মাত্র ১৪ বছর বয়সে অনুর্ধ-১৫ মেয়ে ভলিবলে দেশসেরা বীথি

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ১০, ২০২৪, ১:৩১ অপরাহ্ণ


শাহীন রহমান, পাবনা :মাত্র ১৪ বছর বয়সে অনুর্ধ-১৫ মেয়ে ভলিবলে দেশসেরা হয়ে চমক দেখালেন পাবনার মেয়ে মোর্শেদা খাতুন বীথি। তবে তাঁর এ অর্জন অতটা সহজ ছিল না। দরিদ্র পরিবারের সন্তান হওয়ায় তাকে পার করতে হয়েছে নানা প্রতিবন্ধকতা। প্রতিবেশিদের কটূকথা, আর সব বাধা পেরিয়ে এখন সে সবার গৌরব আর অহংকারের। মাত্র দুই বছরে বাবা-মায়ের ‘ভাঙা ঘরে চাঁদের আলো’ হয়ে উঠেছেন বীথি।

পাবনা পৌর সদরের রাধানগর বাগানপাড়ার দম্পতি আজিজুর রহমান ও বুলবুলি খাতুনের একমাত্র সন্তান মোর্শেদা খাতুন বীথি। নৈশপ্রহরীর চাকরি করে কোনোমতে সংসার চালান আজিজুর রহমান। পাবনা আদর্শ গার্লস হাইস্কুলের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী বীথি।
জানা গেছে, গত জানুয়ারির শেষ সপ্তাহে ঢাকায় বাংলাদেশ মহিলা ক্রীড়া সংস্থা আয়োজিত অনুর্ধ-১৫ আন্তঃবিভাগীয় মেয়ে ভলিবল প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয় পাবনা জেলা। আর দেশসেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হয় বীথি।

বৃহস্পতিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে তাদের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, তাদের মাথা গোঁজার ঠাঁইটুকুর অবস্থা বেহাল। দীর্ঘদিনের পুরোনো একটি আধাপাকা ভাঙাচোরা ঘর এবং একটি ভাঙা টিনের ঘর। এখান থেকেই উঠে এসেছেন দেশসেরা ভলিবল খেলোয়াড় বীথি।
বীথির মা বুলবুলি খাতুন বলেন, ‘সংসার জীবনে পর পর দু’টি ছেলে সন্তানের জন্ম হলেও অল্পবয়সেই মৃত্যু হয় তাদের। তারপর তাদের কোল আলো করে আসে মোর্শেদা খাতুন বীথি। ছোট থেকেই খেলাধুলায় তার আগ্রহ ছিল। কিন্তু দারিদ্রের কারণে লেখাপড়া চালানোই দায়, সেখানে খেলোয়াড় হওয়ার স্বপ্ন অনেকটাই দুরাশা ছিল।’

তিনি বলেন, ‘মেয়ে হয়ে এই খেলার জন্য প্রতিবেশিরা অনেক কথা শুনিয়েছেন। খুবই কষ্ট পেতাম। মেয়েটা মনমরা হয়ে বসে থাকতো। কিন্তু আমরা দমে যাইনি। মেয়েকে সাহস দিয়েছি। আজ আমাদের মেয়ে এতো বড় সাফল্য অর্জন করেছে ভাবতেই পারছি না।’

বাবা আজিজুর রহমান জানান, ‘ নাইটগার্ডের সামান্য বেতনে সংসার চালাবো না মেয়েকে লেখাপড়া ও খেলাধুলা শেখাবো এ নিয়ে খুব দুশ্চিন্তায় থাকতে হয়। প্রথমদিকে আমি ওকে খেলাধুলায় নিষেধ করেছিলাম। কিন্তু মেয়েটা শোনেনি। পরে দেখলাম যে মেয়েটা খেলতে ভালবাসে। তখন আর তাকে থামাইনি। উৎসাহ দিয়েছি। আশা করি ভবিষ্যতে আমার মেয়ে দেশের মুখ উজ্জল করবে।’

মোর্শেদা খাতুন বীথি বলেন, ‘তিন বছর আগে থেকে আমি অ্যাথলেটিকস খেলা শুরু করি। তখন পাবনা জেলার হয়ে রাজশাহীতে গিয়ে অ্যাথলেটিকসে নৈপুণ্য দেখাই। আমাকে নজরে পড়ে মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক হোসনে আরা খাতুনের। সেখান থেকে দু’বছর আগে আমাকে যুক্ত করা হয় পাবনা জেলা মহিলা ভলিবল দলে।’

ভবিষ্যত পরিকল্পনা ও স্বপ্ন সম্পর্কে বীথি জানায়, ‘অনেকে খারাপ কথা বলেছে আমার খেলা নিয়ে। কিন্তু এখন সবাই খুশি। আমি কখনো ভাবতে পারিনি, এত কম সময়ে দেশসেরা খেলোয়া হবো। এখন আমার স্বপ্ন বাবা-মায়ের তো ছেলে নেই। আমি মেয়ে হয়ে তাদের সেই স্বপ্ন পূরণ করতে চাই। একটা সরকারি চাকুরী করে বাবা-মায়ের পাশে দাঁড়াতে চাই, তাদের দু:খ দূর করতে চাই। আমার দেশের হয়ে খেলে যেতে চাই।’

পাবনা জেলা মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক হোসেনে আরা খাতুন হাওয়া বলেন, ‘বীথির মধ্যে প্রতিভা আছে। তার শারীরিক গঠন, খেলার স্টাইল দেখে মনে হয়েছে সে ভলিবলে ভাল করবে। সেখান থেকেই তাকে অনুর্ধ-১৫ পাবনা জেলা মহিলা ভলিবলে নিয়ে আসা। তাকে যেমন প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে সে ঠিক সেভাবেই ভাল করেছে। এখন আমাদের খুব গর্ব হচ্ছে। আশা করি আগামীতে বাংলাদেশের হয়ে দেশের জন্য সুনাম বয়ে আনবে বীথি।’

পাবনার জেলা প্রশাসক মু. আসাদুজ্জামান বলেন, ‘বীথি ও তার পরিবারের খবর জানার পর আমরা তাদের নগদ আর্থিক সহায়তা দিয়েছে। বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর নজরে আসার পর তার নির্দেশে আমরা ইতিমধ্যে বীথির বাড়ি পরিদর্শণ করেছি। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে তাদের একটি বসবাসের মতো একটি বাড়ি করে দেয়া হবে। সেইসাথে বীথির লেখাপড়ার সব খরচ জেলা প্রশাসন বহন করবে। তাদের যেকোনো প্রয়োজনে জেলা প্রশাসন তাদের পাশে থাকবে।’