যে অ্যাপসগুলো প্রত্যেকের ফোনে থাকা উচিত

আপডেট: সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৭, ১২:২৫ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


বেশিরভাগ লোকই অধিকাংশ হ্যান্ডসেটের অ্যাপস ব্যবহার করে সময় কাটান বা প্রয়োজনীয় কাজ সারেন। অনেকের ফোনে হয়তো শ’খানেক অ্যাপস রয়েছে। এর মধ্যে সবসময় প্রয়োজন নিয়মিত ব্যবহার করা হয় ১৪টির মতো। যা আপনার দৈনন্দিন কাজে প্রয়োজন। এই ১৪টি অ্যাপস আপনার জীবনকে করে তুলে আরো সহজ, কর্মক্ষম এবং উপভোগ্য। যদি আপনার ফোনে প্রয়োজনীয় এই অ্যাপসগুলো না থাকে তাহলে আজই নেট থেকে ইনস্টল করে নিন।
স্পোটিফাই: গান শোনার ক্ষেত্রে সবচেয়ে ভালো অ্যাপ এটি। এর মাধ্যমে আপনি যত বেশি খুশি পছন্দের গান শুনতে পারেন। বিনামূল্যে কোনো ট্র্যাক, শিল্পী অথবা অ্যালবামের গান শোনা যায়।
ইয়েল্প : এই অ্যাপ’র মাধ্যমে লোকাল গাইড হিসেবে কাজ করে। যা আপনাকে নতুন কোনো পিজ্জাহাট, কাছের কোনো কফিশপ, রেস্টুরেন্ট, অবকাশ কেন্দ্রের খোঁজ দেবে। আইফোন, আইপ্যাড ও অ্যাপল ঘড়ির জন্য সহজলভ্য।
স্ল্যাক অ্যাপ : অফিসে বা ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানে টিম সদস্যদের একই চ্যানেলে যোগাযোগের জন্য মাধ্যম হিসেবে কাজ করে। যেকোনো ডেস্কটপ বা মোবাইল যেকোনো ডিভাইসেই স্ল্যাকস ব্যবহার করা যায়। এটির মধ্যমে কোনো ব্যক্তি বা গ্রুপের সঙ্গে ম্যাসেজ বা কল করা যায়।
উবার : অ্যাপভিত্তিক দ্রুত এবং নির্ভরযোগ্য এই ট্যাক্সিসেবা ঢাকাসহ বিভিন্ন দেশেই বেশ পরিচিত। তবে নির্দিষ্ট শহরেই কেবল এই সেবা পাওয়া যায়। এই অ্যাপের মাধ্যমে সহজেই আপনি ট্যাক্সি ভাড়া নিতে পারেন। ২৪ ঘণ্টায় এই সেবা চালু থাকে। ক্রেডিটকার্ড বা ক্যাশের মাধ্যমে ভাড়া পরিশোধ করা যায়।
গুগল ম্যাপ : গুগল ম্যাপ বিশ্বভ্রমণকে আরো গতিশীল ও সহজ করেছে। খুব সহজেই আপনি শহরের যেকোনো জায়গার অবস্থান ও তথ্য জানতে পারেন নিমিষেই। ভ্রমণের ক্ষেত্রে নির্দেশনা পেতে পারেন এখান থেকে।
রেডিট : এটি একটি জনপ্রিয় ওয়েবসাইট। মানুষ রেডিটে বিভিন্ন জিনিসের লিংক পোস্ট করে। সেটা হতে পারে নিউজ, ব্লগ পোস্ট, ছবি, ভিডিও বা অন্যকিছু। অন্যরা সেটাতে ‘আপভোট’ বা ‘ডাউনভোট’ দিয়ে উপরে বা নিচে পাঠায়। রেডিটে ইন্টারনেটে মানুষ এ মুহূর্তে যা পড়ছে বা দেখছে সেগুলোর সবচেয়ে সেরাগুলোর একটা তালিকা তৈরি হয়ে যায়।
এডিসন সফটওয়্যারের ইমেইল : এই ইমেইল সাধারণত আইওএস ডিভাইসের অ্যাপ স্টোরে থাকে। দ্রুত সুসংগঠিত ও দক্ষতার সঙ্গে মেইল ব্যবহারের জন্য এই সফটওয়্যার ব্যবহার করা হয়।
ডোরডাশ অ্যাপ : রান্না করতে অলসতা লাগছে? এই অ্যাপ ক্লিক করে কাছের কোনো রেস্টুরেন্টে প্রিয় খাবারের অর্ডার দিতে পারেন। অবশ্য কানাডা বা যুক্তরাষ্ট্রের যেকোনো শহরে থাকলেই কেবল আপনি এই সুবিধা পাবেন।
টুইটার : নতুন নতুন তথ্য পেতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে টুইটারেই থাকুন। ব্রেকিং নিউজ এবং বিনোদন থেকে শুরু করে খেলাধুলা, রাজনীতি এবং দৈনন্দিন বিশ্বের যেকোনো ঘটনা আপনি জানতে পারেন।
ডার্ক স্কাই ওয়েদার : আবহাওয়ার আপডেট খবর জানাবে এই অ্যাপ। আসন্ন প্রবল বৃষ্টি না থাকলে সূর্য উঠবে নাকি বৃষ্টি হবে এক ঘণ্টা আগে আপনি তাৎক্ষণিক আপডেট পেতে পারেন।
ইস্টাগ্রাম: এই অ্যাপের মাধ্যমে বন্ধুদের সঙ্গে যুক্ত হওয়া যায়। তাদের সঙ্গে অভিজ্ঞতা শেয়ার করা যায়। এখানে বিভিন্ন আবহে ছবি ও ভিডিও আপলোড করে সবার সঙ্গে শেয়ার করা যায়।
সোলেবন সোলিটিয়ার : এই অ্যাপ দিয়ে অবসর সময়ে চাইলে কার্ড খেলতে পারেন। এতে খেলার জন্য পঞ্চাশটি কার্ড রয়েছে। সুন্দর ডিজাইন এবং সমৃদ্ধ ফিচার দিয়ে তৈরি এটি। অত্যন্ত মূল্যবান এবং লাখ লাখ মানুষ এই অ্যাপ ব্যবহার করে।
ইউটিউব : ভিডিও ক্লিপ, ট্রেইলার এবং শো দেখার জন্য বেশ জনপ্রিয় অ্যাপটি। এখানে বিভিন্ন চ্যালেনগুলোতে সাবস্ক্রাইব করা যায়, ভিডিও এডিট ও আপলোড করে বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করা যায় এবং যেকোনো ডিভাইস দিয়ে দেখা যায়।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ