‘মেয়ে অভিনেত্রী হলে তার সঙ্গেও শুতাম’, টেলি অভিনেত্রী রতন রাজপুতকে বলেছিলেন প্রযোজক!

আপডেট: সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২২, ৩:০১ অপরাহ্ণ


সোনার দেশ ডেস্ক :


এক সদ্য তরুণীকে শোওয়ার প্রস্তাব দিয়েছিলেন ৬০ বছরের প্রবীণ! দাবি করেছিলেন, নিজের মেয়েও অভিনয় জগতে এলে তিনি তার সঙ্গেও শুতেন। এমনই ভয়ংকর অভিজ্ঞতার কথা শোনালেন ‘আগলে জনম মোহে বিটিয়া হে কি জো’ ধারাবাহিকের সূত্রে জনপ্রিয় হয়ে ওঠা রতন রাজপুত। জানালেন কীভাবে ‘কাস্টিং কাউচ’-এর শিকার হতে হয়েছিল তাঁকে। যে ভয়াবহ অভিজ্ঞতার স্মৃতি আজও দগদগে হয়ে রয়েছে।

এক সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলার রতন জানিয়েছেন, ”আজ থেকে ১৪ বছর আগের কথা। লোকটির বয়স ছিল ৬০-৬৫ বছর। উনি আমাকে অপমান করে বলেছিলেন, ‘নিজের চেহারাটা দেখো আর বাকিদের দিকে তাকাও।

তাহলেও বুঝতে পারবে তোমাকে তোমার লুক বদলে ফেলতে হবে পুরোপুরি। তোমার একটা সম্পূর্ণ মেক ওভার প্রয়োজন। সেজন্য ২ থেকে আড়াই লক্ষ টাকার দরকার। কিন্তু আমি কেন তোমার পিছনে এত টাকা খরচ করব? যদি সৎিয়ই তুমি চাও আমি তোমার পিছনে খরচ কবি তাহলে তোমাকে আমাকে গডফাদার করতে হবে। আমার সঙ্গে বন্ধুত্ব করতে হবে।”

স্বাভাবিক ভাবেই এমন প্রস্তাবে হতবাক হয়ে যান অভিনেত্রী। তাঁর কথায়, ”আমি সেই প্রযোজককে বলি, আপনি তো আমার বাবার বয়সি। সেকথা শুনে উনি খুব রেগে গিয়ে বলেন, ‘শোনো, আমার মেয়েও যদি অভিনেত্রী হত, আমি তার সঙ্গেও শুতাম।’

এমন কথা শুনে আমি হতভম্ব হয়ে যাই। তাড়াতাড়ি সেখান থেকে চলে আসি। সেই লোকটি আমার সঙ্গে কিছুই করেননি। কিন্তু তাঁর বলা কথার এমন প্রভাব পড়েছিল পরের এক মাস আমি কারও সঙ্গে দেখা করতে পারিনি।” তবে ৩৫ বছরের অভিনেত্রী পরিষ্কার করে দিয়েছেন, তিনি কোনও চলচ্চিত্রে নামতে চাননি। অর্থাৎ টেলিভিশনে কাজ চাইতে গিয়েই এই অভিজ্ঞতা হয়েছিল তাঁর।

‘সন্তোষী মা’, ‘আগলে জনম মোহে বিটিয়া হে কি জো’, ‘রিস্তো কা মেলা’র মতো একের পর এক ধারাবাহিকে অভিনয় করে জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন রতন। তবে দীর্ঘদিন তাঁকে কোনও নতুন শো করতে দেখা যাচ্ছে না।

এর মধ্যেই নিজের অতীত অভিজ্ঞতার কথা তিনি তুলে ধরলেন সকলের সামনে। ‘কাস্টিং কাউচ’ যে বলিউড-সহ ভারতীয় বিনোদন দুনিয়ার এক অস্বস্তিকর কিন্তু অপরিহার্য কালো অধ্যায়, তা ফের আরও একবার পরিষ্কার হয়ে উঠল।
তথ্যসূত্র: সংবাদ প্রতিদিন