মানসিক প্রস্তুতি গুরুত্বপূর্ণ : মাশরাফি

আপডেট: এপ্রিল ২৬, ২০১৭, ১২:৪১ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক



আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশিয় সিরিজ খেলে চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে অংশ নেবে বাংলাদেশ। ওয়ানডের দ্বিতীয় সেরা টুর্নামেন্টের ‘এ’ গ্রুপে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ স্বাগতিক ইংল্যান্ড, নিউজিল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়া। ১ জুন ওভালে প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী ম্যাচে বাংলাদেশ খেলবে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে। একই মাঠে ৫ জুন অস্ট্রেলিয়া ও কার্ডিফে ৯ জুন নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে টাইগারদের লড়াই।
চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে বাংলাদেশের তিন প্রতিপক্ষই শক্তিশালী। এই টুর্নামেন্টের জন্য অধিনায়ক মাশরাফি মুর্তজা মানসিক প্রস্তুতির ওপর জোর দিচ্ছেন। মঙ্গলবার মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেছেন, ‘খুব কঠিন সফর হতে যাচ্ছে। তিন প্রতিপক্ষের দিকে তাকালেই তা বোঝা যাবে। চ্যাম্পিয়নস ট্রফি এত সহজ হবে না।’
তবে আত্মবিশ্বাসের অভাব নেই মাশরাফির কণ্ঠে। ইংল্যান্ডের মাটিতে অতীত সাফল্যের কথা তুলে ধরে তার মন্তব্য, ‘সামনে কী হবে, বলা যায় না। তবে ওই কন্ডিশনে আমরা ইংল্যান্ডকে ২০১০ সালে হারিয়েছি, অস্ট্রেলিয়াকে ২০০৫ সালে হারিয়েছি। যদিও সে সব ইতিহাস, তবে আমার কাছে মনে হয় এবার সাফল্য পাওয়া সম্ভব।’ সাফল্যের জন্য মানসিক প্রস্তুতির ওপর গুরুত্ব দিচ্ছেন তিনি, ‘আমরা কিভাবে মানসিক প্রস্তুতি নেব, সেটার ওপর অনেক কিছু নির্ভর করছে। আমরা মানসিকভাবে প্রস্তুত হতে না পারলে ২০-২৫ দিনের প্রস্তুতি ক্যাম্প কিংবা ত্রিদেশীয় সিরিজ কোনও কাজেই আসবে না।’
২০১৫ ওয়ানডে বিশ্বকাপ শুরু হওয়ার আগে মেলবোর্নে দুই সপ্তাহের অনুশীলন ক্যাম্প করেছিল টাইগাররা। এবার ১০ দিনের ক্যাম্প হবে সাসেক্সে। চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে কেমন সুযোগ দেখছেন প্রশ্নে মাশরাফি বলেছেন, ‘প্রস্তুতি ম্যাচে জেতা বড় ব্যাপার নয়। আসল বিষয় হলো মানসিকভাবে প্রস্তুত হওয়া। আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি, প্রস্তুতি ম্যাচে রান বা উইকেট না আসলে না আসুক। একজন খেলোয়াড় বিষয়টি কিভাবে নিয়েছে, সেটাই বড় কথা।’
বাংলাদেশ দলের দুর্বলতা নিয়ে মাশরাফির বিশ্লেষণ, ‘শ্রীলঙ্কায় ওয়ানডে সিরিজের আগে প্রস্তুতি ম্যাচে সাড়ে তিনশ রানের লক্ষ্য তাড়া করে আমরা প্রায় জিতেই যাচ্ছিলাম। অথচ শেষ ওয়ানডেতে একই ধরনের উইকেটে ২৮০ রান তাড়া করতে নেমে লক্ষ্যের ধারেকাছেও যেতে পারিনি। সেদিন শুরুতে উইকেট হারিয়েছিলাম। কিছু জায়গায় আমাদের আরও দৃঢ় হতে হবে, ঠিকমতো বিশ্লেষণ করতে হবে, খেলাটা ঠিকমতো পড়তে হবে।’
তিনি আরো যোগ করে বলেছেন, ‘ইংল্যান্ডে আগে ব্যাট করলে আমাদের ২৮০ থেকে ২৯০ রান করতে হবে কিংবা চেজ করতে হবে। ভালোভাবে শুরুর পর নিজেকে সামলানো, এভাবে মানসিক প্রস্তুতি নিলে কাজটা হয়তো সহজ হবে।’
চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে কঠিন গ্রুপে পড়লেও ভালো করার স্বপ্ন মাশরাফির চোখে, ‘ওদের হারানো খুব কঠিন, তবে অসম্ভব নয়। ভালো খেলতে পারলে সব কিছুই সম্ভব। সত্যি কথা বলতে, আমরা এমন একটা গ্রুপে পড়েছি যে আগে থেকে বলা কঠিন কত দূর যেতে পারব বা কী করব।’
সতীর্থদের মানসিকভাবে প্রস্তুত হওয়ার আহ্বান জানিয়ে মাশরাফির মন্তব্য, ‘পুরো দলের উচিত, মানসিকভাবে যতটা সম্ভব দ্রুত প্রস্তুত হওয়া। এখানে মানসিক যুদ্ধ অনেক গুরুত্বপূর্ণ। বড় বড় দলের বিপক্ষে তাদের পরিচিত কন্ডিশনে খেলা সহজ হবে না। ওদের চেয়ে আমাদের দুই গুণ বেশি কষ্ট হবে। বিশেষ করে কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিতে।’
দীর্ঘ সফরের শেষ দিকে ক্রিকেটারদের মধ্যে কিছুটা অবসাদ দেখা দেয়, যা স্পষ্ট ফুটে ওঠে ফিল্ডিংয়ে। অতীতে এমন কয়েকবার দেখা গেছে। এবার প্রায় দেড় মাসের সফরে যাচ্ছে টাইগাররা। মাশরাফি তাই আগে থেকেই সতর্ক, ‘ইতিহাস বলে, সফরের শেষ দিকে আমাদের অবসাদ পেয়ে বসে। তবে আমার মনে হয়, আয়ারল্যান্ডে সফরের শুরুর দিকে জয় পেলে ক্লান্তি কাছে ঘেঁষতে পারবে না।’ দলের একতাকেও গুরুত্ব দিচ্ছেন বাংলাদেশের ক্রিকেটকে বদলে দেওয়া ‘নড়াইল এক্সপ্রেস’, ‘এক সঙ্গে ১৭-১৮ জন থাকবে, তাদের ঐক্যবদ্ধ থাকা খুব গুরুত্বপূর্ণ। যাদের খারাপ সময় যাবে, তাদের আগলে রাখাও জরুরি।’-বাংলা ট্রিবিউন