মোহনপুরে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে আগাম জাতের শীতকালীন শিম চাষ

আপডেট: অক্টোবর ১৫, ২০১৬, ১১:৪৯ অপরাহ্ণ

08
মোহনপুর প্রতিনিধি
মোহনপুরে দিন দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠছে শীতকালীন সবজি শিমের চাষ। রোগ-বালায় রোধে ব্যবহৃত হচ্ছে পুরাতন পদ্ধতি। অনূকুল আবহাওয়ার পাশাপাশি কাঙ্খিত দাম পেয়ে আগ্রহের সঙ্গে শিম চাষে ব্যস্ত চাষিরা। সপ্তা খানেকের মধ্যে পুরোদমে শিমের বাজারজাত সম্ভব বলে আশাবাদি কৃষক।
সরোজমিন দেখা গেছে, মোহনপুর উপজেলার বিভিন্নস্থানে বসতবাড়ির আশপাশসহ ভিটা জমিতে শিমচাষ করা হয়েছে। আগাম জাতের শিম চাষ করলে অধিক লাভ হয় বলে সচেতন কৃষকরা অনেক আগেই শিমগাছ রোপণ করে। বেশিরভাগ স্থানে ফুলে ফুলে ভরে উঠেছে শিমের মাচা। আবার অনেকেই ইতোমধ্যে শিম বাজারজাত শুরু করেছেন। বর্তমানে প্রতি কেজি শিম খুচরা বিক্রি হচ্ছে প্রায় ৬০ টাকা কেজি। এজন্য উৎপাদন  কিছুটা কম হলেও দামে পুশিয়ে নিচ্ছে কৃষক। কীটনাশকমুক্ত শিমের চাহিদা বেশি বলে অনেক কৃষরা পুরাতন পুরাতন পদ্ধতিতে শিম চাষ করছেন। রোগবালায় পোকামাকড় হতে শিম ভালো রাখতে তারা সকালের শিশির ভেজা গাছে ব্যবহার করছে চুলার ছাই, নিমপাতার সিদ্ধ পানি, তুতে পানিসহ নানা পদ্ধতি। এতে পরিশ্রম কিছুটা বেশি হলেও বিনা খরচেই পাওয়া যায় বলে এ ধরনের পদ্ধতি ব্যবহারে আগ্রহী হয়ে উঠছেন কৃষকরা।
কেশরহাট পৌর এলাকার কৃষক আবদুল কাদের জানান, বাজারে কীটনাশকমুক্ত সবজির খুব চাহিদা এবং দাম বেশি। এজন্য ছাইভষ্ম, নিমপাতা মিশ্রিত পানি ব্যবহার করলে পোকামাকড় রোধ হয়। এসব ব্যবহারে সময় পরিশ্রম বেশি হলেও বেশি দামে শিম বিক্রি করা সম্ভব। আগাম জাতে শিমচাষ করে ভাল দাম পাচ্ছেন বলেও জানান তিনি।
উপজেলা ভারপ্রাপ্ত কৃষি অফিসার রহিমা খাতুন বলেন, শীতকালে আগাম জাতের শিমচাষ করা হলে ভালো দাম পাওয়া সম্ভব। এতে কৃষরা ভালো সফলতা অর্জন করবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ