রক্ত পরীক্ষাতেই ধরা পড়বে উপসর্গহীন ক্যানসার! যুগান্তকারী আবিষ্কারের পথে বিজ্ঞানীরা

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৩, ২০২২, ৯:০৪ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক:


ক্যানসার। শব্দটি উচ্চারিত হলেই যেন আতঙ্কের চোরাস্রোত নামতে থাকে মনের ভিতরে। প্রাণঘাতী এই অসুখের সবচেয়ে বড় অস্ত্র হল এর গোপনীয়তা। অনেক সময় রোগীর শরীরে উপসর্গ দেখা দেয় একেবারে শেষে। ফলে তখন আর কিছুই করার থাকে না। কিন্তু এবার ক্যানসারকে দ্রুত চিহ্নিত করতে পারার দিকে সম্ভবত একধাপ এগিয়ে গেল চিকিৎসাবিজ্ঞান। সম্প্রতি একটি গবেষণায় তেমনই ইঙ্গিত মিলেছে বলে দাবি গবেষকদের। তাঁরা জানাচ্ছেন, সাধারণ রক্ত পরীক্ষাতেই একাধিক ক্যানসারের কোষকে চিহ্নিত করা গিয়েছে। এবং সেটাও রোগীর শরীরে উপসর্গ দেখা দেওয়ার আগেই।

Grail নামের এক মার্কিন বায়োটেকনোলজি সংস্থা ক্যানসারের স্ক্রিনিং নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই কাজ করছে। সম্প্রতি তারা পঞ্চাশোর্ধ্ব ৬ হাজার ৬৬২ জনের উপরে পরীক্ষা চালিয়েছে। এঁদের প্রত্যেকেরই ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা ছিল। সেই পরীক্ষার ফলাফল প্যারিসে অনুষ্ঠিত ইউরোপিয়ান সোসাইটি ফর মেডিক্যাল অঙ্কোলজির সম্মেলনে প্রকাশ করা হয়েছে।

কী দেখা গিয়েছে গবেষণায়? গবেষকদের দাবি, পরীক্ষায় ৬ হাজার ৫২৯ জনের ফল নেগেটিভ এলেও ৯২ জনের শরীরে সম্ভাব্য ক্যানসারকে চিহ্নিত করা গিয়েছে। এছাড়াও ৩৬ জনের শরীরে টিউমার ও ব্লাড ক্যানসার ধরা পড়েছে। একজন মহিলার শরীরে দুই ধরনের ক্যানসার ধরা পড়েছে।

এই প্রথম রক্তের মধ্যে থাকা ক্যানসারের ডিএনএ অনুসন্ধান করে মারণ অসুখের চিহ্নিত করার চেষ্টা করা হয়েছে। সমস্ত রিপোর্ট সংশ্লিষ্ট রোগী ও তাঁদের চিকিৎসকদের কাছে পৌঁছে দেওয়া হয়েছে পরবর্তী চিকিৎসা ও অন্যান্য পরীক্ষা করার ক্ষেত্রে সুবিধার জন্য।
এই পরীক্ষাই ক্যানসার রোগীর অসুখ নির্ণয় ও চিকিৎসা সংক্রান্ত গবেষণাকে একধাক্কায় অনেকটাই এগিয়ে দিতে পারে বলে মনে করছেন গবেষকরা। আগামী বছর ১ লক্ষ ৬৫ হাজার মানুষের শরীরে এভাবেই রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে ক্যানসারকে খোঁজার বিরাট পরীক্ষা চালানো হবে বলে জানিয়েছেন তাঁরা।

চিকিৎসকদের আশা, এই পরীক্ষার মাধ্যমে অনেক আগেই ক্যানসার ধরা পড়বে। ফলে আগে থেকেই প্রয়োজনীয় অপারেশন ও অন্যান্য চিকিৎসা করে মারণ রোগকে হারানো সম্ভব হবে। তবে এখনই এই গবেষণার ফলাফলকে চূড়ান্ত না বলে আরও পরীক্ষার মাধ্যমে চরম সাফল্যের দিকে এগতে চাইছেন তাঁরা। সফল হলে ক্যানসারের চিকিৎসা তথা চিকিৎসাবিজ্ঞানের এক যুগান্তকারী মাইলফলক যে তৈরি হবে তা বলা বাহুল্য।
তথ্যসূত্র: সংবাদ প্রতিদিন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ