলার বদলগাছী উপজেলার চাকরাইল গ্রামের নোমান ও ইতি দম্পত্তির নিকট হস্তান্তর করা হয়।
এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিজানুর রহমান জানান, উপজেলা শিশু কল্যাণ বোর্ড এর সভায় সিদ্ধান্ত মোতাবেক সাময়িক বিকল্প পরিচর্যার জন্য (১৫ দিনের) শিশু দুটিকে হস্তান্তর করা হয়েছে। শিশু দুটির প্রকৃত অভিভাবককে পাওয়া গেলে তাদের নিকট প্রদান করা হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ