রাজশাহীকে ইনিংসে হারালো ঢাকা, শ্বাসরুদ্ধকর জয় খুলনার

আপডেট: নভেম্বর ৬, ২০১৯, ১:০০ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


জাতীয় ক্রিকেট লিগের (এনসিএল) চতুর্থ রাউন্ডে এসে দুই স্তরের চার ম্যাচের সবগুলো ফলের মুখ দেখলো। সোমবার দ্বিতীয় স্তরের খেলায় তিন দিনেই ইনিংস ব্যবধানে জিতেছিল ঢাকা মেট্রো ও সিলেট। মঙ্গলবার চতুর্থ দিন শেষে জিতলো প্রথম স্তরের দুই দল ঢাকা ও খুলনা বিভাগ।
ইনিংস ও ৪ রানে জাতীয় ক্রিকেট লিগের এই আসরে প্রথম জয় পেয়েছে ঢাকা। ৪ ম্যাচে ২০.৬০ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে উঠে গেছে তারা। এক ম্যাচ পর জয়ে ফিরেছে খুলনা। রংপুরের বিপক্ষে ১ উইকেটের শ্বাসরুদ্ধকর জয়ে ২৬.৪৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে তারা।
কক্সবাজারের শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের অ্যাকাডেমি গ্রাউন্ডে মুখোমুখি হয়েছিল ঢাকা ও রাজশাহী। দ্বিতীয় ইনিংসে ৩ উইকেটে ৭৭ রানে শেষ দিন খেলতে নামা রাজশাহীর লক্ষ্য ছিল সারা দিন পার করে দেওয়া। আর ৭ উইকেটে ৪৭৫ রানে প্রথম ইনিংস ঘোষণা করা ঢাকার চোখ ছিল রাজশাহীকে গুটিয়ে দেওয়া।
দিনের শুরুতে জুনায়েদ সিদ্দীক ৪১ রানে বিদায় নিলে নাজমুল হোসেন শান্ত ও সাব্বির রহমানের ফিফটিতে প্রতিরোধ গড়ে রাজশাহী। শান্ত ৫১ ও সাব্বির ৫৮ রানে আউট হলে শেষ সেশনের আগেই গুটিয়ে যায় রাজশাহী। তাদের ২৪১ রানে অলআউট করতে ৩টি করে উইকেট নিয়ে সবচেয়ে বড় অবদান রাখেন ঢাকার দুই বোলার নাজমুল ইসলাম ও সাইফ হাসান। দুটি উইকেট পান সালাউদ্দিন শাকিল।
প্রথম ইনিংসে ১০৪ রান এবং বল হাতে দুই ইনিংসে ৪ উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরা হয়েছেন ঢাকার শুভাগত হোম।
মিরপুরে শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে ২০৩ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে বারবার হোঁচট খেয়েছে খুলনা। ৫ উইকেটে ১৩০ রানে শেষ দিনের খেলা শুরু করে তারা। মেহেদী হাসান ও জিয়ারউর রহমানের হাফসেঞ্চুরিতে সহজ জয় দেখছিল খুলনা। কিন্তু আগের দিন ৪ উইকেট নেওয়া সোহরাওয়ার্দী শুভ তার ঘূর্ণি জাদুতে টানা দুই ওভারে দুজনকে ফেরান। মেহেদী ৫৬ ও জিয়াউর ৫৩ রানে ফেরেন।
পরের ওভারে টানা দুই বলে মাহমুদুল হাসানের শিকার হন অধিনায়ক আব্দুর রাজ্জাক (১) ও রুবেল হোসেন (০)। ১৮৭ রানে খুলনার ৯ উইকেট তুলে নিয়ে উল্টো জয়ের সম্ভাবনা জাগায় রংপুর। কিন্তু শেষ উইকেটে মইনুল ইসলাম ও আব্দুল হালিমের ১৬ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটিতে রোমাঞ্চকর জয় পায় খুলনা। মইনুল ১৬ ও হালিম ২ রানে অপরাজিত ছিলেন। ৯ উইকেটে ২০৩ রান করে তারা। রংপুরের পক্ষে সর্বোচ্চ ৬ উইকেট নেন শুভ। দুটি পান মাহমুদুল। একটি করে সেঞ্চুরি ও হাফসেঞ্চুরিতে ম্যাচসেরা হয়েছেন খুলনার মেহেদী।