মাদক ব্যবসা ছেড়ে দেয়া অহঙ্কারের : এসপি || পবায় ১১৯ মাদক ব্যবসায়ীর আত্মসমর্পণ

আপডেট: মার্চ ৫, ২০১৭, ১:১৯ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


মাদক ব্যবসা পরিত্যাগকারীদের উদ্দেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাজশাহীর পুলিশ সুপার (এসপি) মোয়াজ্জেম হোসেন ভুইয়া বলেছেন, ‘মাদক ব্যবসা ছেড়ে দেয়ার ঘোষণা দেয়াটা লজ্জার না। এটা অহঙ্কারের। এখন থেকে এই ১১৯ ব্যক্তি সমাজে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবেন। সৎপথে জীবিকা নির্বাহ করবেন। আমরা তাদের সাধুবাদ জানাই। আরও যারা মাদক ব্যবসা ছাড়তে চান, তাদের স্বাগত জানাই।’
গতকাল শনিবার বিকেলে জেলার পবা উপজেলার বিভিন্ন এলাকার মাদক ব্যবসায়ীদের ফুল দিয়ে আর মুখে মিষ্টি তুলে দিয়ে বরণ করে নেন এসপি মোয়াজ্জেম হোসেন ভুইয়া। এরপর মাদক ব্যবসায়ীদের শপথবাক্য পাঠ করান তিনি। মাদক ব্যবসায়ীরা শপথ নেন তারা আর কখনই মাদক ব্যবসায় জড়াবেন না। পবার হরিপুর মোড় সংলগ্ন একটি মাঠে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, রাজশাহীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুমিত চৌধুরী, সদর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার আহমদ আলী, পবার হুজরিপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আক্তার ফারুক ও হরিপুর ইউপি চেয়ারম্যান বজলে রেজবী আল হাসান মুঞ্জিল। সভাপতিত্ব করেন, পবা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) পরিমল কুমার চক্রবর্তী।
উপজেলার খোলাবোনা গ্রামের বদিউজ্জামানের ছেলে মিলন হোসেনের (৩০) নামে অন্তত ডজনখানে মাদকের মামলা আছে। অনুষ্ঠানে মাদক ব্যবসা পরিত্যাগকারীদের পক্ষ থেকে তিনিও বক্তব্য দেন। বলেন, ‘আগে আমি ড্যালের (ফেন্সিডিল) ব্যবসা করতুক। বাবার (ইয়াবা) ব্যবসা করতুক। আইজ থাক্যা সব ছেড়্যা দিনু। মামলায় যা হবে, হবে। আমি আর ব্যবসা করবো না। আর যারা করেন, তারাও করবেন না। না হলে বিপদে পড়বেন।’
পবার হরিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বজলে রেজবি আল হাসান মুঞ্জিলের উদ্যোগে মাদক ব্যবসায়ীদের এই প্রত্যাবর্তন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এটি বাস্তবায়ন করে পবা থানা পুলিশ। মাদক ব্যবসা পরিত্যাগের জন্য মাদক ব্যবসায়ীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে তাদের উদ্বুদ্ধ করেন পবা থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) উজ্জ্বল মিঞা।