মেয়ের নাম আল্লা! মানতে নারাজ মার্কিন প্রশাসন

আপডেট: মার্চ ২৯, ২০১৭, ১২:১১ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


অবিবাহিত যুগল। তাঁদের মেয়ে হয়েছে। বাবা-মা সাধ করে মেয়ের নাম রেখেছেন আল্লা। কিন্তু এই নামকরণ কিছুতেই মেনে নিতে রাজি নয় আমেরিকার জর্জিয়া প্রদেশের প্রশাসন। জন্মের শংসাপত্র আটকে দিয়েছে জনস্বাস্থ্য দফতর। কিন্তু বিলাল-এলিজাবেথ বদ্ধপরিকর- আল্লাই নাম হবে মেয়ের। ফুলটন কাউন্টি সুপিরিয়র কোর্টে মামলা শুরু হয়েছে নাম নিয়ে।
জালিখা গ্রেসফুল লোরাইনা আল্লা- এই হল বিলাল আসিম ওয়াক এবং এলিজাবেথ হ্যান্ডির কন্যাসন্তানের নাম। মেয়ে হওয়ার পর তার জন্ম শংসাপত্র নেয়ার জন্য যে ফর্ম ফিলআপ করেছেন বিলাল-এলিজাবেথ, সেই ফর্মেও এই নামই লিখেছেন তাঁরা। পদবির জায়গায় আল্লা শব্দটি লেখা হয়েছে। কিন্তু জর্জিয়ার জনস্বাস্থ্য দফতর সেই ফর্মটি বাতিল করে দিয়েছে। দফতরের কর্তারা বলছেন, আল্লা কারও পদবি হতে পারে না। মেয়ের পদবির জায়গায় হয় বিলালের পদবি ‘ওয়াক’ লিখতে হবে, অথবা এলিজাবেথের পদবি ‘হ্যান্ডি’ লিখতে হবে। চাইলে দু’টি পদবি এক সঙ্গেও লেখা যেতে পারে। কিন্তু আল্লা লেখা যাবে না।
২২ মাস বয়স হয়ে গিয়েছে বিলাল-এলিজাবেথের মেয়ের। কিন্তু নাম-পদবি নিয়ে টানাপড়েনের জেরে এখনও জন্মের শংসাপত্র মেলেনি। মেয়ের পদবির জায়গায় আল্লা শব্দটি রাখতে বদ্ধপরিকর বিলাল ও এলিজাবেথের নাছোড়বান্দা মনোভাব দেখে সমাধান সূত্র বাতলে দিয়েছে প্রশাসনই। বলা হয়েছে, জন্মের শংসাপত্রে বাবা-মায়ের পদবি রাখা হোক। শংসাপত্র হাতে এলেই সোশ্যাল সিকিওরিটি নাম্বার পাওয়া যাবে। তার পর আদালতে গিয়ে বিলাল আর এলিজাবেথ মেয়ের পদবি বদলে আল্লা করে নিতে পারবেন। কিন্তু জন্ম সংক্রান্ত রেকর্ড রাখার জন্য জন্মের শংসাপত্রে বাবা বা মায়ের পদবি থাকা খুব জরুরি।
অবিবাহিত বাবা-মা প্রশাসনের এই পরামর্শ মানতে রাজি নন। তাঁরা জানিয়েছেন, তাঁদের একটি ছেলেও রয়েছে। ছেলের নাম মাস্টারফুল মোসিরা আলি আল্লা। অতএব মেয়ের নামেও প্রথম থেকেই আল্লা শব্দ রাখতে দিতে হবে।
বিলাল আসিম ওয়াকের কথায়, ‘‘এটা সরাসরি অন্যায় হচ্ছে এবং আমাদের অধিকারে হস্তক্ষেপ হচ্ছে।’’ অধিকার অর্জনের লড়াইতে তিনি পাশে পেয়ে গিয়েছেন আমেরিকার সিভিল লিবার্টিজ ইউনিয়নকে। বিলাল-এলিজাবেথের হয়ে আইনি লড়াই শুরু করেছে ওই সংগঠনটিই।- আনন্দবাজার পত্রিকা