মুচলেকায় ছাড় পেলেন ছয় কোচিং শিক্ষক জুয়া খেলার অভিযোগ

আপডেট: ডিসেম্বর ৫, ২০১৬, ১২:০৫ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলায় কোচিং সেন্টারে জুয়া খেলার অভিযোগে ৬ ‘শিক্ষককে’ আটক করে মুচলেকা আদায় করেছে পুলিশ। গতকাল রোববার রাত সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলা সদরের মোহনপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের পাশের ‘ক্রিয়েটিভ কোচিং হোম’ থেকে তাদের আটক করা হয়। তারা ওই কোচিং সেন্টারেরই শিক্ষক।
ওই ৬ শিক্ষক হলেন, উপজেলার ভাতুড়িয়া গ্রামের আবদুল ওহাবের ছেলে আবদুর রব (২৫), শফিকুল ইসলামের ছেলে রিপন আলী (২৩), আবুল হাসেমের ছেলে মেহেবুব হাসান (২৪), রেজাউল করিমের ছেলে তারেক হাসান (২০), বাকশিমইল গ্রামের ইয়াকুব আলীর ছেলে তোফাজ্জল হোসেন (২৪) ও বাগমারা উপজেলার মীর্জাপুর গ্রামের আলাউদ্দিনের ছেলে শিহাব পারভেজ (২২)।
মোহনপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মাসুদ পারভেজ জানান, এরা সবাই বিভিন্ন কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র। তারা একটি বাড়ি ভাড়া নিয়ে কোচিং ব্যবসা পরিচালনা করে আসছিলেন। সেখানে দিনের বেলায় তারা নিজেরাই শিক্ষকতা করেন। কোচিং সেন্টারটিতে ষষ্ঠ থেকে একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের পড়ানো হয়।
ওসি জানান, গত কয়েকদিন থেকে স্থানীয়রা অভিযোগ করছিলেন কোচিং শেষে রাতে শিক্ষকরা বহিরাগতদের নিয়ে সেখানে জুয়ার আসর বসান। অভিযোগের প্রেক্ষিতে রোববার রাতে সেখানে অভিযান চালানো হয়। এ সময় তাস খেলা অবস্থায় তাদের আটক করে থানায় আনা হয়। পরে মুচলেকা নিয়ে তাদের ছেড়ে দেয়া হয়। প্রথমবারের মতো তাদের সতর্ক করা হয়েছে বলেও জানান ওসি।
বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে ক্রিয়েটিভ কোচিং হোমের পরিচালক মোর্শেদুল আলম বলেন, ‘জুয়া নয়, কোচিং শেষে তারা (ওই শিক্ষকরা) তাস-টাস খেলতেন। তাই তাদের পুলিশ ধরে নিয়ে গিয়েছিল। তবে তাদের ছেড়ে দেয়া হয়েছে। এটি কোনো ‘ঘটনা’ না। এ নিয়ে খবরের কাগজে ‘নিউজ’ করারও কিছু নেই।’

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ