মাছের ড্রাম থেকে বেরিয়ে এলেন ১০ যাত্রী

আপডেট: জুলাই ২৩, ২০২১, ৮:১০ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক:


করোনাভাইরাস সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে সারাদেশে চলছে ১৪ দিনের কঠোর লাকডাউন। প্রথম দিন (শুক্রবার) সকাল থেকে রাস্তায় জরুরি সেবায় নিয়োজিত পরিবহন ছাড়া অন্য কোনো যানবাহন চলাচল করতে দেখা যায়নি। মহাসড়কে মানুষের চলাচল ছিল না বললেই চলে। এদিন ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে দেখা গেছে চেকপোস্ট।
কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে গাজীপুরে সেনাবাহিনী, বিজিবি, র‌্যাব ও পুলিশের টহল ছিল চোখে পড়ার মতো। এছাড়াও রয়েছে জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত।
এমনই কড়াকড়ির মধ্যে দুপুরবেলা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর চোখ এড়িয়ে একটি ট্রাকে মাছের ড্রামের ভেতরে চেপে ঢাকা থেকে ময়মনসিংহের বাড়ি ফিরছিলেন ১০ যাত্রী। গাজীপুর সিটি করপোরেশনের টঙ্গী থেকে চান্দনা চৌরাস্তা পর্যন্ত বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ চেকপোস্ট পার হতে পারলেও রাজেন্দ্রপুরে এসে ধরা পড়ে যান তারা। ওই পয়েন্টে দায়িত্বরত ট্রাফিক পুলিশের সন্দেহ হলে ট্রাকটিকে তল্লাশি করে মাছের ড্রামে লুকিয়ে থাকা যাত্রীদের বের করে আনা হয়। পরে তাদের ছেড়ে দেয়া হলেও ট্রাকচালকের বিরুদ্ধে প্রচলিত আইনে মামলা দায়ের করা হয়।
এ বিষয়ে গাজীপুর মেট্রোপলিটন ট্রাফিক পুলিশের এসি (উত্তর) মেহেদী হাসান জানান, লকাডাউন বাস্তবায়নে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের রাজেন্দ্রপুর চৌরাস্তায় চেকপোস্ট বসিয়ে বিভিন্ন গাড়িতে তল্লাশি চালানো হচ্ছিল। এমন সময় ঢাকা থেকে ময়মনসিংহগামী একটি মাছের ট্রাক সন্দেহ হলে থামিয়ে তল্লাশি করা হয়। এ সময় ওই ট্রাকে মাছের ড্রামের ভেতর থেকে ১০ জন যাত্রীকে বের করে আনা হয়। পরে ড্রামের ভেতর থেকে যাত্রীদের নামিয়ে ছেড়ে দেয়া হলেও চালকের বিরুদ্ধে প্রচলিত আইনে ব্যবস্থা নিয়ে ট্রাকটিকে আটক করা হয়েছে।
তথ্যসূত্র: জাগোনিউজ