মায়ামারে সেনা অভুত্থান রোহিঙ্গা ইস্যুতে চাপ রাখতেই হবে

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ৫, ২০২১, ১২:১৯ পূর্বাহ্ণ

মায়ানমারে রাতারাতি সেনা অভ্যুত্থানে স্তম্ভিত গোটা বিশ্ব। প্রথম ফেব্রুয়ারিতে এই ঘটনা ঘটো গেল। ঘটনা অবাক করার মত হলেও মিয়ামারের জনসাধারণের জন্য এটা নতুন কিছু নেই। সেনাবাহিনীই দেশটির নিয়ামক শক্তি। এই শক্তির বাইরে গিয়ে সিভিল সরকারের কোনো সিদ্ধান্ত নেয়ার সুযোগ নেই। দেশটির সংবিধানই সে বৈধতা সেনাবাহিনীকে দিয়েছে। দেশটির গণতান্ত্রিক নেতা অং সান সুচি দেশের শাসন ভার গ্রহণ করলেও সেটা সেনাবাহিনীর পুতুল সরকার হিসেবেই পরিগণিত হচ্ছিল।
কেন গণতন্ত্রের বদলে ফের সেনা শাসনের পথে হাঁটল এই দেশটি? এ প্রশ্নের উত্তর মায়ানমারের সেনা প্রধান জেনারেল মিন আঙ হ্লাইং স্বয়ং দিয়েছেন। তার কথায় দেশকে বাঁচাতে সেনা অভ্যুত্থান অনিবার্য ছিল। নির্বাচিত গণতান্ত্রিক সরকার দেশের মানুষের অভিযোগ মেটাতে পারছিল না। ভোট প্রক্রিয়ায় গলদ নিয়ে মানুষের অভিযোগ ছিল। কিন্তু তার সদুত্তর সরকারের কাছে ছিল না। তিনি আরও জানিয়েছেন, “দেশের শাসনভার যাতে সেনা নিজের হাতে নেয় তার জন্য অনেকে অনুরোধ করছিলেন। এরপর আমাদের কাছে আর কোনও উপায় ছিল না। তাই আইন মেনেই মায়ানমারে সেনা অভ্যুত্থান ঘটানো হল।”
এতো সামরিক সরকারের বাহানা মাত্র। দেশটির সেনাবাহিনীর উদ্দেশ্যই হল কোনোভাবেই রাজনৈতিক দলকে সাংগঠনিক ভিত্তির দাঁড়াতে দিবে না। এটা নানা কৌশলেই তারা করে থাকে।
মায়ানমারে সেনা অভ্যুত্থানের পর বাংলাদেশে রোহিঙ্গা শরণার্থী সমস্যার সমাধানের বিষয়টি অনেকটাই অনিশ্চিত হয়ে পড়লো। একটা সম্ভাবনা জেগেছিল চিনের মধ্যস্থতায় সেটাও অনিশ্চিত হলো। ইতোমধ্যেই িিনের মধ্যস্থতায় চিন ও বাংলাদেশের সচিব পর্যায়ে মিটিং হয়েছে। ৪ ফেব্রুয়ারি আবারো বসার কথা ছিল। কিন্তু সামরিক অভ্যুত্থানের কারণে সেটা আর হতে পারলো না। কবে হবে তারও কোনো নিশ্চয়তা নাই। তবে বাংলাদেশের হাল ছেড়ে দেয়ারও কোনো সুযোগ নেই। এটাও ঠিক যে, মায়ানমারের সামরিক জান্তা মোটেও স্বস্তিতে নেই। বিশ্ব প্রতিত্রিয়া যা হচ্ছে- তাতে স্বস্তিতে থাকার কথাও নয়। সে ক্ষেত্রে সামরিক জান্তা গ্রহণযোগ্যতা ফেরাতে নিজেদের কিছু ভূমিকা রাখেতে পারে। সেখানে রোহিঙ্গা ইস্যুটা আসতেই পারে। এ ক্ষেত্রে কূটনৈতিক তৎপরতা অব্যাহত রাখতে হবে মিয়ানমার কে চাপ সৃষ্টি করতে হবে। এর মধ্য দিয়েই কোনো ধরনের সুযোগ সৃষ্টি হতে পারেÑ যা রোহিঙ্গাদের স্বদেশে ফেরৎ পাঠানোর ক্ষেত্রে সহায়ক হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ