ম্যাকাও চায়নার জালে বাংলাদেশের ১৩ গোল!

আপডেট: নভেম্বর ২৩, ২০১৬, ১০:৫৯ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক
দুর্বল ম্যাকাও চায়নাকে পেয়ে একেবারে ছেলে খেলাই করলো বাংলাদেশ। এএইচএফ কাপ হকিতে গ্রুপ পর্যায়ের শেষ ম্যাচে দুর্বল ম্যাকাও চায়নাকে ১৩ -০ গোলে হারিয়েছে জিমিরা। বিশাল ব্যবধানে এই জয়ের মধ্য দিয়ে গ্রুপ ‘এ’-এর চ্যাম্পিয়ন হয়েছে লাল-সবুজরা।
গতকাল বুধবার হংকংয়ে অনুষ্ঠিত এ খেলায় আশরাফুল ইসলাম একাই করেন পাঁচটি গোল। গোল করার ক্ষেত্রে সংখ্যার দিক দিয়ে এর পরেই ছিলেন সারোয়ার হোসেন তিনটি, রোমান সরকার দুটি ও হাসান যুবায়ের নিলয় একটি।
দলের দুই অভিজ্ঞ খেলোয়াড় অধিনায়ক রাসেল মাহমুদ জিমি ও ডিফেন্ডার মামুনুর রহমান চয়নকে বিশ্রামে রেখে দল নামান জার্মান কোচ অলিভার কার্টজ।
আর খেলতে নেমেই ২ ও  ১০ মিনিটে দুটি পেনাল্টি কর্নারে প্রতিপক্ষকে চেপে ধরে বাংলাদেশ। এরপরেই শুরু টানা গোলের থাবা। ১১ মিনিটে পেনাল্টি স্ট্রোকে টানা তিনটি গোলে হ্যাটট্রিক করে বাংলাদেশের আধিপত্য নিশ্চিত করেন ড্র্যাগ অ্যান্ড ফ্লিক স্পেশালিস্ট আশরাফুল ইসলাম। তার পেনাল্টি কর্নারের পাওয়ারের কোনও জবাব ছিল না ম্যাকাওয়ের কাছে।
যেখানে ১৯ মিনিটে মিডফিল্ডার রোমান সরকার, ২৩ মিনিটে আরেক মিডফিল্ডার সারওয়ার হোসেন ও প্রথমার্ধের শেষ মিনিটে হাসান যুবায়ের নিলয় একটি করে ফিল্ড গোল করলে প্রথমার্ধে ৬-০ গোলে এগিয়ে যায় বাংলাদেশ।
দ্বিতীয়ার্ধেও অব্যাহত থাকে গোল উৎসব। শুরুতে আবারও আঘাত হানেন আশরাফুল। ৪০ মিনিটে করেন দলের সপ্তম ও নিজের চতুর্থ গোল।  ৫৮ মিনিটে করেন নিজের পঞ্চমটি।  ৬১ ও ৬২ মিনিটে আরও দুটি গোল করেন রোমান সরকার ও সারোয়ার হোসেন। বাংলাদেশ এই গোলগুলো দিয়েই দুই অংকের ঘরে নিয়ে যায় নিজেদের অগ্রগামিতা।  তারপরেও থেমে থাকেনি জিমির দল।
৬৩ মিনিটে দিশেহারা ম্যাকাওয়ের জালে একাদশটি গোলটি জড়ান সারোয়ার। খেলা শেষের এক মিনিট আগে গোল ডজন সংখ্যা পূর্ণ করেন ফরোয়ার্ড মইনুল ইসলাম কৌশিক।  আর শেষ দিকে খোরশেদুর রহমান ৭০+২ মিনিটে ১৩ নম্বর গোলটি করলে উৎসব করেই মাঠ ছাড়ে বাংলাদেশ।
টুর্নামেন্টে গ্রুপের তিন ম্যাচে বাংলাদেশ গোল করেছে ২০ টি। হজম করেছে ৪টি। যেখানে আশারফুলের গোল সংখ্যা ছয়টি।  সারোয়ার হোসেন, রোমান সরকার, মামুনুর রহমান চয়ন এবং রাসেল মাহমুদ জিমির রয়েছে সমান ৩টি গোল।-বাংলা ট্রিবিউন