মোহনপুরে জনসসম্মুখে স্ত্রীকে পিটিয়ে জখম || স্বামীকে পুলিশে সোপর্দ

আপডেট: জানুয়ারি ১৪, ২০২০, ১:০১ পূর্বাহ্ণ

মোহনপুর প্রতিনিধি


যৌতুক না পেয়ে জনসম্মুখে স্ত্রীকে পিটিয়ে জখম করেছে স্বামী। পরে স্বামীকে ধরে পুলিশে সোপর্দ করেছে জনতা। থানায় মামলা দায়ের হলে স্বামী মাহাবুব আলম সোহেলকে (৩৫) কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ। আসামী মাহাবুব মোহনপুর উপজেলার গোছা গ্রামের খোন্দকার পাড়ার মৃত শামশুলের ছেলে। গত রোববার বিকেলে কেশরহাটে স্ত্রী পেটানোর এঘনা ঘটে।
অভিযোগ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত কয়েক বছর আগে মোহনপুর উপজেলার গোছা গ্রামের মাহাবুবের সঙ্গে বিয়ে হয় তানোর উপজেলার যুগিশো গ্রামের কামরুল হাসানের মেয়ে কামরুন্নাহার তাজরীনের (২১)। বিয়ের কিছুদিন যেতে না যেতেই স্বামীসহ তার পরিবারের লোকজন তাজরীনের কাছে যৌতুক দাবি করে। বাবার কাছ থেকে যৌতুকের টাকা না আনার কারণে মাঝে মধ্যেই মারপিট করা হতো তাজরীনকে। কয়েক দফায় টাকা এনে দিলেও টাকা ফুরানোর সঙ্গে সঙ্গে আবারো তারা তাজরীনের উপর চালাতো নির্যাতন। অর্থসম্পদহীন বাবাকে যৌতুকের টাকার কথা বারবার বলতে পারতো না বলে নিরবে মারধর ও নির্যাতন সহ্য করতো গৃহবধূ তাজরীন। গত রোববার দুপুরে এক লাখ টাকা যৌতুকের জন্য স্বামী মাহাবুবসহ পরিবারের লোকজন মারপিট করে। এসময় তাজরীন প্রতিবেশির সহযোগিতায় রেহাই পায়। পরে তাজরীন তার দুই বছর বয়সি কন্যা সন্তান মাহামুদা আক্তার কনককে (০২) নিয়ে তানোরে বাবার বাড়ি যাওয়ার জন্য কৌশলে ভিন্নপথে রওনা দেয়। সে মোহনপুরের কেশরহাটে পৌঁছালে তার স্বামী তাকে পেছন থেকে ধরে নিয়ে একটি বাড়ির পেছেনের পরিত্যক্ত স্থানে গিয়ে বেধড়ক মারপিট আরম্ভ করেন। এসময় তাজরীনের শিশু কন্যা কনকের চিৎকারে পথচারিরা এগিয়ে আসলে স্বামী মেহেবুব দৌড়ে পালানোর সময় জনতা তাকে ধরে পুলিশে সোপর্দ করে। এদিকে আহত ওই গৃহবধূ তাজরীনকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে পাঠানো হয়। চিকিৎসার খোঁজখবর শেষে তাজরীনের মা মোহনপুর থানায় মামলা দায়ের করেন। পুলিশ গতকাল সোমবার সকালে স্বামী মেহেবুবকে জেলহাজতে পাঠায়।
মোহনপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোস্তাক আহম্মেদ বলেন, থানায় মামলা দায়ের হলে আসামী মেহেবুবকে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ