মৃত্যুর কয়েকঘণ্টা পরই শহিদ জওয়ানের বিবাহবার্ষিকীর উপহার পেলেন স্ত্রী

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০১৭, ১১:৫৮ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক



কথা ছিল ১৭ ফেব্রুয়ারি বিয়ের তিন বছর পূর্তিতে একসঙ্গে সময় কাটাবেন। কিন্তু সেটা আর হয়ে উঠল না। কারণ গত মঙ্গলবার বিবাহবার্ষিকীর তিনদিন আগেই সীমান্তে জঙ্গিদের সঙ্গে সংঘর্ষে মারা যান ভারতীয় সেনা জওয়ান মেজর সতীশ দাহিয়া। তবে শুধু দেশ নয়, পরিবারের প্রতি নিজের দায়িত্ব সম্পর্কেও কিন্তু যথেষ্ট অবগত ছিলেন সতীশ। কারণ কর্তব্যরত থাকলেও স্ত্রীর জন্য বিবাহবার্ষিকীর উপহার পাঠিয়ে দিয়েছিলেন। আর ভাগ্যের পরিহাস এমনই সতীশের মৃত্যুর কয়েকঘ্ণ্টা পরেই উপহারটি এসে পৌঁছায় হরিয়ানার বানিওয়াড়ি গ্রামে তাঁর বাড়িতে। জানা গেছে, বিবাহবার্ষিকী উপলক্ষে সীমান্ত থেকে স্ত্রীর জন্য একটি কেক, ফুল এবং মোমবাতি পাঠিয়েছিলেন সতীশ।
শেষকৃত্যের জন্য গত বৃহস্পতিবারই গ্রামে মেজরের মৃতদেহ পৌঁছায়। কান্নায় ভেঙে পড়ে সতীশের গোটা পরিবার, এমনকী গ্রামবাসীরাও। প্রায় ৮০০ লোক তাঁর শেষযাত্রায় এসেছিলেন। দু’বছরের মেয়ে পিয়াসাই কাকাদের সাহায্যে বাবার অন্ত্যেষ্টি ক্রিয়া সম্পন্ন করে। পরে, সতীশের স্ত্রী ২৭ বছর বয়সি সুজাতা বলেন, ‘উপহারটি ওঁর মৃত্যুর পর আমার কাছে এসে পৌঁছায়। তাতে লেখা ছিল, আমি তোমাকে খুব ভালবাসি। তুমিই আমার অনুপ্রেরণা। আমি আমার স্বামীর জন্য খুবই গর্বিত।’ সতীশের ভাই রাজেশ বলেন, ‘আমি ভাইয়ের জন্য খুব গর্বিত। সীমান্তে দেশের সেবা করতে গিয়ে শহিদ হয়েছে সতীশ, তাই ওঁকে নিয়ে আমার গর্ব আরও বেড়ে গেছে।’
সোশাল মিডিয়াতেও সতীশ এবং জঙ্গিদের সঙ্গে সংঘর্ষে শহিদ অন্যান্য জওয়ানদের আত্মার শান্তি কামনা করে অনেকেই পোস্ট করছেন। এর আগে গত মঙ্গলবার কাশ্মীরের হান্দওয়াড়া এবং বান্দিপোড়ায় জঙ্গিদের সঙ্গে দু’টি পৃথক সংঘর্ষে মারা শহিদ হন সতীশ সহ তিন সেনা জওয়ান। এছাড়া সেনার গুলিতে মারা যায় চার জঙ্গি।- সংবাদ প্রতিদিন