মাস্ক পরতে বলায় গুলি করে হত্যা

আপডেট: সেপ্টেম্বর ২১, ২০২১, ৯:০৬ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক:


মাস্ক পরতে বলার পরিণতি হলো মৃত্যু। জার্মানিতে পেট্রল স্টেশনের এক কর্মী এক গ্রাহককে মাস্ক পরতে বলায় তাকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। এই ঘটনায় ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে। বিয়ার কিনতে আসা এক ক্রেতাকে মাস্ক পরতে বলেছিলেন ২০ বছর বয়সী ওই কর্মী। এতে ওই ক্রেতা ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন এবং ওই কর্মীকে গুলি করেন।

পশ্চিমাঞ্চলীয় ইডার-ওবারস্টেইন শহরে শনিবার সন্ধ্যায় ওই হত্যাকা-ের ঘটনা ঘটলেও তা সম্প্রতি প্রকাশ্যে এসেছে। ধারণা করা হচ্ছে দেশটিতে সরকারি বিধি-নিষেধ লঙ্ঘনের এটাই প্রথম ঘটনা।

নিহত ওই বিক্রেতা একজন শিক্ষার্থী ছিলেন। তিনি ক্রেতাকে ফেস মাস্ক পরে সেবা নিতে বলেন। জার্মানির সব দোকানেই মাস্ক পরে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছে প্রশাসন। কিন্তু সরকারি নিয়ম অমান্য করে মাস্ক না পরেই দোকানে গিয়েছিলেন ওই ক্রেতা। এরপর এ নিয়ে বিক্রেতার সঙ্গে রাগারাগির এক পর্যায়ে তিনি দোকান থেকে বেরিয়ে যান।

পরে ওই ক্রেতা মাস্ক পরে ঘণ্টাখানেক পর আবারও ফিরে আসেন। তিনি ছয় প্যাক বিয়ার নেন এবং মাস্ক খুলে আবারও ঝামেলা শুরু করেন। প্রসিকিউটর কাই ফুরমান সাংবাদিকদের বলেন, অপরাধী একটি রিভলবার বের করে সরাসরি বিক্রেতার মাথায় গুলি করেন।
এই ঘটনার পর ৪৯ বছর বয়সী ওই জার্মান নাগরিক নিজেই পুলিশ স্টেশনে যান। তাকে গ্রেফতার করা হয় এবং তিনি হত্যাকান্ডের কথা স্বীকার করেছেন।

তিনি পুলিশকে জানান, করোনাভাইরাসের কারণে বিধি-নিষেধে তিনি কোণঠাসা হয়ে পড়েছেন। ক্রমাগত তার অধিকার লঙ্ঘন হচ্ছে বলে তার মনে হয়েছে। এতসব বিধি-নিষেধে তিনি বেশ বিরক্ত হয়ে পড়েছেন এবং এতে তার কোনো উপায় ছিল না।
ইডার-ওবারস্টেইনের মেয়র ফ্রাঙ্ক ফ্রুয়েহাফ এই ঘটনাকে ভয়ঙ্কর কাজ বলে উল্লেখ করেছেন। অপরদিকে, ওই শহরের বাসিন্দারা ফুল এবং মোমবাতি নিয়ে পেট্রল স্টেশনের বাইরে জড়ো হন।

করোনা মহামারি শুরর পর থেকে এ পর্যন্ত বেশ কয়েকবার মাস্কবিরোধী বিক্ষোভে রাস্তায় নামেন বিক্ষোভকারীরা। বেশ কিছু বিক্ষোভে কয়েক হাজার মানুষকে অংশ নিতে দেখা গেছে।
তথ্যসূত্র: জাগোনিউজ

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ