মহামারিতে ইউরোপে বেড়েছে শিশু নির্যাতন ও বর্ণবাদ

আপডেট: জুন ১০, ২০২১, ৯:০৪ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক:


করোনাভাইরাস মহামারি ইউরোপের মানবাধিকার পরিস্থিতিতে ব্যাপক নেতিবাচক প্রভাব তৈরি করেছে। মানবাধিকার লঙ্ঘনের পাশাপাশি বেড়েছে বর্ণবাদ ও শিশু নির্যাতন। ইউরোপীয় ইউনিয়নের মৌলিক অধিকার বিষয়ক সংস্থা (এফআরএ) বৃহস্পতিবার তাদের বার্ষিক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।
ভিয়েনাভিত্তিক সংস্থাটির পক্ষ থেকে বলা হয়, ‘মহামারি এবং এর ফলাফল বর্তমান চ্যালেঞ্জগুলোকে আরও কঠিন করে তুলেছে। জীবনের সকল ক্ষেত্রে বৈষম্য বেড়েছে, বিশেষ করে দুর্বলেরা এতে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।’
এতে আরও বলা হয়, ‘এটি (মহামারি) বর্ণবাদী ঘটনা ব্যাপকমাত্রায় বাড়িয়েছে।’
প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রান্তিক বিভিন্ন গোষ্ঠী যেমন রোমা, উদ্বাস্তু ও অভিবাসীরা শুধু করোনায় আক্রান্ত হওয়ার অতি ঝুঁকির মধ্যেই বসবাস করছেন না, এমনকি কঠোর লকডাউনের কারণে তারা কাজও হারিয়েছেন।
এর পাশাপাশি বর্ণবাদী ও জাতিগত বিদ্বেষের সবচেয়ে বড় শিকারও হয়েছেন তারা। এর মধ্যে রয়েছে মৌখিক অপমান, হয়রানি, শারীরিক হামলা এবং অনলাইনে হেইট স্পিচ।
২০২০ সালে পারিবারিক সহিংসতা ও যৌন নিপীড়নের ঘটনাও বৃদ্ধি পেয়েছে।
চেক রিপাবলিক ও জার্মানির সূত্র উল্লেখ করে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত বছরের মার্চ ও জুনে চেক রিপাবলিকে পারিবারিক সহিংসতার জরুরি নম্বরে কল ৫০ শতাংশ ও জার্মানিতে ২০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে।
ইউরোপীয় ইউনিয়নের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ইউরোপোলের বরাত দিয়ে এফআরএ জানায়, গত বছর শিশুদের ওপর যৌন নিপীড়নও বেড়েছে।
এই প্রতিবেদনে ইউরোপীয় ইউনিয়নের ২৭টি সদস্যরাষ্ট্রে গবেষণা চালানো হয়েছে।
তথ্যসূত্র: জাগোনিউজ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ