মায়ের চিকিৎসা ভালো হবে ভেবেই ল্যা. নায়েক রোমানের আনন্দ

আপডেট: জানুয়ারি ২৯, ২০২০, ১২:৪২ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


২০১৯ সাল দু’হাত ভরে দিয়েছে রোমানা সানাকে। ঘরোয়া ও আন্তর্জাতিক মিলিয়ে খুলনার তরুণ জিতেছেন ১৪টি পদক। আর্চারিতে বাংলাদেশকে নিয়ে গেছেন অনেক উঁচুতে। এই বছরেই বিশ্ব আর্চারি চ্যাম্পিয়নশিপে ব্রোঞ্জ জিতে পেয়েছেন সরাসরি ২০২০ টোকিও অলিম্পিকে খেলার টিকিট। শুধু তা-ই নয়, বছরের শেষভাগে এসএ গেমসে সোনা জিতে বাংলাদেশের ক্রীড়াঙ্গনকে করেছেন আলোকিত। রোমানকে নতুন বছরও দিলো বড় প্রাপ্তির আলো। বাংলাদেশ আনসার ও ভিডিপির ল্যান্স নায়েক এখন তিনি।
২০১৪ সালে এই বাহিনীতে সৈনিক পদে যোগ দেওয়া রোমান পদোন্নতি পেয়েছেন। গতকাল (মঙ্গলবার) খিলগাঁওয়ের আনসার ও ভিডিপির সদর দফতরে রোমানকে ল্যান্স নায়েকের ব্যাজ পরিয়ে দেন সংস্থাটির মহাপরিচালক (ডিজি) মেজর জেনারেল কাজী শরীফ কায়কোবাদ। এই অর্জনের সঙ্গে এসএ গেমসে সাফল্যের পুরস্কার হিসেবে নগদ ১ লাখ ৮০ হাজার টাকা পুরস্কারও পেয়েছেন রোমান।
মধ্যবিত্ত পরিবার থেকে উঠে আসা রোমান এখন বাংলাদেশের ক্রীড়াঙ্গনের পরিচিত মুখ। তবে সংসারের নানা সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় প্রায়ই। মায়ের চিকিৎসার সঙ্গে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের চাহিদা তো রয়েছেই। তবে এখন পদোন্নতি পাওয়ায় বেতন বেড়েছে। তাই মায়ের চিকিৎসা আরও ভালোভাবে করতে পারবেন ভেবে তৃপ্তির ঝিলিক তার চোখেমুখে, ‘আমাদের মতো মধ্যবিত্ত পরিবারের জন্য এই প্রাইজমানি অনেক প্রেরণার। এখন আমি ল্যান্স নায়েক, পদোন্নতির ফলে এখন ভালো বেতন পাবো। এটা দিয়ে আমার মাকে আরও ভালো চিকিৎসা করাতে পারবো। তাছাড়া সংসারেও আগের চেয়ে বেশি সাহায্য করতে পারবো।’
নেপালে অনুষ্ঠিত এসএ গেমসে আনসার ও ভিডিপির ১৪৪ জন ক্রীড়াবিদ অংশ নিয়েছিল। যার মধ্যে একক ও দলগতে ৮ সোনা, ১৩ রুপা ও ৪৭ ব্রোঞ্জ পদক এসেছে। সংবর্ধনায় পদকজয়ীদের ৩৩ লাখ ২৫ হাজার টাকার প্রাইজমানি দেওয়া হয়েছে। একক ইভেন্টের সোনাজয়ীকে ১ লাখ, রুপাজয়ীকে ৭৫ হাজার ও ব্রোঞ্জ জয়ীকে দেওয়া হয়েছে ৫০ হাজার করে টাকা। এদের মধ্যে সর্বোচ্চ ১ লাখ ৮০ হাজার টাকা পেয়েছেন রোমান।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ