মেয়েদের পারফরম্যান্সে খুশি কোচ

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৫, ২০১৭, ১২:০৩ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


বড় হারের শঙ্কা ভর করেছিল বাংলাদেশ শিবিরে। যে ভয়টা ধরিয়ে দিয়েছিল উত্তর কোরিয়া ৯ গোল দিয়ে। কিন্তু জাপানের বিপক্ষে খেলেছে বদলে যাওয়া এক বাংলাদেশ। চ্যাম্পিয়নদের কাছে ৯ গোলে হারের পরের ম্যাচে রানার্সআপদের কাছে হজম ৩ গোল। ফলটা বাংলাদেশ দলের জন্য বড়ই স্বস্তিদায়ক।
প্রথমার্ধে ৩ গোল, দ্বিতীয়ার্ধে আর পারে নি জাপানি মেয়েরা। অপেক্ষাকৃত ভাল খেলে এবং বাংলাদেশ সীমানায় চাপ সৃষ্টি করেও তাদের ফিরতে হয়েছে লাল-সবুজ জার্সিধারীদের রক্ষণ দেয়াল থেকে। তাইতো ম্যাচের পর জাপান অনূর্ধ্ব-১৬ নারী ফুটবল দলের কোচ নাওকি কুসুনোসে ভূয়সি প্রশংসা করেছেন বাংলাদেশের ডিফেন্ডারদের।
১২ বছর আগে এই টুর্নামেন্টের প্রথম আসরে জাপানের কাছে ২৪ গোল হজম করেছিল বাংলাদেশ। এক যুগ পর হারের ব্যবধান ৩-০তে নামিয়ে এনেছে বাংলাদেশ। এমন ফলাফলে স্বাভাবিকভাবেই খুশি কৃষ্ণাদের কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন ‘আমি প্রথমে জাপানকে অভিনন্দন জানাই। আমরা প্রথম ম্যাচ খেলেছি চ্যাম্পিয়ন উত্তর কোরিয়ার বিপক্ষে। এ ম্যাচ খেললাম রানার্সআপ দলের বিপক্ষে। প্রথম ম্যাচ থেকে আমাদের মেয়েরা অনেক কিছু শিখেছে। যে কারণে জাপানের বিপক্ষে তারা স্বাভাবিক খেলতে পেরেছে। আমি খুব খুশি।’
দ্বিতীয় ম্যাচে জাপানের সঙ্গে লড়াইয়ের পর প্রথম ম্যাচের বড় হারের কারণও তুলে ধরেছেন কৃষ্ণা-সানজিদাদের কোচ ‘প্রথম ম্যাচে আমাদের মেয়েরা খুব নার্ভাস ছিল। এ ম্যাচে সেই নার্ভাস কাটিয়ে আত্মবিশ্বাস নিয়েই খেলেছে। আমরা জাপানের বিপক্ষে খুবই সুন্দর ফুটবল খেলেছি। কিছু সাধারণ ভুলের জন্য ৩ গোল হজম করেছি। বাংলাদেশ ও জাপানের ফুটবলের অনেক পার্থক্য। তবে আমরা ধীরে ধীরে উন্নতি করছি।’
জাপান অনূর্ধ্ব-১৬ নারী ফুটবল দলের কোচ নাওকি কুসুনোসে ম্যাচের পর মাত্র ৩ গোলের হারের জন্য সুযোগ নষ্টের কথা বলেছেন,‘আমরা অনেক সুযোগ পেয়েছি। আমার আরো বড় ব্যবধানে জয়ের আশা করেছিলাম। তবে ম্যাচটা সহজ ছিল না। জিততে পেরেই আমি খুশি। বাংলাদেশের রক্ষণভাগ ছিল অনেক ভাল। আমরা আক্রমণের পর আক্রমণ করেছি আর বাংলাদেশ তা ভালভাবেই রুখেছে। তাদের গোলরক্ষক মাহমুদা পোস্টের নিচে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স দেখিয়েছেন।’