রাজউকের সাড়ে ৩ কোটি টাকা আত্মসাতের মামলায় কারাগারে ৪ কর্মকর্তা

আপডেট: জানুয়ারি ২, ২০১৭, ১১:০৫ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


সরকারি গাছ ব্যক্তি মালিকানায় দেখিয়ে প্রায় সাড়ে তিন কোটি টাকা আত্মসাতের মামলায় রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) সহকারী পরিচালকসহ চার জনকে কারাগারে পাঠিয়েছে ঢাকার আদালত।
সোমবার ঢাকা জেলার জ্যেষ্ঠ বিশেষ জজ (জেলা ও দায়রা জজ) এস এম কুদ্দুস জামান তাদের জামিনের আবেদন নাকচ করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। এ আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের অতিরিক্ত কৌসুঁলি মো. মিজানুর রহমান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, এসময় একই বিচারক একই মামলার কারাগারে থাকা অপর এক আসামির জামিন আবেদনও নাকচ করেন।
আদালতে আত্মমর্পণকারী এই চার আসামি হলেন- রাজউকের সহকারী পরিচালক (সাবেক কানুনগো) মো. মিজানুর রহমান, রাজউকের এস্টেট পরিদর্শক (সাবেক সার্ভেয়ার) মো. জাকির হোসেন, শেরপুরের উপজেলা ভূমি অফিসের কানুনগো (সাবেক সার্ভেয়ার) মো. আবু তাহের ও কিশোরগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের অতিরিক্ত ভূমি অধিগ্রহণ শাখার কর্মকর্তা (সাবেক কানুনগো) মো. মাইনুল হক। অপরাধ সংগঠনের সময় তারা সবাই নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে কর্মরত ছিলেন। তাদের পক্ষে ব্যারিস্টার মইনুল হক আদালতে জামিনের আবেদন করলে শুনানি শেষে বিচারক তা নাকচ করে তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।
সদ্য বিদায়ী বছরের ২৯ অগাস্ট নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানায় তাদের বিরুদ্ধে দুনীর্তি দমন কমিশনের (দুদক) সহকারী পরিচালক মো. আবদুস সালাম আলী এই চার জনসহ মোট ১২ আসামির বিরুদ্ধে এই মামলা করেন।
মামলায় বলা হয়, ১৯৯৭ সালের ৪ নভেম্বর থেকে ৬ নভেম্বর পর্যন্ত সময়ে আসামিরা পরস্পর যোগশাজস করে রাজউকের পূর্বাচল প্রকল্পে কামতা মৌজায় আর এস ১৫৬৪ নম্বর দাগে বাস্তবের চেয়ে বেশি গাছপালা দেখিয়ে এবং সরকারি গাছের মালিকানা বিভিন্ন ব্যক্তির নামে দিয়ে গাছের মূল্য বেশি দেখিয়ে সরকারের ৩ কোটি ৪৬ লাখ ৫১ হাজার ৮৯৭ টাকা আত্মসাৎ করেন।
তাদের সহযোগী অপর কানুনগো হালিম বিশ্বাস গত ১২ ডিসেম্বর গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে আছেন। তার পক্ষে আাইনজীবী কাজী নজিবুল্লাহ হীরু জামিন চাইলে সেটিও নাকচ করেন বিচারক।- বিডিনিউজ