যৌন শোষণের শিকার শিশু অনুসন্ধান বিষয়ে পুলিশ কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০২৪, ৮:০৬ অপরাহ্ণ


সংবাদ বিজ্ঞপ্তি:অ্যাসোসিয়েশন ফর কম্যুনিটি ডেভেলপমেন্ট (এসিডি) এর আয়োজনে ডাচ মিনিস্ট্রি অব ফরেন অ্যাফেয়ার্স, নেদারল্যান্ডস এবং ফ্রি অ্যা গার্লের সহযোগিতায় সুফাসেক-ডাউন টু জিরো অ্যালায়েন্স বাংলাদেশ ( স্টেপিং আপ দ্য ফাইট অ্যাগেইনস্ট চাইল্ড সেক্সুয়াল এক্সপ্লয়টেশন) প্রকল্পের আওতায় যৌন নির্যাতনের শিকার শিশু অনুসন্ধান, উদ্ধার এবং শিশুবান্ধব আদালত পদ্ধতি বিষয়ে আইন প্রয়োগকারী সদস্যদের অংশগ্রহণে প্রশিক্ষণের আয়োজন করা হয়।

যৌন শোষণের শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) নগরীর হোটেল ওয়ারিশানে প্রকল্প সমন্বয়কারী এস.এম. আহসান উল্লাহ-সরকারের সঞ্চালনায় প্রশিক্ষণের শুরুতে এসিডি প্রোগ্রাম-ম্যানেজার মো. মনিরুল ইসলাম শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন। প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণকারীদের সামনে প্রকল্পের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য এবং কাঙ্খিত প্রত্যাশা তুলে ধরেন। প্রশিক্ষণটিতে রাজশাহী জেলা পুলিশের ৮ টি থানা হতে নারী ও শিশু বিষয়ক হেলপডেস্ক এ কর্মরত অফিসারগণসহ মোট ২৫ জন পুলিশ কর্মকর্তা অংশগ্রহণ করেন। এই প্রশিক্ষণের মাধ্যমে থানাগুলোতে নারী ও শিশু ভিকটিমদের আশানুরুপ প্রয়োজনীয় সুবিধা নিশ্চিত হবে বলে মনে করেন।

থানায় আগত যৌন শোষণের শিকার শিশুদের সাথে কী ধরণের আচরণ করা প্রয়োজন, শিশুদের জিজ্ঞাাসাবাদ পদ্ধতি কেমন হবে সে সকল বিষয়সহ, ট্রমায় আক্রান্ত শিশুদের প্রতি সহমর্মিতা প্রদর্শণের জন্য অংশগ্রহণকারীদের ধারণা প্রদান করা হয়। শিশু ভিকটিমদের বিকল্প পন্থায় সমস্যা সমাধানের উপর গুরুত্ব দেওয়া হয়।

যৌন শোষণের শিকার শিশু অনুসন্ধান বিষয়ে প্রশিক্ষণ পরিচালনা করেন পুলিশ ইন্সপেক্টর পরিমল কুমার চক্রবর্তী, ট্রমা নিরসন পদ্ধতি আলোচনা করেন পুলিশ ইন্সপেক্টর মো. রবিউল ইসলাম ও শিশু বান্ধব আদালত চত্বর কেমন হয়া উচিত এ বিষয়ে আলোচনা করেন পুলিশ ইন্সপেক্টর মো. আমান উল্লাহ। প্রশিক্ষণ পরবর্তীতে অংশগ্রহণকারীগণ নিজ নিজ থানায় নারী ও শিশুদের প্রতি আরও দায়িত্বশীল ভূমিকা রাখবেন বলে প্রশিক্ষণে অংশ নিয়ে জানান।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ