মুচলেকায় প্রধান শিক্ষকের মুক্তি || সরকারি নির্দেশ অমান্য করে স্কুলে বার্ষিক ভোজন

আপডেট: মার্চ ২০, ২০২০, ১২:৫৯ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


করোনাভাইরাসের ঝুঁকি এড়াতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বন্ধে সরকারি নির্দেশ অমান্য করে বার্ষিক ভোজনের আয়োজন করায় প্রধান শিক্ষককে আটক করে ভ্রাম্যমাণ আদালত। আটককৃত হলেন- রাজশাহীর শিরোইল কলোনী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নিরঞ্জন প্রামাণিক। পরে মুচলেকা দিয়ে মুক্তি পান ওই শিক্ষক।
গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর একটার দিকে নগরীর শিরোইল কলোনী উচ্চ বিদ্যালয়ে অভিযান পরিচালনা করেন, সহকারী কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট (ট্রেজারি শাখা) মো. আব্দুল মালেক। এসময় তিনি বার্ষিক ভোজন বন্ধ করে স্কুলে তালা ঝুলিয়ে দেয়ার নির্দেশ দেন।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বার্ষিক ভোজন উপলক্ষে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির মাঠে চান্দুয়া দিয়ে ঘেরা হয়। এছাড়া স্কুলের ভেতরে চলছে রান্নার কাজ। শিক্ষার্থীরা মাঠে হইহুল্লড় করছিল।
শিমলা নামের এক শিক্ষার্থী জানায়, ‘বার্ষিক ভোজনের জন্য তাদের থেকে সাড়ে ৩০০ করে চাঁদা নেয়া হয়েছি ভর্তির সময়। তার অংশ হিসেবে এই আয়োজন।’
করোনাভাইরাসের কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ তার পরেও আপনারা কেনো স্কুলে এসেছে, এমন কথার উত্তরে আরো কয়েকজন শিক্ষার্থী বলে, ক্লাসে অন্য স্যাররা (শিক্ষক) বলে পিকনিকে (বার্ষিক ভোজন) আসতে হবে। তাই আমরা এসেছি।
সহকারী কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মো. আব্দুল মালেক বলেন, স্কুল থেকে প্রধান শিক্ষক নিরঞ্জন প্রামাণিককে ডিসি অফিসে নিয়ে আনা হয়।
পরে রাজশাহী জেলা প্রশাসক হামিদুল হকের কাছে মুচলেকা দিয়ে তিনি মুক্তি পান। এসময় জেলা প্রশাসক প্রধান শিক্ষক নিরঞ্জন প্রামাণিককে এ ধরনের কাজ থেকে বিরত থাকতে বলেন।