মোহনপুরে দুই ডাকাতকে গণধোলায় দিয়ে পুলিশে সোপর্দ

আপডেট: ডিসেম্বর ২, ২০১৬, ১২:১৪ পূর্বাহ্ণ

মোহনপুর প্রতিনিধি
রাজশাহীর মোহনপুরে ডাকাতির সময় আটক করে দুইজন ডাকাতকে গণধোলায় দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছে স্থানীয় জনতা। গতকাল বৃহস্পতিবার ভোর রাতে উপজেলার কেশরহাট-ভবানিগঞ্জ আঞ্চলিক সড়কে এ ঘটনা ঘটে।
আটককৃতরা হলেন, নওগাঁ জেলার নিয়ামতপুর উপজেলার সাতরা গ্রামের কলিমুদ্দিনের ছেলে বাচ্চু রহমান (৩২) এবং একই উপজেলার গণিপুর গ্রামের নাজিম উদ্দিনের ছেলে হাফিজুর রহমান (৩০)।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, কেশরহাট-ভবানীগঞ্জ সড়কের ঐতিহ্যবাহী মগরা বিলের মাঝপথে কোনো জনবসতি না থাকার কারণে দীর্ঘদিন ধরে চুরি, ছিনতাই, ডাকাতিসহ বিভিন্ন ধরনের অপরাধমূলক ঘটনা ঘটে আসছিল। নিরাপত্তায় প্রতিরাত থানা পুলিশের সন্ধ্যাকালীন পাহারা থাকলেও মধ্যরাতের পরে এ ধরনের কর্মকা- চালাতো দুর্বৃত্তরা। গত দুই সপ্তা মধ্যে একই স্থানে পর পর দুইবার ডাকাতির ঘটনা ঘটে। এরপর গতকাল বৃহস্পতিবার ভোর রাতে ৭ থেকে ৮ জনের একটি সংঘবদ্ধ ডাকাতদল মগরা বিলের বাগমারা পুকুর নামক স্থানে রাস্তার ওপর গাছ, কাঠের নৌকা ও বাঁশ ফেলে যানবাহন থামিয়ে ডাকাতি শুরু করে। এসময় রাজশাহীর একটি অভিজাত কোম্পানির পণ্য সরবরাহকারী গাড়ি, কয়েকটি খড়ের ভটভটিসহ বিপরীত দিকে কয়েকটি ট্রাক আটকা পড়ে। ভটভটি চালকদের সঙ্গে ডাকাতদের দীর্ঘক্ষণ ধস্তাধস্তী ও উচ্চস্বরে হৈচৈ শুরু হয়। কয়েকটি গ্রামে মসজিদের মাইকে ঘোষণা দেয়া হলে পার্শবর্তী হরিদাগাছি, বাকশৈল, গোপইল, মোল্লাডাঙ্গি, সাঁকোয়া, বিষহারাসহ প্রায় দশটি গ্রামের জনসাধারণ বিলটির চারিদিক ঘিরে ফেলে। ডাকাতদের কয়েকজন জনসাধারণের মাঝে মিশে গেলেও দুই ডাকাতকে হাতেনাতে আটক করে স্থানীয় জনতা। থানায় খবর দেয়া হলে পুলিশ দ্রƒত ঘটনাস্থলে গিয়ে ডাকাতদের উদ্ধার করে থানায় আসে।
এ ঘটনায় স্থানীয় কাউন্সিলর কেশরহাট পৌরসভার প্যানেল মেয়র রুস্তম আলী প্রামাণিক জানান, মাঝে মধ্যে এখানে চুরি, ছিনতাই ও ডাকাতির ঘটনা ঘটছে। টাকার অভাব পূরণ করতে স্থানীয় উঠতি বয়সী কিছু মাদকসেবীদের সহয়তায় এ ধরনের অপকর্ম ঘটছে বলেও দাবি করেন তিনি। আটককৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ করলে অনেকের নাম বেরিয়ে আসবে।
এ বিষয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এসএম মাসুদ পারভেজ বলেন, গ্রেফতারকৃত দুইজনের বিরুদ্ধে ডাকাতি মামলা দায়েরের পর তাদের আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। তাদের কাছ থেকে আরো বেশকিছু তথ্য পাওয়া গেছে যা তদন্তের স্বার্থে এ মুহূর্তে প্রকাশ করা যাচ্ছে না। আর এলাকায় পুলিশি অভিযান অব্যাহত আছে।