‘মোস্তাফিজের যত্ন নেয়া উচিত’

আপডেট: জানুয়ারি ১১, ২০২০, ১২:৫৭ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


রংপুরের হয়ে বল করছেন মোস্তাফিজুর রহমান-সংগৃহীত

রংপুর রেঞ্জার্সের হয়ে বিপিএলের শুরুর ম্যাচগুলোতে হতাশাই বিলিয়েছেন মোস্তাফিজ। বিশ্বকাপের পর থেকেই এই অবস্থা চলছে। তবে বিপিএলে তিন ম্যাচ বাদেই ছন্দে ফিরেছেন মোস্তাফিজ। তাতেই টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ উইকেটশিকারী এখন তিনি । ১২ ম্যাচ খেলে ১৫.৬০ গড়ে নিয়েছেন ২০ উইকেট। এই মোস্তাফিজের প্রথম তিন ম্যাচ দেখে হতাশ ছিলেন নির্বাচক হাবিবুল বাশার। রংপুরের টেকনিক্যাল অ্যাডভাইজার হয়েও মোস্তাফিজের সমালোচনা করেছেন।
বিশেষ করে বিপিএলের উদ্বোধনী দিনে মোস্তাফিজের পারফরম্যান্স দেখে খুবই হতাশ ছিলেন হাবিবুল বাশার। ৩৭ রানে ২ উইকেট নিলেও বোলিং ছিল এলোমেলো। দাসুন শানাকা চার-ছক্কায় মোস্তাফিজের এক ওভারে নেন ২৬ রান। এমন নির্বিষ বোলিং দেখে হতাশ ও বিরক্ত ছিলেন হাবিবুল। সংবাদমাধ্যমকে তিনি বলেছিলেন, ‘মোস্তাফিজ এক বছর হলো হারিয়ে যাচ্ছে। ওর বোলিংয়ে এখন ইয়র্কার নেই। আগে একটা দারুণ ইয়র্কার ছিল । স্লোয়ার এখনও আছে। পেসও আস্তে আস্তে বাড়ছে। এখন মোটামুটি ভালো পেসে বল করছে। তবে ইয়র্কার মিসিং। তাকে আগেই পড়ে ফেলা যাচ্ছে বেশি করে । এটাই আমার ভাবনার বিষয়।’
মোস্তাফিজের বিপিএল শেষ হলো শুক্রবার জয় দিয়েই। ঢাকার বিপক্ষে নিজেদের শেষ ম্যাচে ৩১ রানে ১ উইকেট নিয়েছেন মোস্তাফিজ। যেভাবে ছন্দে ফিরেছিলেন, সেই ছন্দ অবশ্য আজকের ম্যাচে দেখা যায়নি। তাই সংবাদ সম্মেলনে মাশরাফির কাছে মোস্তাফিজের পারফরম্যান্স নিয়ে প্রশ্ন এলো। মাশরাফি বলেন, দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের সমালোচনা থেকে দূরে থাকা উচিত। সমালোচনা না করে মোস্তাফিজকে যত্ন করার আহ্বান তার কণ্ঠে।
এক প্রশ্নের জবাবে মাশরাফি বলেন, ‘মোস্তাফিজকে যত্ন করা খুব জরুরি। আমি সংক্ষেপে বলি, মোস্তাফিজকে নিয়ে সমালোচনা যদি আমরাই করতে থাকি , আপনাদের কথা আলাদা, দর্শকদের কথা আলাদা। সেই জায়গায় সমালোচনা হবে। কিন্তু দায়িত্বশীলরা কেন মোস্তাফিজের সমালোচনা করবেন। দায়িত্বশীলদের উচিত মোস্তাফিজকে আরও আগলে রাখার চেষ্টা করা।’
মাশরাফি নিজেই প্রশ্ন করলেন মোস্তাফিজের অর্ধেক কাউকে দেখাতে; উত্তরও দিলেন নিজে, ‘আমাকে একটা হাফ অফ মোস্তাফিজ দেখান। সেটা নেই। মোস্তাফিজ বিশ্বকাপে ২১ উইকেট পেয়ে এসেছে । হয়তো ইকোনমি নিয়ে প্রশ্ন থাকতে পারে। এই জিনিসটা ঠিক করার উপায় কি? পৃথিবীর অনেক বোলার আছে যারা ফর্মহীনতায় ভুগছে। যারা মোস্তাফিজকে নিয়ে কাজ করছে, তারাও যদি আপনাদের ভাষায় কথা বলেন। মোস্তাফিজ তো মানুষ, তার মনের সমস্যার কীভাবে সমাধান করবেন। সমালোচনা না করে বরং মোস্তাফিজের যত্ন নেওয়া উচিত।’
মাশরাফির এসব কথা যে নির্বাচক হাবিবুল বাশারকে ইঙ্গিত করে, সেটা বোঝাই যাচ্ছে। তাহলে কি খেলোয়াড়দের সঙ্গে নির্বাচক কিংবা টিম ম্যানেজমেন্টের দূরত্ব তৈরি হচ্ছে? মাশরাফির উত্তর, ‘আমি তো ড্রেসিংরুমে আসিনি । না আসলে বুঝবো কি করে?’