যুক্তরাষ্ট্রে পৃথক সন্ত্রাসী ঘটনায় নিহত ৮

আপডেট: অক্টোবর ৭, ২০১৯, ১:১৬ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পৃথক দুটি সন্ত্রাসী ঘটনায় ৮ জন নিহত ও ৬ জন আহত হয়েছে।
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কানসাসে বন্দুকধারীর গুলিতে অন্তত চারজন নিহত ও আরো পাঁচজন আহত হয়েছেন। কানসাস সিটি পুলিশের বরাত দিয়ে রুশ সংবাদমাধ্যম আরটি বলছে, কানসাস সিটির সেন্ট্রাল এভিনিউয়ের একটি বারের কাছে এ ঘটনা ঘটেছে।
সন্তেহভাজন হামলাকারীকে এখন পর্যন্ত শনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ। কানসাস পুলিশের বরাত দিয়ে সিএনএন বলছে, যুক্তরাষ্ট্রের সেন্ট লুইসের কানসাসে শনিবার রাতে উন্মুক্ত মাঠে কয়েকশ মানুষ একটি ইভেন্টে অংশগ্রহণ করছিলেন। এ সময় বন্দুকধারীর গুলিতে অন্তত চারজন নিহত হয়েছেন।
সেন্ট লুইস কাউন্টি পুলিশ বিভাগের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, স্থানীয় সময় রাত ১১টা ৪৩ মিনিটের দিকে নর্থ কাউন্টি প্রিসিংক্টের কর্মকর্তারা টেলিফোনে গোলাগুলির খবর পাওয়ার পর ঘটনাস্থলে পৌঁছান।
ঘটনাস্থলে পৌঁছানোর পর ওই কর্মকর্তারা চারজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় দেখতে পান; পরে তাদের সবাইকে উদ্ধার করে স্থানীয় একটি হাসপাতালে পাঠানো হয়।
পুলিশ বলছে, অনুষ্ঠানে বেশ কয়েকজনের মাঝে কথা কাটাকাটি হয়। এর এক পর্যায়ে গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। তবে এটি এলোপাতাড়ি গোলাগুলির ঘটনা নয় বলে ধারণা করা হচ্ছে। সেন্ট লুইস কাউন্টি পুলিশ বিভাগের অপরাধ তদন্ত ব্যুরো তদন্ত শুরু করেছে।
নিউ ইয়র্কে ৪ ‘গৃহহীনকে’ পিটিয়ে হত্যা
যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে গৃহহীন চার ব্যক্তিকে মাথায় লোহার পাইপ দিয়ে আঘাত করে হত্যা করেছে এক ব্যক্তি। শুক্রবার স্থানীয় সময় রাত ১২টার পর ম্যানহাটনে তিনটি স্থানে ওই হামলা হয়। এতে আরও একজন গুরুতর আহত হয়েছে। পরে সন্দেহভাজন হামলাকারীকে আটক করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।
পুলিশের ধারণা, নিহত সবাই গৃহহীন ও ঘুমন্ত অবস্থায় তাদের উপর আক্রমণ করে ওই ব্যক্তি। পুলিশ ওই হামলায় ব্যবহৃত লোহার পাইপটি জব্দ করেছে। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, ঘটনার তদন্ত করছে পুলিশ। আটক সন্দেহভাজন হামলাকারীর নাম এখনও প্রকাশ করা হয়নি। তবে তার বয়স ২৪ বছর বলে জানায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।
পুলিশ জানায়, শুক্রবার মধ্যরাতের পর তারা জরুরি নম্বরে ফোন পায় তারা। পরে পুলিশ গিয়ে আহত এক ব্যক্তিকে নিউ ইয়র্কের ডাউনটাউন হাসপাতালে ভর্তি করে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।
সংবাদমাধ্যম নিউ ইয়র্ক টাইমস’র এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চায়নাটাউন এবং লোয়ার পূর্বাঞ্চলে ওই হামলাগুলো হয়। প্রায় তিন ফুট লম্বা একটি লোহার পাইপ দিয়ে ওই ব্যক্তিদের মাথায় আঘাত করা হয়।
তথ্যসূত্র: বাংলানিউজ, জাগোনিউজ