যে শহরকে পৃথিবীর কেন্দ্র বলে বিশ্বাস করা হয়

আপডেট: জুন ২১, ২০২১, ১২:৪১ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


শহরটির বাসিন্দা মাত্র দুই জন

সম্প্রতি ব্যাপকভাবে ভাইরাল হয়ে উঠেছে একটি টিকটক ভিডিও। যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার ছোট একটি শহরের রোমাঞ্চকর ও অদ্ভূত সব বিস্তারিত নিয়ে বানানো ভিডিওটি। ‘আপনি কি পৃথিবীর কেন্দ্রে গেছেন?’ শিরোনামের ভিডিওতে বলা হয়েছে ফিলিসিটি নামের এক শহরের কথা। এই শহরের বাসিন্দা মাত্র দুই জন।
শহরের দুই বাসিন্দা হলেন এর প্রতিষ্ঠাতা ও মেয়র জ্যাকস আন্দ্রে ইসতেল এবং তার স্ত্রী ফেলিসিয়া। এই যুগলের দাবি শহরটি পৃথিবীর কেন্দ্রে অবস্থিত।
মজার বিষয়গুলো আরও বেশ কয়েকটি স্থান নিজেদের পৃথিবীর কেন্দ্র বলে দাবি করে থাকে। তবে তাদের তুলনায় ফেলিসিটির দাবিটি বেশি জোরালো। কেননা ক্যালিফোর্নিয়ার ইম্পেরিয়াল কাউন্টি এবং ফ্রান্স সরকার ফেলিসিটিকে পৃথীবির কেন্দ্র বলে স্বীকার করে নিয়েছে।
১৯৮৫ সালের মে মাসে ইম্পেরিয়াল কাউন্টি বোর্ড অব সুপারভাইজার ফেলিসিটিকে আনুষ্ঠানিকভাবে পৃথিবীর কেন্দ্র বলে স্বীকৃতি দেয়। তবে শহরটি প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৮৬ সালে। শিশুতোষ বই কোয়ে, দ্য গুড ড্রাগন অ্যাট দ্য সেন্টার অব দ্য ওয়ার্ল্ড বইযের ভিত্তি করে প্রতিষ্ঠিত হয় শহরটি। ওই বইটি লিখেছিলেন ইসতেল। আর শহরটির নাম রেখেছিলেন স্ত্রীর নামে।
শহরটিতে ২১ ফুট দীর্ঘ একটি পাথর, একটি গ্লাস পিরামিড এবং গ্রানাইটে লেখা ইতিহাসের জাদুঘর রয়েছে। এছাড়া আরও বেশ কিছু গ্রানাইট প্যানেল রয়েছে, যার বেশিরভাগই একশ’ ফুট দীর্ঘ।
১৯৫০-এর দশকে ওই এলাকার জমি কেনেন ইসতেল। ১৯৮০’র দশকে নিজের প্যারাসুট ব্যবসা বিক্রি করে দেওয়ার পর ফেলিসিটি শহর প্রতিষ্ঠা করেন তিনি।
তথ্যসূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া, বাংলাট্রিবিউন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ