মান্দায় বাঁধ কেটে ধান নষ্ট, ভূমিহীনদের মানববন্ধন

আপডেট: জানুয়ারি ১৫, ২০২২, ৯:১৬ অপরাহ্ণ


মান্দা প্রতিনিধি:


নওগাঁর মান্দায় বাঁধ কেটে তলিয়ে দিয়ে শতাধিক বিঘা জমির বোরো ধান নষ্ট করার অভিযোগ উঠেছে প্রভাবশালী দুই ব্যক্তির বিরুদ্ধে। এসময় ধানচাষের দুইটি পাওয়ার টিলার ও ২০টি শ্যালো মেশিন পুড়িয়ে দেন প্রভাবশালীদের ভাড়াটিয়া বাহিনী। এর প্রতিবাদে শনিবার দুপুরে পাকুড়িয়া শহীদ বাজারে বধ্যভূমির সামনে মানববন্ধন ও সমাবেশ করেছেন ভূমিহীন পরিবারের সদস্যরা।

মানববন্ধন চলাকালে বক্তব্য দেন, পাকুড়িয়া-কালিসভা ভূমিহীন সমিতির সভাপতি দানেছ আলী প্রামানিক, সাধারণ সম্পাদক হাফিজুর রহমান, মমতাজ উদ্দিন, মোবারক হোসেন, নাসির উদ্দিন, রুবিনা বিবি প্রমুখ।

পাকুড়িয়া ভূমিহীন সমিতির সভাপতি দানেছ আলী প্রামানিক বলেন, বিলউথরাইল জলমহালের ৯৩৩ একর খাস জমির মধ্যে শতাধিক বিঘা পাকুড়িয়া ও কালিসফা গ্রামের ভূমিহীন ৮০ পরিবার দীর্ঘদিন ধরে ভোগদখল করে আসছেন। বর্ষা মৌসুমে বিলে মাছ শিকার করেন মৎসজীবী ও ভূমিহীন পরিবারের লোকজন। শুষ্ক মৌসুমে ওই খাস সম্পত্তিতে বোরো ধানের চাষ করেন তাঁরা।

তিনি আরও বলেন, ওই সম্পত্তি দখল নিতে দীর্ঘদিন ধরে পাঁয়তারা করে আসছিলেন পাকুড়িয়া গ্রামের আতাউর রহমান ও ফারুক আহমেদ। গত শুক্রবার জুমার নামাজের সময় আতাউর ও ফারুকের নেতৃত্বে শতাধিক ভাড়াটিয়া বাহিনী বাঁধ কেটে দিয়ে ভূমিহীনদের রোপণকৃত বোরো ধান তলিয়ে দেন। এতে ব্যক্তিমালিকানারও অন্তত ২০ বিঘা জমির ধান তলিয়ে গেছে। প্রভাবশালীদের ভাড়াটিয়া বাহিনী এসময় হালচাষে ব্যবহৃত দুইটি পাওয়ার টিলার ও পানি সেচের ২০টি শ্যালোমেশিন পুড়িয়ে দেয়।
সমিতির সাধারণ সম্পাদক হাফিজুর রহমান বলেন, ভূমিহীনদের এসব জমি দখল নিতে দীর্ঘদিন ধরে পাঁয়তারা করছেন ভূমিদস্যু আতাউর রহমান ও ফারুক আহমেদ। এসব জমি চাষ করতে তাঁদের কাছ থেকে চাঁদাও দাবি করেন ভূমিদস্যুরা। চাঁদা না দেওয়ার ভূমিদস্যুরা সরকারি সম্পত্তি থেকে তাঁদের উচ্ছেদের চক্রান্ত করে।

ভূমিহীন মমতাজ হোসেন বলেন, খাস সম্পত্তির দখল নিতে শুক্রবার রাতে ভূমিদস্যু ফারুক আহমেদ বাদি হয়ে ভূমিহীন পরিবারের লোকজনের বিরুদ্ধে মান্দা থানায় একটি সাজানো মামলা দিয়েছে। মামলার পর আসামি ধরার নামে ওই রাতেই পুলিশ ভূমিহীনদের বাড়িতে তান্ডব চালিয়ে দরজা ভাঙচুর ও আসবাবপত্র তছনছ করে।
এ বিষয়ে জানতে অভিযুক্ত ফারুক আহমেদের মোবাইলফোনে বারবার কল দেওয়া হলেও তা রিসিভ না হওয়ায় তাঁর বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

মান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহিনুর রহমান বলেন, বিলউথরাইল বিলে মারপিটের ঘটনায় ফারুক আহমেদ বাদি হয়ে একটি মামলা করেছেন। ওই মামলার আসামি গ্রেপ্তারে শুক্রবার রাতে অভিযান দেওয়া হয়েছিল। ওসি আরও বলেন, ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের লোকজনও মামলা করতে পারেন।