মহানন্দায় রাবার ড্যামে কৃষিতে আনবে বৈপ্লবিক পরিবর্তন

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ৪, ২০২২, ৫:৫৬ অপরাহ্ণ

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি :


প্রধানমন্ত্রী প্রতিশ্রæত মহানন্দা নদীতে রাবার ড্যাম নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে। এর ফলে চাঁপাইনবাবগঞ্জ কৃষিভিত্তিক জেলা হওয়ার সুবাদে আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে রাখবে অনন্য ভূমিকা। ২০২৩ সালের মে মাসের মধ্যে এর নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে সংশ্লিষ্টরা জানান।

জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঐকান্তিকতায় এবং চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুল ওদুদের প্রচেষ্টায় মহানন্দা নদীতে রাবার ড্যাম নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে। মহানন্দা নদী ড্রেজিং ও রাবার ড্যাম নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় ২০২১ সালের ১১ নভেম্বর থেকে এসএস রহমান ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কস লিমিটেড বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সেতু থেকে ৫’শ মিটার ভাটিতে মহানন্দা নদীতে রাবার ড্যাম নির্মাণ কাজ শুরু করেছে।

২০২৩ সালে ৩০ মে সম্পন্ন হওয়ার কথা রয়েছে। মহানন্দা নদীর প্রবাহ ও নিষ্কাশন সক্ষমতা বৃদ্ধির পাশাপাশি কৃষি কাজে অতিরিক্ত ৮ হাজার হেক্টর জমিতে সেচ সুবিধা পাবে। এর ফলে কৃষি ও মৎস্য উৎপাদনের মাধ্যমে এলাকার আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে ব্যাপকতা বাড়বে। ৩৬.০৫ কিলোমিটার নদী খনন, প্রায় ৭ হেক্টর জমি অধিগ্রহণ, রাবার ড্যাম নির্মাণসহ বিভিন্ন কার্যক্রম থাকবে এ প্রকল্পের অধীনে।

মহানন্দা নদীর নাব্যতা ধরে রাখতে রাবার ড্যাম নির্মাণ প্রকল্পটি প্রক্রিয়াকরণ শুরু হয় ২০১৭ সালের জানুয়ারিতে। ২০১৮ সালের ১৬ই জানুয়ারি একনেক অর্থাৎ জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটিতে পাস হয়। এজন্য ১৫৫ কোটি ৪৬ লাখ ৩৫ হাজার ১৯৫ টাকা প্রাক্কলন ব্যয় ধরা হয়। পরিকল্পনা কমিশনের কৃষি, পানিসম্পদ ও পল্লী প্রতিষ্ঠান বিভাগের সেচ উইংয়ের সংশ্লিষ্ট সিদ্ধান্ত অনুসারে এ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হবে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড জানায়, ৩৯৫ মিটার দীর্ঘ রাবার ড্যামটি নির্মাণ সম্পন্ন হলে পুরো মৌসুমে মহানন্দায় ৭০ কিমি জুড়ে পানি সংরক্ষণ করা যাবে সেইসাথে বিস্তীর্ণ বরেন্দ্র অঞ্চলে অধিকতর সেচ সুবিধা নিশ্চিত করা যাবে। আর এতে এ অঞ্চলে ফসল উৎপাদন দ্বিগুণ হবে এবং কৃষিতে আসবে বৈপ্লবিক পরিবর্তন।

এছাড়া মহানন্দা নদী খননের ফলে নদীর গভীরতার পাশাপাশি বাড়বে নাব্য ও পানি। এতে মৎস্য প্রজনন ও আহরণের আরও সুযোগ সৃষ্টি হবে। বদলে যাবে এই অঞ্চলের অর্থনৈতিক দৃশ্যপট। পানি উন্নয়ন বোর্ড চাঁপাইনবাবগঞ্জের নির্বাহী প্রকৌশলী সারোয়ার জাহান সুজন জানান, শুষ্ক মৌসুমে মহানন্দায় পানি হ্রাস পাওয়ায় ভূগর্ভস্থ পানির স্তরও নেমে যায়।

ফলে গভীর নলক‚প দ্বারা সেচ কাজ ব্যয়বহুল হয়ে পড়ে। রাবার ড্যাম নির্মাণ সম্পন্ন হলে সারা বছর পানি থাকবে এবং সেচ সুবিধা নিশ্চিত হবে চাষীদের। সেইসাথে কম খরচে কৃষকরা বিভিন্ন ধরনের কৃষি জাতীয় পণ্য উৎপাদন করতে পারবে। রাবার ড্যাম প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে কৃষিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে।

এ প্রকল্পটি এলাকার মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে অনন্য ভূমিকা রাখবে। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম বলেন, এ জেলার অর্থনীতি কৃষির উপর নির্ভরশীল। রাবার ড্যাম কৃষি উপযোগী একটি প্রকল্প। এটি বাস্তবায়ন হলে চাষীদের সেচ সুবিধায় কোন অসুবিধা হবে না, বরং বাড়বে ফসল ও মাছের উৎপাদন।

এর ফলে এ জেলার অর্থনীতির চাকা আরো গতিশীল হবে। এছাড়া এলাকার মানুষের অর্থনৈতিক জীবন ধারা পাল্টে যাবে, যেটি কৃষকদের জন্য সবচেয়ে মঙ্গলজনক। উল্লেখ্য, ২০১১ সালের ১১ মে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চাঁপাইনবাবগঞ্জ সফরে এসে কলেজ মাঠে বিশাল জনসভায় স্থানীয়দের দাবীর প্রেক্ষিতে মহানন্দা নদীতে রাবার ড্যাম নির্মাণের ঘোষণা দেন।

সে অনুযায়ী প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে ব্যবস্থা নিতে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডকে নির্দেশনা দেয়া হয়।