রাজধানীতে গণপরিবহন সঙ্কটে চরম ভোগান্তিতে মানুষ

আপডেট: আগস্ট ৬, ২০২২, ১২:৫৮ অপরাহ্ণ


সোনার দেশ ডেস্ক :


হঠাৎ করে সব ধরনের জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোয় রাজধানীর সড়কগুলোতে গণপরিবহন নেমেছে কম। এতে ভোগান্তিতে পড়েছে অফিসগামী ও সাধারণ মানুষ।
শনিবার (৬ আগস্ট) সকালে রাজধানীর মিরপুর ১০ নম্বর গোল চত্বর, ১১, ১২ নম্বর বাসস্ট্যান্ড এলাকা ঘুরে গণপরিবহন সঙ্কটের এমন চিত্র দেখা যায়।

সকাল সোয়া ৯টা থেকে দেখা গেছে, রাজধানীতে বিগত দিনের তুলনায় গণপরিবহনের যাতায়াত অনেক কম। ৫ থেকে ১০ মিনিট পরপর দুয়েকটি বাস দেখা যায়। সেসব বাসে যাত্রীদের দাঁড়িয়ে ও গেটে ঝুলে ঝুঁকি নিয়ে যাতায়াত করতে হচ্ছে।

শুক্রবার (৫ আগস্ট) দিনগত রাত ১২টার পর থেকে নতুন দামে বিক্রি হতে শুরু হয়েছে সব ধরনের জ্বালানি তেল। ডিজেলের দাম লিটারে ৩৪, পেট্রলে ৪৪, অক্টেনে ৪৬ টাকা করে বেড়েছে।

পল্টনগামী বিহঙ্গ পরিবহনের যাত্রী মো. ইসলাম বলেন, প্রায় ৩০ থেকে ৪০ মিনিট অপেক্ষা করে পল্টন যাওয়ার বাসে উঠেছি। বিগত দিনের তুলনায় আজকে সড়কে গণপরিবহনের সংখ্যা খুবই কম। জ্বালানি তেলের দাম বাড়ায় এখনো গণপরিবহনের ভাড়া বাড়েনি। তবে আগামীকাল রোববার থেকে ভাড়া বাড়ার সম্ভাবনা আছে।

রাজধানী পরিবহনের চালক হেমায়েত বলেন, আমরা মালিকের বাস চালাই। মালিক যেভাবে চলাচল করতে বলবে সেভাবেই আমরা সড়কে চলবো। সব ধরনের জ্বালানি তেলের দাম বাড়ায় অনেক বাস মালিক আজকের সড়কে বাস নামায়নি। অনেক মালিক তেলের দাম বাড়ায় আন্দোলন করতে চাচ্ছে। মালিকরা যে সিদ্ধান্ত দেবেন সেই অনুযায়ী আমরা সড়কে বাস চালাবো।

বসুমতি পরিবহনের হেল্পার তানজিল বলেন, তেলের দাম বাড়ায় আগের থেকে ভাড়া মাত্র ৫ টাকা বেশি নিচ্ছি। আজকে সড়কে গণপরিবহন কম নেমেছে। তেলের দাম বাড়ার কারণে আগামীকাল থেকে গণপরিবহন বন্ধও থাকতে পারে। মালিকরা আন্দোলনে নামতে পারে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

শুক্রবার রাত ১০টায় জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের উপপ্রধান তথ্য অফিসার মীর মোহাম্মদ আসলাম উদ্দিনের পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, লিটার প্রতি ডিজেল ১১৪ টাকা, কেরোসিন ১১৪ টাকা, অকটেন ১৩৫ টাকা এবং পেট্রোলের দাম ১৩০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।
তথ্যসূত্র: বাংলানিউজ