মিলছে না মাস্ক, করোনা ঠেকাতে মুখে অন্তর্বাস-লেবুর খোসা পরছেন চিনারা

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ১, ২০২০, ১২:১৮ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


চিনে কিছুতেই থামছে না মৃত্যুমিছিল। মারণ করোনা ভাইরাসের আক্রমণে এখন পর্যন্ত প্রাণ হারিয়েছেন ২১৩ জন। এই ভয়ানক রোগের সংক্রমণ ছড়িয়েছে ৯ হাজারেরও বেশি মানুষের মধ্যে। এহেন পরিস্থিতিতে ভাইরাস আটকাতে মাস্ক পরাটা বাধ্যতামূলক করা হলেও বাজারে অমিল বস্তুটি।
শেষ পাওয়া খবরের মতে, মারণ ভাইরাসের ভয়ে চিনের বেশ কয়েকটি শহরকে বাকি দেশের থেকে বিচ্ছিন্ন করে দেয়া হয়েছে। রাস্তাঘাটে মানুষ প্রায় নেই বললেই চলে। মুখে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। কিন্তু বাজারে পর্যাপ্ত সংখ্যায় মাস্কের জোগান নেই। ফলে ভাইরাস থেকে বাঁচতে অভিনব পন্থা নিয়েছেন চিনা নাগরিকরা। সহজলভ্য যে কোনও জিনিস মুখের মধ্যে সেঁটে কাজ চালাচ্ছেন ইউহান, সাংহাই-সহ চিনের নানা প্রদেশের বাসিন্দারা। সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করা ছবিগুলি থেকে দেখা যাচ্চে, কেউ বাতাবি লেবুর খোসা পরিস্কার করে, কায়দা করে মাস্ত বানিয়ে মুখ ঢাকা দিয়েছেন। কেউ কেউ আবার জলের বোতল, স্যানিটারি প্যাড ব্যবহার করেছেন। মারাত্মক ভাইরাস থেকে বাঁচাতে নারীদের মাস্ক হিসেবে মুখে অন্তর্বাস পড়তেও দেখা গিয়েছে।
চিনের হুবেই প্রদেশে প্রথম করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ দেখা যায়। সর্দি, কাশি, জ্বর এবং শ্বাসকষ্ট নিয়ে হাসপাতালে ভরতি হতে থাকেন একের পর এক মানুষ। ক্রমশ মহামারির আকার নিয়েছে করোনা ভাইরাস। এখনও পর্যন্ত মোট ২১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। আক্রান্তের সংখ্যা বৃহস্পতিবার পর্যন্ত বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯ হাজার ৬৯২ জন। হু’র দেয়া তথ্য অনুযায়ী, মোট ১৮টি দেশে ১০০ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO) জানিয়েছে, বিশ্বের যে ৩০টি দেশে করোনা ভাইরাস হানা দেয়ার আশঙ্কা সবচেয়ে বেশি, সে তালিকায় ভারতও রয়েছে। হু-এর সমীক্ষা বলছে, ঝুঁকির তালিকায় যে দেশগুলি রয়েছে, তার মধ্যে প্রথম নামটি হল থাইল্যান্ড। এরপরেই আছে জাপান এবং হংকং। আমেরিকা আছে ৬ নম্বরে, অস্ট্রেলিয়া ১০ নম্বরে, ইংল্যান্ড ১৭ নম্বরে এবং ভারত ২৩ নম্বরে।
তথ্যসূত্র: সংবাদ প্রতিদিন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ