যুদ্ধবিধ্বস্ত ইউক্রেনে অ্যাঞ্জেলিনা জোলি, সাইরেনের শব্দ শুনেই আশ্রয় নিলেন শেল্টারে

আপডেট: মে ২, ২০২২, ১:১৫ অপরাহ্ণ


সোনার দেশ ডেস্ক:


একটা ক্যাফে। সেখানে কফি খাচ্ছিলেন জনৈক ইউক্রেনীয়। হঠাৎই তাঁর নজর পড়ল সামনের দিকে। আর তখনই চমকে উঠলেন তিনি। যে নারীকে তিনি চোখের সামনে ঘুরে বেড়াতে দেখছেন, তিনি যে অ্যাঞ্জেলিনা জেলি! হলিউড অভিনেত্রীকে যুদ্ধবিধ্বস্ত ইউক্রেনের শহর লিভিভে দেখতে পেয়েই তিনি তা ক্যামেরাবন্দি করে ফেলেন। সেই ছবিই ঘুরে বেড়াচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।
কিন্তু এরই পাশাপাশি অভিনেত্রীকে দেখা গিয়েছে দ্রুত শেল্টারে আশ্রয় নিতে। আসলে সাইরেন বেজে ওঠার পরই সতর্ক হন তিনি। দ্রুত তাঁর সফরসঙ্গীদের নিয়ে নিরাপদ আশ্রয়ে ফিরে যান তিনি।
উল্লেখ্য, ক্যাফেতে বসে থাকা ৪৬ বছরের মায়া পিদরোদেৎস্কা নামের ওই নেটিজেন অস্কারজয়ী অভিনেত্রীর ছবি লেন্সবন্দি করেই ক্ষান্ত হননি। তিনি এরপরও ক্যামেরায় ধরে রেখেছেন জোলিকে। দেখা গিয়েছে, জোলি হাত নাড়ছেন সামনের দিকে। পরে তাঁকে অটোগ্রাফ দিতেও দেখা গিয়েছে। ওই নেটিজেন ভিডিওটি শেয়ার করে লিখেছেন, ”বিশেষ কিছুই না। কেবল এইটুকুই, আমি লিভিভে কফি খেতে এসে দেখলাম অ্যাঞ্জেলিনা জোলি ওখানে রয়েছেন। ইউক্রেনকে গোটা বিশ্ব সমর্থন জানাচ্ছে।”
প্রসঙ্গত, অ্যাঞ্জেলিনাই প্রথম মার্কিন সেলিব্রিটিই নন, যিনি ইউক্রেনে এলেন। এর আগে মার্কিন অভিনেতা সিন পেনকেও দেখা গিয়েছে এখানে। তিনি ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কির সঙ্গে বৈঠকও করেন। তিনি আসলে যুদ্ধবিধ্বস্ত ইউক্রেনকে নিয়ে ডকুমেন্টারি তুলছিলেন। কিয়েভে যখন রুশ সেনার গোলা আছড়ে পড়ছে, সেই সময়ও তাঁকে তাঁর দল নিয়ে পোল্যান্ড সীমান্তের দিকে হেঁটে যেতে দেখা যায়।
গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে হামলা করে রুশ সেনা। দেখতে দেখতে নবম সপ্তাহে পড়েছে যুদ্ধ। এখনও লড়াই শেষ হওয়ার কোনও সম্ভাবনা নেই। যুদ্ধের শুরুতে মনে করা হয়েছিল রাশিয়া হয়তো অনায়াসেই দখল করে নেবে কিয়েভ। কিন্তু যত দিন গিয়েছে, তত বোঝা গিয়েছে ইউক্রেন সহজে হাল ছাড়তে রাজি নয়। যদিও জেলেনস্কির সাহায্যে কোনও পশ্চিমী দেশই সেনা পাঠায়নি। কিন্তু অস্ত্রসাহায্য় করেছে ইউরোপের বহু দেশই। শনিবারই স্পেন থেকে পাঠানো হয়েছে জাহাজ ভরতি গ্রেনেড। পাশাপাশি বহু সেলেবকেও দেখা গিয়েছে পুতিন বাহিনীর আগ্রাসনের বিরুদ্ধে সরব হতে। এবার হলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রীকেও দেখা গেল ইউক্রেনে।
তথ্যসূত্র: সংবাদ প্রতিদিন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ