ঐতিহাসিক ৭ মার্চ দিবস আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত অনেক ত্যাগ তিতিক্ষার ফসল এ দেশ: মেয়র লিটন

আপডেট: মার্চ ৭, ২০২১, ১১:২৮ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


বঙ্গবন্ধুর আজন্মলালিত স্বপ্ন স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ বিনির্মাণের প্রত্যয় নিয়ে রাজশাহীতে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ দিবস উদযাপিত হয়েছে। উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের দুর্দান্ত অর্জন। বাংলাদেশ এলডিসি (স্বল্পোন্নত) দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে জাতিসংঘের চূড়ান্ত সুপারিশ প্রাপ্তিতে পুলিশ বাহিনী সম্মেলিতভাবে আনন্দ উদযাপন ০৭ মার্চ ২০২১ উদযাপন করেছে। এছাড়া বাংলাদেশের উত্তোরত্তোর সমৃদ্ধির আশা ব্যক্ত করে নানা আনুষ্ঠানিকতায় রাজশাহীতে ৭ মার্চের আনুষ্ঠানিকতা পালন করা হয়।
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণের দিনটিকে সরকারিভাবে প্রথমবারের মত জাতীয় দিবস হিসেবে যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপন করা হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে রাজনৈতিক দল, সামাজিক সংগঠন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলাবাহিনী নানান কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে।
রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগ : এদিকে দিবস উপলক্ষ্যে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগ যথাযোগ্য মর্যাদার সাথে দিবসটি পালন করে। কর্মসূচিসমূহের মধ্যে রোববার সূর্যোদয়ের সাথে সাথে কুমারপাড়াস্থ দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন। ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে মাইকযোগে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ প্রচার। সকাল ১০টায় দলীয় কার্যালয়ের স্বাধীনতা চত্বরে বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ করা হয়। সকাল সাড়ে ১০টায় দলীয় কার্যালয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটন। সভায় বক্তব্য রাখেন রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার।
সভায় এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ঐতিহাসিক ৭মার্চ বাংলাদেশে এই প্রথম জাতীয় ভাবে পালিত হচ্ছে। রেসক্রোর্স ময়দানে ১৯৭১ সালের এই দিনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর এই ঐতিহাসিক ভাষণ প্রদান করেছিলেন। এই ভাষণ মূলত একটি কবিতা। যা পরবর্তীতে বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ প্রামান্য ঐতিহ্য হিসেবে ইউনেস্কোর ‘মেমোরি অব দা ওয়ার্ল্ড ইন্টারন্যাশনাল রেজিস্টারে’ অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে।
তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু নিজের মতো করে বাঙালি জাতির হৃদস্পন্দন পরিপূর্ণ ভাবে ব্যক্ত করেছিলেন। আর সেই থেকেই বাঙ্গালী জাতি স্বাধীনতার লক্ষ্যে যার যার অবস্থানে থেকে সার্বিক প্রস্তুতি গ্রহন করা শুরু করেছিলেন। পশ্চিম পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠিকে সম্পূর্ণ প্রত্যাখান করে মুক্তির লক্ষ্যে রাজপথে নিজের বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দিতে কুণ্ঠাবোধ করেন নি।
রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগ : রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগ কার্যনির্বাহী সংসদের উপস্থিত নেতৃবৃন্দ, সকল সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, ভাতৃপ্রতীম সংগঠন ও সকল তৃণমূল সাংগঠনিক ইউনিটের নেতাকর্মী ও সমর্থকবৃন্দ সহযোগে “ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ” গভীর শ্রদ্ধা ও যথাযথ ভাবগাম্ভীর্যের সাথে উদযাপিত হয়েছে। রোববার (৭ মার্চ) সকাল ১০.৩০ টায় রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয় অলোকার মোড় হতে পদব্রজে রওনা দিয়ে রাজশাহী কলেজে প্রতিস্থাপিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর আবক্ষ প্রতিকৃতিতে বেলা ১১ টায় শ্রদ্ধার্ঘ্য নিবেদন, অতঃপর বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতির পাদদেশে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগ-এর সাধারণ সম্পাদক সাবেক এমপি মো. আব্দুল ওয়াদুদ দারা’র নেতৃত্বে কেন্দ্রীয় নির্দেশনা অনুরূপ দলীয় কার্যালয়ে দলীয় ও জাতীয় পতাকা উত্তোলন এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধার্ঘ্য নিবেদন সহ দিনের সকল কর্মসূচি পালিত হয় ।
আলোচনা সভায় সাধারণ সম্পাদক আব্দুল ওয়াদুদ দারা ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লায়েব উদ্দিন লাভলু বক্তৃতা দেন।
রাজশাহী সিটি করপোরেশন : যথাযথ মর্যাদায় ঐতিহাসিক ৭ মার্চ দিবস পালিত করেছে রাজশাহী সিটি করপোরেশন। রোববার দিনব্যাপী নানা কর্মসূচি পালন করেছে। রোববার সকাল সাড়ে ১০টায় নগর ভবনে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। শুরুতে সিটি মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটনের পক্ষে কাউন্সিলরবৃন্দ বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পন করেন। এরপর রাজশাহী সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং কর্মচারী ইউনিয়নের পক্ষ থেকে পৃথকভাবে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়।
পুষ্পস্তবক অর্পণের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, তাঁর পরিবারের শহীদ সদস্যবৃন্দ, শহীদ এ.এইচ.এম কামারুজ্জামান সহ জাতীয় চার নেতা এবং মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদের আত্মার মাগফিরাত কামনায় দোয়া ও মোনাজাত করা হয়।
পুষ্পস্তবক অর্পণকালে রাসিকের প্যানেল মেয়র- ২ ও ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রজব আলী, জাতীয় পতাকা উত্তোলন উপ-কমিটির আহ্বায়ক ও ১১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রবিউল ইসলাম তজু, আলোচনা সভা ও ভাষণ প্রচার উপ-কমিটির আহ্বায়ক ১৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল মমিন, ভাষণ ও আবৃত্তি উপ-কমিটির আহ্বায়ক ও ১৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আনোয়ার হোসেন আনার, পুষ্পস্তবক অর্পণ উপ-কমিটির আহ্বায়ক ও ১৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর তৌহিদুল হক সুমন, ৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর কামাল হোসেন, ৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. কামরুজ্জামান, ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর এসএম মাহবুবুল হক পাভেল, ১৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুস সোবহান, ১৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর বেলাল আহমেদ, ১৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শহীদুল ইসলাম, ২০নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রবিউল ইসলাম, ২১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নিযাম উল আযীম, ২৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর তরিকুল আলম পল্টু, ২৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আকতারুজ্জামান, ২৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আশরাফুল হাসান বাচ্চু, ২৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাসুদ রানা, সংরক্ষিত নারী আসনের কাউন্সিলর আয়েশা খাতুন, মুসলিমা বেগম বেলী, মাজেদা বেগম, নাদিরা বেগম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
কর্মকর্তাদের মধ্যে রাসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. এবিএম শরীফ উদ্দিন, ভারপ্রাপ্ত সচিব আলমগীর কবির, প্রধান প্রকৌশলী শরিফুল ইসলাম, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী নুর ইসলাম তুষার, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা আবু সালেহ মোঃ নুর-ঈ-সাঈদ, প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা শেখ মোঃ মামুন, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ এফএএম আঞ্জুমান আরা বেগম, বাজেট কাম হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম খান সহ বিভিন্ন শাখা প্রধান ও কর্মকর্তাবৃন্দ, রাসিকের কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি দুলাল শেখ, সাধারণ সম্পাদক আজমির আহম্মেদ মামুনসহ সকল শাখার কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
দিবসটি উপলক্ষ্যে কর্মসূচির মধে আরো ছিল, সূর্যোদয়ের সাথে সাথে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, নগর ভবন সহ প্রতিটি ওয়ার্ড কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ প্রচার, আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল এবং ভাষণ ও আবৃত্তি প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ।
রাজশাহীতে মুক্তিযোদ্ধা নামীয় সংগঠন সমূহ কর্তৃক ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ ভাষণ দিবস পালন :
দিবসটির স্মরণে রাজশাহীতে মুক্তিযোদ্ধা নামীয় সকল সংগঠন যৌথ ভাবে কতিপয় গুরুত্বপূর্ণ কর্মসূচি গ্রহণ করে।
বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ: রাজশাহী জেলা ও মহানগর কমান্ড : ৭ই মার্চ ’৭১ ঐতিহাসিক ভাষণ দিবসটি যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপন উপলক্ষ্যে রোববার রাজশাহী জেলা ও মহানগর মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন মঞ্চ, ন্যাপ-ছাত্র ইউনিয়ন গেরিলা বাহিনী, বাংলাদেশ মুক্তিসংগ্রাম পরিষদ- মুক্তিযুদ্ধ ’৭১, সেক্টর কমান্ডার্স ফোরাম মুক্তিযুদ্ধ ’৭১ যৌথভাবে কতিপয় গুরুত্বপূর্ণ কর্মসূচী গ্রহণ করে।
প্রত্যুষে শহিদ কামারুজ্জামান চত্তরস্থ’; জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন শীর্ষে জাতীয় পতাকা ও সংগঠনের পতাকা উত্তোলন, সকাল ৮টায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ শহিদ জাতীয় ৪ নেতা যথাক্রমে সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহম্মদ, ক্যাপ্ট: এম. মুনছুর আলী ও এ.এইচ.এম. কামারুজ্জামান (হেনা ভাই) এর প্রতিকৃতি পুষ্পমাল্য অর্পণ, সকাল ১০টায় আলোচনা সভা ও দিনব্যাপী মাইকযোগে বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ ও মুক্তিযুদ্ধের গান প্রচার। সকাল ১০টায় জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কার্যালয়ে জেলা সাবেক ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার শাহাদুল হক মাষ্টারের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সাবেক প্রতিমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপিকা জিনাতুন নেছা তালুকদার, প্রধান বক্তা ছিলেন মহানগর সাবেক কমান্ডার ডা. আবদুল মান্নান। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন লেখক সাহিত্যিক ও কবি বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক রুহুল আমিন প্রামানিক, ন্যাপ নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা মোস্তাফিজুর রহমান খান আলম। বক্তব্য রাখেন মহানগর ইউনিটের সাবেক ডেপুটি কমান্ডারদ্বয় মোহাম্মদ আলী কামাল ও রবিউল ইসলাম, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন মঞ্চের নেতা হাকিম আতাউর রহমান, আবুল কালাম আজাদ, ন্যাপ-ছাত্র ইউনিয়ন গেরিলা বাহিনীর সমন্বায়ক এ্যাড. সাইদুল ইসলাম, সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের আবুল বাশার, মুক্তিযুদ্ধ ’৭১ নেতা কে.এম.এম. ইয়াছিন আলী মোল্লা, মুক্তিযোদ্ধার সন্তান রাসিকের প্যানেল মেয়ার-২ রজব আলী প্রমুখ। বাংলাদেশ মুক্তিসংগ্রাম পরিষদ- মুক্তিযুদ্ধ ’৭১ কানপাড়া ৭ই মার্চ ঐতিহাসিক ভাষণ দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন কল্পে কানপাড়ায় বাংলাদেশ মুক্তিসংগ্রাম পরিষদ মুক্তিযুদ্ধ ’৭১, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ যৌথভাবে কতিপয় কর্মসূচী পালন করে।
বাংলাদেশ মুক্তিসংগ্রাম পরিষদ-মুক্তিযুদ্ধ ’৭১ কানপাড়া: প্রত্যুষে কার্যালয়ে জাতীয় ও সংগঠনের পতাকা উত্তোলন, সকাল ৭টায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ শহীদ জাতীয় ৪ নেতার প্রতীকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ, সকাল ৯টায় আলোচনা সভা ও দিনব্যাপী মাইক যোগে বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ ও মুক্তিযুদ্ধের গান প্রচার। সকাল ৯টায় সংগঠনের সভাপতি সেনা অফিসার (অবঃ) বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল হাসান খন্দকারের সভাপতিত্বে এবং কানপাড়া আঞ্চলিক কমিটির সেক্রেটারী বীর মুক্তিযোদ্ধা তছের মাষ্টারের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগ নেতা স্থানীয় চেয়ারম্যান শমসের আলী, বীর মুক্তিযোদ্ধা খোদাবক্স, আ: হামিদ, অফিস সেক্রেটারী বীর মুক্তিযোদ্ধা ডা: ইয়াদ আলী এবং আওয়ামী লীগ নেতা মওলানা আমজাদ হোসেন প্রমুখ।
বাংলাদেশ আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা লীগ রাজশাহী জেলা ও মহানগর শাখা: বিভিন্ন কর্মসূচীর মাধ্যমে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ দিবসটি পালন করেছে বাংলাদেশ আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা লীগ রাজশাহী জেলা ও মহানগর শাখা। সকালে শিরইল রেলওয়ে সুপার মার্কেটস্থ অস্থায়ী কার্যালয়ে জাতীয় ও সংগঠনের পতাকা উত্তোলন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ জাতীয় শহীদ ৪ নেতার প্রতীককৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ ও সকাল ১১টায় আলোচনা সভা। জেলা সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এ্যাড: আবদুস সামাদের সভাপতিত্বে এবং মহানগর সেক্রেটারী আহম্মদ আলীর পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন- বীর মুক্তিযোদ্ধা যথাক্রমে আবুল কাশেম বিশ্বাস, আব্দুস সামাদ চৌধুরী, আবু সিদ্দিক খান, আনিছুর রহমান ও মোজাম্মেল হক (রাকাব) প্রমুখ।
রাজশাহীর স্থানীয় প্রশাসন : সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনায় এদিন সূর্যোদয়ের সাথে সাথে সকল সরকারি, বেসরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান ও সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়।
সকাল নয় টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমি চত্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পণ করা হয়। করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) এর প্রাদুর্ভাব ও বিস্তারের কারণে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে দিবসটি উদযাপনের লক্ষ্যে সরকারি নির্দেশনার আলোকে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণপূর্বক সাড়ে নয় টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমি অডিটোরিয়ামে ‘৭ মার্চ : স্বাধীনতার জীয়নকাঠি’ শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
রাজশাহী জেলা প্রশাসক আব্দুল জলিলের সভাপতিত্বে সভায় বিভাগীয় কমিশনার ড. হুমায়ুন কবীর প্রধান অতিথি উপস্থিত হিসেবে ছিলেন। এছাড়া রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশ (আরএমপি)’র কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক, রাজশাহী রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি জয়দেব কুমার ভদ্র, পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসাইন ও বীর মুক্তিযোদ্ধা শফিকুর রহমান রাজা বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন। সভায় বক্তাগণ ঐতিহাসিক ৭ মার্চের গুরুত্ব ও তাৎপর্য তুলে ধরে বক্তৃতা প্রদান করেন।
বক্তাগণ বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ বিশ^নন্দিত অলিখিত ভাষণের মাধ্যমে বাঙালির হৃদয়-স্পন্দনে প্রবেশ করেছিলেন। তিনি জনতার মনের ভাষা বুঝতে পেরেছিলেন। তাই তিনি বলেছিলেন, এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম আমাদের স্বাধীনতার সংগ্রাম।
তারা বলেন, বঙ্গবন্ধু এ দিন স্বাধীনতার ডাক দিয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, তোমরা ঘরে ঘরে দূর্গ গড়ে তোল, যার যা কিছু আছে তাই নিয়ে শত্রুর মোকাবেলা করতে হবে। বঙ্গবন্ধুর ডাকেই বাংলার জনতা মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল। বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণে উদ্বুদ্ধ বাঙালি জাতি পাকিস্তানি শত্রুদের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে ছিনিয়ে আনে লাল-সবুজের পতাকা।
তারা বলেন, বঙ্গবন্ধুর রাজনীতি বিলাশবহুল গাড়িতে ছিল না, তাঁর রাজনীতি ছিল মাঠে-ঘাটে জনতার সাথে একাত্ম হয়ে। তিনি জনতাকে আগুনের মুখে রেখে পালিয়ে যেতে চাননি। তিনি বাংলার মানুষের ন্যায্য দাবি আদায়ে ছিলেন দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। সে কারণে বঙ্গবন্ধুর উপর জনগণের বিশ্বাস ছিল অপরিসীম। ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধু রেসকোর্স ময়দানে ১০ লক্ষ জনতাকে জিজ্ঞেস করেছিল আমার উপর তোমাদের বিশ্বাস আছে, সবাই একযোগে বলেছিল হ্যাঁ আছে।
সভাশেষে রাজশাহী জেলা শিল্পকলা একাডেমি ও বাংলাদেশ শিশু একাডেমিতে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী ছয়জনকে সনদ ও পুরস্কার তুলে দেয়া হয়।
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় : রাবি প্রতিবেদক জানান, যথাযোগ্য মর্যাদায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্য দিবস ঐতিহাসিক ৭ মার্চ পালন করা হয়েছে। গতকাল রোববার দিবসটি উপলক্ষে উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহানের নেতৃত্বে শোভাযাত্রাসহ সকাল ৯ টা ২০ মিনিটে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন প্রশাসনের ঊর্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ।
এদিন বেলা ১০টায় শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ সিনেট ভবনে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা। উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহানের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান আলোচক ছিলেন রাকসুর সাবেক সহ-সভাপতি ও বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ নুরুল ইসলাম ঠান্ডু। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে ৭ মার্চ উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক উপ-উপাচার্য অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা, উপ-উপাচার্য অধ্যাপক চৌধুরী মো. জাকারিয়া, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক এ কে এম মোস্তাফিজুর রহমান আল-আরিফ প্রমুখ বক্তব্য দেন। রেজিস্ট্রার অধ্যাপক মো. আবদুস সালাম অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন।
অনুষ্ঠানে আলোচকগণ বলেন, ঐতিহাসিক ৭ মার্চ বাঙালি জাতির মুক্তি-সংগ্রামের এক অবিচ্ছেদ্য তারিখ। ১৯৭১ সালের এই দিনে ঢাকার রেসকোর্স ময়দানের জনসমুদ্রে দাঁড়িয়ে বঙ্গবন্ধু যে ঐতিহাসিক ভাষণের মাধ্যমে স্বাধীনতার ডাক ও মুক্তিযুদ্ধের দিকনির্দেশনা দিয়েছিলেন তা আজ ইউনেস্কো কর্তৃক বিশ্ব প্রমাণ্য ঐতিহ্যের স্বীকৃতি লাভ করেছে। সেই বজ্রকণ্ঠের ডাকেই শুরু হয়ে যায় মুক্তিযুদ্ধের চূড়ান্ত পর্বের প্রস্তুতি আর নির্ধারিত হয় সর্বস্তরের মুক্তিকামী মানুষের চূড়ান্ত লক্ষ্য। ৩০ লাখ বাঙালির রক্তে, ২ লাখ মা-বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীনতার যে বিজয় মুকুট পরেছে বাংলাদেশ, তার চূড়ান্ত রূপরেখা নির্ধারিত হয়েছিল সেই ভাষণে।
অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচক নুরুল ইসলাম ঠান্ডুকে স্মারক ক্রেস্ট প্রদান ও বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক মলয় ভৌমিককে সংবর্ধিত করা হয়।
দিবসটি উপলক্ষে কর্মসূচিতে আরো রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় স্কুল এবং শেখ রাসেল মডেল স্কুলের শিক্ষার্থীদের জন্য অনলাইন রচনা ও ৭ মার্চের ভাষণ প্রতিযোগিতা। এদিন বিকেলে শহীদ মিনারে আলোচনা সভার আয়োজন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।
নর্থ বেঙ্গল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি : নর্থ বেঙ্গল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে নানা কর্মসূচির মধ্যদিয়ে ‘ঐতিহাসিক ৭ মার্চ’ উদ্যাপন করা হয়েছে। সকালে বিশ^বিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন এবং বেলা ১১ টায় রাজশাহী নগরীর আলুপট্টিস্থ একাডেমিক ভবনের কনফারেন্স রুমে স্বাস্থ্যবিধি মেনে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন ইউনিভার্সিটির ট্রাস্টিবোর্ডের চেয়ারম্যান নারী উদ্যোক্তা, কবি কথাশিল্পী অধ্যাপক রাশেদা খালেক। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান অসম্ভব শক্তির ভিতর থেকে ৭ মার্চের ভাষণ দিয়েছেন। বর্তমান বাংলাদেশের যে অর্জন তা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর কন্যা শেখ হাসিনার অবদানের প্রতিফলন। শিক্ষা, অর্থনৈতিক, সামাজিক, রাজনীতিসহ সকল ক্ষেত্রে বাংলাদেশ এগিয়ে চলেছে বলে অভিমত দেন তিনি। ইউনিভার্সিটির উপাচার্য বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ প্রফেসর ড. আবদুল খালেক সভাপতির বক্তব্যে বলেন, ইতিহাসের সত্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ই মার্চের ভাষণ। যার ফলশ্রুতিতে আজ আমরা স্বাধীন দেশের নাগরিক। বাংলাদেশ এখন সর্বক্ষেত্রে উন্নয়নে এগিয়ে যাচ্ছে। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক জোনাব আলী, প্রক্টর ড. আজিবার রহমান, সহকারী প্রক্টর আব্দুল কুদ্দুস, আইন বিভাগের কো-অর্ডিনেটর ড. নাসরিন লুবনা। সভায় ইউনিভার্সিটির রেজিস্ট্রার, বিভিন্ন বিভাগের কো-অর্ডিনেটর, শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ছাত্রকল্যাণ উপদেষ্টা হাসান ঈমাম সুইট।
রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক : জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-এর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণের দিবসটিকে যথাযোগ্য মর্যাদায় স্মরণ করে বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের উদ্দেশ্যে ৭ মার্চ ২০২১ রবিবার বেলা ১২:৩০ টায় বনলতা বাণিজ্যিক এলাকাস্থ রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের প্রধান কার্যালয় চত্ত্বরে অবস্থিত বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ এবং পরবর্তীতে বঙ্গবন্ধু অঙ্গনে অবস্থিত বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য প্রদান করেন ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইসমাইল হোসেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন মহাবস্থাপক (নিরীক্ষা, হিসাব ও আদায়) কামিল বুরহান ফিরদৌস, রাকাব কর্মচারী সংসদ সিবিএ’র সভাপতি এস এম আব্দুল হান্নান এবং সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম ফজলে রাব্বী সহ আরো উপস্থিত ছিলেন সহঃ সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল হক নিজামী, অর্থ সম্পাদক হাবিবুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক মিঠুন রায়, দপ্তর সম্পাদক আনোয়ার সাদাৎ, এছাড়া প্রধান কার্যালয়ের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ এ সময় উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান শেষে বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবার এবং জাতীয় চার নেতাসহ স্বাধীনতা সংগ্রামে জীবন উৎসর্গকারী লাখো শহীদের ও একই সাথে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণকারী ব্যাংক কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত পরিচালনা করা হয়।
রাজশাহী শিক্ষা বোর্ড : ৭ই মার্চের বঙ্গবন্ধু’র ঐতিহাসিক ভাষণের দিনটিকে রাজশাহী শিক্ষা বোর্ড পরিবার শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছে। এ উপলক্ষ্যে রাজশাহী শিক্ষা বোর্ড বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। সুর্যোদয়ের সাথে সাথে রাজশাহী শিক্ষা বোর্ড ভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, সকাল ০৮.৩০ টায় শিক্ষা বোর্ড চত্ত্বর অবস্থিত বঙ্গবন্ধ’ুর প্রতিকৃতিতে কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের পুষ্পস্তবক অর্পণ, সকাল ০৮.৪৫ টায় বঙ্গবন্ধুর ভাষণ প্রচার এবং সকাল ০৯.০০ টায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর “ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ” এর তাৎপর্য সম্পর্কে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মোহা. মোকবুল হোসেন, সচিব ড. মো: মোয়াজ্জেম হোসেন, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক আরিফুল ইসলাম, কলেজ পরিদর্শক প্রফেসর মো: হাবিবুর রহমান, বিদ্যালয় পরিদর্শক প্রফেসর দেবাশীষ রঞ্জন রায়, উপ-পরিচালক (হিসাব ও নিরীক্ষা) বাদশা হোসেন, রাজশাহী শিক্ষা বোর্ড অফিসার্স কল্যাণ সমিতির সভাপতি ও উপ-বিদ্যালয় পরিদর্শক মুঞ্জুর রহমান খান এবং মহাসচিব, বাংলাদেশ আন্তঃ শিক্ষা বোর্ড কর্মচারী ফেডারেশন ও কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি হুমায়ুন কবীর (লালু)। অনুষ্ঠান সঞ্চালকের দায়িত্বে ছিলেন বোর্ডের উপ-বিদ্যালয় পরিদর্শক মুঞ্জুর রহমান খান।
অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের কলেজ পরিদর্শক প্রফেসর মো: হাবিবুর রহমান। তার স্বাগত বক্তব্য দিয়ে আলোচনা সভা শুরু হয়। সভায় আরও বক্তব্য রাখেন সচিব ড. মো: মোয়াজ্জেম হোসেন, বিদ্যালয় পরিদর্শক প্রফেসর দেবাশীষ রঞ্জন রায়, উপ-পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক হোসনে আরা আরজু, প্রোগ্রামার মামুন অর রশিদ এবং মহাসচিব, বাংলাদেশ আন্তঃ শিক্ষা বোর্ড কর্মচারী ফেডারেশন ও কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি হুমায়ুন কবীর (লালু)।
প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মোহা. মোকবুল হোসেন। তিনি বলেন, “জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ বাঙালির স্বাধীনতা-মুক্তি ও জাতীয়তাবোধ জাগরণের মহাকাব্য। বাঙালি তথা বিশ্বের সব লাঞ্ছিত-বঞ্চিত নিপীড়িত-নির্যাতিত মানুষের মুক্তির সনদ।
র‌্যাব-৫ এর আনন্দ উদযাপন : ঐতিহাসিক ৭ মার্চ দিবস উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠান এবং বাংলাদেশ এলডিসি থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণে জাতিসংঘের চূড়ান্ত সুপারিশ প্রাপ্তিতে র‌্যাব-৫ রাজশাহীর উদ্যোগে আনন্দ উদযাপন অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার বিকেলে র‌্যাব-৫ এর কার্যালয়ে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। অনুষ্ঠানে র‌্যাব-৫ রাজশাহীর অধিনায়ক লে. কর্ণেল মো. আব্দুল মোত্তাকিম বক্তব্য দেন। প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণটি আজকে জাতীয়ভাবে সারাদেশে উদযাপিত হচ্ছে, এটি আমাদের জন্য, দেশবাসীর জন্য অত্যন্ত আনন্দের একটি বিষয়। ৭ই মার্চ বাংলাদেশের জাতিসত্তা গঠনের চূড়ান্ত ধাপ। বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণের অনুপ্রেরণায় যুদ্ধে লিপ্ত হয়ে বাঙালি জাতি বিজয় অর্জন করেছে। বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে যুদ্ধে দেশপ্রেম ও আত্মত্যাগের চেতনায় আমরা বিজয়ী হয়েছি। অনুষ্ঠানের র‌্যাবের প্রশংসা করে রাসিক মেয়র বলেন, দেশে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ দমন এবং সাইবার ক্রাইম কমানোর ক্ষেত্রে র‌্যাবের ভুমিকা অত্যন্ত প্রশংসনীয়। র‌্যাবের ভূমিকার কারণে বাংলাদেশ আরো এগিয়ে যাবে এই প্রত্যাশা করি। অনুষ্ঠানে র‌্যাব-৫ রাজশাহীর উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানের শুরুতে আনন্দ উদযাপনে কেক কাটা হয় এবং পরে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।
রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশ : আরএমপিতে উদযাপিত হলো উন্নয়ণশীল দেশে উত্তরণের দুর্দান্ত অর্জন। বাংলাদেশ এলডিসি (স্বল্পোন্নত) দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে জাতিসংঘের চূড়ান্ত সুপারিশ প্রাপ্তিতে বাংলাদেশ পুলিশ দেশবাসীর সাথে সম্মেলিতভাবে উদযাপন করলো “আনন্দ উদযাপন ০৭ মার্চ ২০২১’’ এরই ধারাবাহিকতা বোয়ালিয়া মডেল থানা রোববার বিকেল ৩টায় রাজশাহী কলেজ শহিদ মিনার প্রাঙ্গনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর ঐতিহাসিক ভাষণ ও বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা অর্জনে “আনন্দ উদযাপন ০৭ মার্চ ২০২১’’ উপলক্ষে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।
সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে “আনন্দ উদযাপন ০৭ মার্চ ২০২১” অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন। অনুষ্ঠানে সভাপতি ও প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক। তিনি তার বক্তব্যে আরো বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত বাংলাদেশ গড়ার লক্ষে ডেল্ট্রা প্লান গ্রহণ করেছেন এবং আইজিপি মহোদয় উন্নত বিশ্বের পুলিশের আদোলে বাংলাদেশ পুলিশকে গড়ে তোলার চেষ্টা করছেন।
আনন্দ উদযাপন অনুষ্ঠান উপলক্ষে রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের প্রতিটি থানায় একযোগে আলোচনা সভা ও প্রমাণ্য চিত্র প্রদর্শনের আয়োজন করে।
একই সময় রাজপাড়া থানার আয়োজনে উপ-পুলিশ কমিশনার (সদর) রশীদুল হাসান, পিপিএম এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাংসদ ফজলে হোসেন বাদশা, পবা থানার আয়োজনে অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম এন্ড অপারেশন) মজিদ আলী বিপিএম এর সভাপতিত্বে এবং এয়ারপোর্ট থানার আয়োজনে উপ-পুলিশ কমিশনার (এস্টেট ও উন্নয়ন) মুহম্মদ আব্দুর রকিব পিপিএম এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাংসদ আয়েন উদ্দিন, চন্দ্রিমা থানা পুলিশের আয়োজনে অফিসার ইনচার্জ এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেনউপ-পুলিশ কমিশনার (সরবরাহ) সাইফুদ্দিন শাহীন, মতিহার থানার আয়োজনে অফিসার ইনচার্জ এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপ-পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) অনির্বান চাকমা,, কাটাখালী থানা পুলিশের আয়োজনে অফিসার ইনচার্জ এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপ-পুলিশ কমিশনার (মতিহার বিভাগ) বিভূতি ভুষন বানার্জী, বেলপুকুর থানা পুলিশের আয়োজনে অফিসার ইনচার্জ এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপ-পুলিশ কমিশনার (পিওএম) আবু আহাম্মদ আল মামুন, শাহমখদুম থানা পুলিশের আয়োজনে অফিসার ইনচার্জ এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপ-পুলিশ কমিশনার (শাহমখদুম) মুহাম্মদ সাইফুল ইসলাম,ও এ এফ এম আনজুমান কামাল, বিপিএম (বার), উপ-পুলিশ কমিশনার (সিটিএসবি), কাশিয়াডাঙ্গা থানা পুলিশের আয়োজনে অফিসার ইনচার্জ এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপ-পুলিশ কমিশনার (কাশিয়াডাঙ্গা বিভাগ), মনিরুল ইসলাম, কর্ণহার থানা পুলিশের আয়োজনে অফিসার ইনচার্জ এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিবি) আরেফিন জুয়েল, এবং দামকুড়া থানা পুলিশের আয়োজনে অফিসার ইনচার্জ এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, উপ-পুলিশ কমিশনার (প্রসিকিউশন ) মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম। আনন্দ উদযাপন অনুষ্ঠান উপলক্ষে আলোচনা সভা ও প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন শেষে বোয়ালিয়া মডেল থানার আয়োজনে রাজশাহী কলেজ শহিদ মিনার প্রাঙ্গনে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।
বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় : বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজলা ভবন প্রাঙ্গনে বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার ড. মো. মহিউদ্দীনের নেতৃত্বে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্যে দিয়ে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উদযাপন শুরু হয়। এরপর কাজলা ভবনের সেমিনার কক্ষে জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও আলোচনা পর্বের আয়োজন করা হয়। আলোচনায় অংশ নেন অর্থনীতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আতাউল গনি ওসমানি, আইন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক রাবিতা রেজওয়ানা এবং রেজিস্ট্রার ড. মো. মহিউদ্দীন। সে সময় উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক ও কর্মকর্তাবৃন্দ।
জেলা যুবলীগ : ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ উপলক্ষে রাজশাহী জেলা যুবলীগ সারাদিন ব্যাপী কর্মসূচি পালন করে। সকাল ১০ টায় লক্ষীপুরস্থ বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাজ্ঞলি নিবেদন করে কর্মসূচির সুচনা হয়।
জেলা যুবলীগ : সকাল সাড়ে দশটায় রাজশাহী জেলা যুবলীগের কার্য-নির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্টিত হয়।সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা যুবলীগের সভাপতি মোঃ আবু সালেহ্, সভা পরিচালনা করেন ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আলী আজম সেন্টু। সভায় বক্তব্য রাখেন দুর্গাপুর উপজেলার সাধারণ সম্পাদক সালিম উদ্দিন, সভাপতি শফিকুল ইসলাম মিঠু, গোদাগাড়ী পৌর যুবলীগের সভাপতি আধ্যাপক আকবর আলী, সাধারণ সম্পাদক আবদুল্লাহ, গোদাগাড়ী উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুদ পারভেজ বিপ্লব, পুঠিয়া উপজেলা যুবলীগের সভাপতি রবিউল ইসলাম রবি, সাধারণ সম্পাদক সুমনউজ্জামান সুমন, তানোর উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক যুবায়ের ইসলাম, পবা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক তৌফিকুল ইসলাম তৌফিক, জেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি আরিফুল ইসলাম রাজা, সাংগঠনিক সম্পাদক ওয়াসীম রেজা লিটন, মোবারক হোসেন মিলন, সামাউন ইসলাম, মাসুম আল রশীদ, সেজানুর রহমান, প্রচার-সম্পাদক ইঞ্জিঃ রফিকুরজ্জামান, দপ্তর-সম্পাদক মিজানুর রহমান পল্লব। এরপর বিকাল তিনটায় ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের আলোচলা সভা অনুষ্টিত হয়। সেখানে বক্তব্য রাখেন জেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি বেলাল হোসেন সরকার, মাহমুদ হাসান ফয়সল, মোজাহিদুল ইসলাম মানিক, সাংগঠনিক সম্পাদক মোবারক হোসেন মিলন। সভায় সভাপতির সমাপনী বক্তব্যর মধ্য দিয়ে কর্মসূচির সমাপ্তি ঘোষণা করেন সংগঠনের সভাপতি আবু সালেহ। সভায় রাজশাহী জেলা যুবলীগের সকল নেতাকর্মীর উপস্থিতিতে জাতির পিতার স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করা হয়।
রাজশাহী কলেজ: রাজশাহী কলেজে বিভিন্ন কর্মসূচি পালনের মধ্য দিয়ে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে বক্তৃতা প্রতিযোগিতা, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। রোববার সকাল ১০ টায় বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে দিনের কর্মসূচি শুরু হয়। এরপর কলেজ মিলনায়তনে বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ- বিশ্ব প্রমাণ্য ঐতিহ্য: আমাদের অহঙ্কার, আমাদের গর্ব শীর্ষক আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
সভাপতির বক্তব্যে অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর আব্দুল খালেক বলেন, একটি ভাষণ একটি জাতির মুক্তির সনদ হতে পারে। একটি ভাষণ যে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ার অনুপ্রেরণা লাভ করতে পারে তার জ¦লন্ত প্রমাণ বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ। এ ভাষণের মর্মার্থ ও তাৎপর্য আমাদের অনুধাবন করতে হবে। এসময় বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়ে তুলতে উপস্থিত সকলের প্রতি আহ্বানও জানান তিনি।
এসময় বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. নওশের আলী বলেন, যুদ্ধের সময় বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ শুনে মুক্তিযোদ্ধারা উদ্দীপ্ত হতো। এই ভাষণের পর থেকেই সব ধরনের আন্দোলন স্বাধীনতা আন্দোলনে রূপ নেয়। অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে কলেজ শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক প্রফেসর আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক কমিটির আহ্বায়ক প্রফেসর ড. মো. ইব্রাহিম আলী, মূখ্য আলোচক ড. মো. আব্দুল মতিনসহ বিভিন্ন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ও শিক্ষকরা উপস্থিত ছিলেন।
বাউয়েট: ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ দিবস উদযাপন উপলক্ষে প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শনী করা হয়েছে। রোববার (৭ মার্চ) সকাল ১১টায় বাংলাদেশ আর্মি ইউনিভার্সিটি অব ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি (বাউয়েট) ক্যাম্পাসের স্কাইলাইট হলে এর আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. মোস্তফা কামাল।
উপস্থিত ছিলেন- বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ কর্ণেল (অব.) মোহাম্মাদ হামিদুল হক, পিএসসি, বিভাগীয় প্রধানগণ, প্রক্টর, কর্মকর্তা ও কর্মচারীগণ। অনুষ্ঠানের উপস্থাপনা করেন, সমাজবিজ্ঞান বিভাগের সিনিয়ার প্রভাষক ও ছাত্র কল্যাণ উপদেষ্টা মো. আল আমিন। এছাড়া দিবসটি উদযাপন উপলক্ষে সূর্যোদয়ের সাথে সাথে জাতীয় পতাকা উত্তোলন এবং অনলাইনে রচনা প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়।
নিউ গভ. ডিগ্রী কলেজ : রোববার সকাল ১০:৩০ টায় নিউ গভঃ ডিগ্রী কলেজ অডিটোরিয়ামে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত ও পবিত্র গীতা পাঠের মাধ্যমে ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ উপলক্ষে প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. মোসা. আবেদা সুলতানা। আরো বক্তব্য রাখেন বাংলা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ও শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক, প্রফেসর মো: কামরুজ্জামান, দর্শন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর মো: ফাহমিদ হাসিব, আহ্বায়ক ৭ই মার্চ ও ১৭ই মার্চ উদ্যাপন কমিটি, মুজিব শতবর্ষ উদ্যাপন কমিটির আহ্বায়ক ড. বিপ্লব কুমার মজুমদার, বিভাগীয় প্রধান, ব্যবস্থাপনা বিভাগ। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা শ্রী শক্তি কুমার প্রাং। বীর মুক্তিযোদ্ধা তাঁর স্মৃতিচারণমূলক বক্তব্যে বাঙালি জাতির সাংস্কৃতিক ঐক্যের প্রতি গুরুত্ব আরোপ করেন। অনুষ্ঠানে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ড. মো: মজিদুল হক এবং আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন প্রাণিবিদ্যা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ড. মো: সাইয়েদুর রহমান। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. মোসাঃ আবেদা সুলতানা। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন ইংরেজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো: আতাউর রহমান এবং বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক নিলুফার সুলতানা।
রাজশাহী প্রেসক্লাব: ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ রাজধানীর রেসকোর্স ময়দানে (বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দেয়া ঐতিহাসিক ভাষণকে ধারণ করেই লুটপাট বন্ধের শপথ নেয়ার আহবান জানিয়েছে আতাউর রহমান স্মৃতি পরিষদ ও রাজশাহী প্রেসক্লাব। রোববার (৭ মার্চ) বিকাল ৪ টায় নগরীর সাহেব বাজার জিরো পয়েন্ট প্রেসক্লাব মিলনায়তনে ঐতিহাসিক ভাষণের দিনটিক যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করতে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় বক্তারা এ আহবান জানান।
অরাজনৈতিক স্বেচ্ছাসেবী সামাজিক সংগঠন ‘বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ চাই’র সহযোগিতায় আয়োজিত এ সভায় সভাপতিত্ব করেন রাজশাহী প্রেসক্লাব ও জননেতা আতাউর রহমান স্মৃতি পরিষদ সভাপতি সাইদুর রহমান। সাধারণ সম্পাদক আসলাম-উদ-দৌলার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত এ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন, রাজশাহী প্রেসক্লাবের আজীবন সদস্য বিশিষ্ট কলামিস্ট বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রশান্ত কুমার সাহা। প্রধান আলোচক হিসেবে বক্তব্য দেন, রাজশাহী প্রেসক্লাবের আজীবন সদস্য গোলাম সারওয়ার। এসময় অন্যান্যের মাঝে বক্তব্য দেন, জননেতা আতাউর রহমান স্মৃতি পরিষদের সহ-সভাপতি সালাউদ্দীন মিন্টু, সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুল হক দুখু, প্রচার সম্পাদক আমানুল্লাহ আমান প্রমুখ।
এদিনের আলোচনা সভায় শহীদ পরিবারের সদস্য ডা. রোকনুজ্জামান রিপন, জননেতা আতাউর রহমান স্মৃতি পরিষদের সদস্য আব্দুল মাজেদ, রাকিবুল হাসান শুভ, সাগর নোমানী, আরিফুল ইসলাম, আইয়ুব আলী তালুকদার, হানিফ চৌধুরীসহ আরো অনেকে উপস্থিত ছিলেন।
তানোর : তানোর উপজেলা আওয়ামী লীগ কর্তৃক আয়োজিত ঐতিহাসিক ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর ভাষণ দিবস পালন উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন তানোর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম রাব্বানী। সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোহাঃ আসাদুজ্জামান আসাদ। সভা পরিচালনা করেন তানোর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রাকিবুল সরকার পাপুল।
ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর কালচারাল একাডেমি: রাজশাহী বিভাগীয় ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর কালচারাল একাডেমির উদ্যোগে রোববার দিনব্যাপি নানা আয়োজনে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ দিবস পালন করা হয়। সুর্যোদয়ের সাথে সাথে অফিসে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, একাডেমির উপপরিচালক কামরুজ্জামানের নেতৃত্বে শিল্পকলা একাডেমিতে অস্থায়ীভাবে নির্মিত জাতীর জনক বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তব অর্পন, বঙ্গবন্ধুর ভাষন প্রচার চিত্রাঙ্কন ও আবৃতি প্রতিযোগিতা করা হয়।
পরে অনলাইনে আলোচনা সভায় যোগ দেন, একাডেমির নির্বাহী কমিটির সদস্য যোগেন্দ্রনাথ সরেন, কামেল মারান্ডী, চিত্তরঞ্জন সরদার, একাডেমির গবেষণা কর্মকর্তা বেনজামিন টুডু ও সংগীত প্রশিক্ষক কবীর আহম্মেদ বিন্দু। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন, সংগীত প্রশিক্ষক মানুয়েল সরেন।
বাঘা : বাঘা প্রতিনিধি জানান, রাজশাহীর বাঘায় ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষে জাতীর পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষণ এবং কৃতি শিক্ষার্থীদের স্মারক প্রদান ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার (৭ মার্চ) সকালে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পাপিয়া সালতানার সভাপতিত্বে আয়োজিত সভায় বিশেষ অতিথি হিসেব বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আ.লীগের যুগ্ম সম্পাদক এ্যাড: লায়েব উদ্দিন লাভলু, জেলা আ.লীগের সদস্য ও বাঘা পৌরসভার সাবেক মেয়র আক্কাছ আলী, বাঘা থানার ওসি নজরুল ইসলাম, উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম বাবুল, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম মন্টু, অধ্যক্ষ নছিম উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক ওয়াহেদ সাদিক কবির, সদস্য মাসুদ রানা তিলু, বাঘা পৌরসভার প্যানেল মেয়র শাহিনুর রহমান পিন্টু, উপজেলা মহিলা আ’লীগের সভানেত্রী ফাতেমা মাসুদ লতা।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাঘা পৌর আ’লীগের সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস সরকার, সাধারণ সম্পাদক মামুন হোসেন, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হোসেন, আড়ানী পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি রিবন আহম্মেদ বাপ্পি।
আলোচনা শেষে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চ এর ভাষন প্রতিযোগিতা ও কৃতি শিক্ষার্থীর হাতে সম্মাননা ক্রেস্ট ও পুরস্কার তুলে দেয়া হয়।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ : চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, চাঁপাইনবাবগঞ্জে বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যে দিয়ে যথাযোগ্য মর্যাদায় ঐতিহাসিক ৭ মার্চ পালিত হয়েছে। রোববার সকাল সাড়ে ৯টায় জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) একেএম তাজকির-উজ-জামান জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পন করেন। পরে, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজ, সরকারি মহিলা কলেজ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভা, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর, সড়ক ও জনপথ, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর, পানি উন্নয়ন বোর্ড, বন বিভাগ, জেলা আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষাবাহিনী, ইসলামিক ফাউন্ডেশন, জেলা কারাগার, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স, আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস, জেলা সমবায় দপ্তর, চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রধান ডাকঘর, জেলা শিল্পকলা একাডেমি, চাঁপাইনবাবগঞ্জ চেম্বারসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এদিকে, জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে পুলিশ সুপার এ এইচ এম আবদুর রকিব জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পন করেন। এসময় রাষ্ট্রীয় সালাম প্রদান করা হয়। অপরদিকে, সকালে দিবসটি উপলক্ষে দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্যদিয়ে আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠন দিনের কর্মসূচী পালন করে। পরে, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মোঃ রহুল আমিন, সাধারণ সম্পাদক সাবেক এমপি আব্দুল ওদুদ এর নেতৃত্বে আ’লীগসহ বিভিন্ন অঙ্গসংগঠন জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ডা. গোলাম রাব্বানী, সদর উপজেলা আ.লীগের সভাপতি মো. আজিজুর রহমান, পৌর আ.লীগের সভাপতি অধ্যাপক শরিফুল আলম, সহ-সভাপতি মো. মোখলেসুর রহমান।
খাদেমুল ইসলাম বালিকা বিদ্যালয় ও কলেজ : সূর্যোদয়ের সাথে সাথে প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা উত্তোলন এবং সকাল ৮:০০ ঘটিকায় কুমারপাড়াস্থ স্বাধীনতা চত্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পন করা হয়। সকাল ১০:০০ টায় জাতীয় সংগীত পরিবেশনার মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু’র ৭ই মার্চের ভাষণ দিবসব্যাপী প্রচারের উদ্বোধন করা হয়। অত:পর ১০:৩০ টায় ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণের গুরুত্ব এবং তাৎপর্য বিশ্লেষণ করে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় উপস্থিত ছিলেন গভর্নিং বডির সভাপতি এবং মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক এ্যাড মো. আব্দুল হাদী। সভাপতিত্ব করেন প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ রণজিৎ কুমার সাহা।
এছাড়াও বক্তব্য রাখেন প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ রণজিৎ কুমার সাহা, সহকারী প্রধান শিক্ষক রতন কুমার মন্ডল, সহকারী অধ্যাপক শিরীনা পারভীন, সহকারী অধ্যাপক শাহনাজ সুলতানা প্রমুখ।
মেট্রোপলিটন কলেজ : মেট্রোপলিটন কলেজ মিলনায়তনে “ঐতিহাসিক ৭ইি মার্চ” উপলক্ষে অনলাইনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রদত্ত ৭মার্চের ভাষণ প্রচার এবং আলাচনা অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত ভার্চ্যুয়াল অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কলেজ অধ্যক্ষ সাইফুর রহমান।
নওগাঁ: রোববার নওগাঁয় নানা কর্মসূচির মধ্যে দিয়ে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উদযাপন করা হয়েছে। বিভিন্ন সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত, বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও সদস্যরা স্বতঃস্ফুর্তভাবে এসব কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেন। এ সময় খাদ্য মন্ত্রনালয়ের পক্ষ থেকে খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার এমপি এং সদর উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে উপজেলা পরিষদের উপদেষ্টা সদর আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিষ্টার নিজাম উদ্দিন জলিল জন জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করেন। পরে জেলা প্রশাসনের পক্ষে জেলা প্রশাসক হারুন-অর-রশিদ, জেলা পুলিশের পক্ষে ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার রকিবুল আকতারসহ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, জেলা পরিষদ, পৌরসভা, মেডিকেল কলেজ, জেলা প্রেসক্লাব, সিভিল সার্জন, হাসপাতালসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করেন। জেলা প্রশাসনের কর্মসূচির মধ্যে সদর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে আলোচনা সভা, পুরস্কার বিতরণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অপরদিকে, জেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে দলীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে জাতীয় পতাকা ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ জাতীয় চার নেতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়। পরে সেখানে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।
বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমি : বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমির আয়োজনে ৭ মার্চ উদযাপিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ জাতীয় দিবস হিসেবে যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপন করেছে বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমি সারদা। (৭ মার্চ) রোববার পুলিশ একাডেমী সারদায় চেমনি মেমোরিয়াল হলে বিকেল তিনটায় আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। এর আগে সকাল ৯ টায় বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধার্ঘ্য নিবেদন করা হয়। একাডেমির ভাইস প্রিন্সিপাল এসএম আক্তারুজ্জামানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় সঞ্চলনা করেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শামসুল আজম। সভায় পুলিশ একাডেমির উর্দ্ধতন কর্মকর্তা ও পুলিশ সদস্যরা বক্তব্য রাখেন।
রাজশাহী সরকারি মহিলা কলেজ : দিবস-২০২১ উদ্যাপন উপলক্ষে সকাল ৯টায় র‌্যালি কলেজের সূবর্ণজয়ন্তী স্মৃতি চত্বর থেকে কলেজের শহিদ মিনারে এসে শেষ হয়। বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়। সকাল ৯:৩০ টায় জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন, ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ অনলাইন এবং মাইকের মাধ্যমে প্রচার, প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন, আলোচনা অনুষ্ঠান এবং পুরস্কার বিতরণ সম্পন্ন করা হয়। এ অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. জুবাইদা আয়েশা সিদ্দীকা প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলাম এবং শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন মোল্লা। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনায় ছিলেন বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আলমাছ উদ্দিন।
দুর্গাপুর : দুর্গাপুর প্রতিনিধি জানান, সারা দেশের সকল থানার ন্যায় রাজশাহীর দুর্গাপুর থানা পুলিশ আয়োজিত অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন দুর্গাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ হাশমত আলী। এস আই জিলালুর রহমান জিলালের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন রাজশাহী জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) ইফতে খায়ের আলম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা নজরুল ইসলাম, পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন, নারী ভাইস চেয়ারম্যান বানেছা বেগম, আব্দুল মোতালেব মোল্লা, জেলা পরিষদের সদস্য ও দুর্গাপুর পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মান্নান ফিরোজ, পানানগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আজাহার আলী খাঁ, ঝালুকা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোজাহার আলী, জয়নগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শমসের আলী, দেলুয়াবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রিয়াজুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আব্দুর রাজ্জাক, আওয়ামী লীগ নেতা আমিনুল হক টুলু, উপজেলা কৃষকলীগের সাধারন সম্পাদক গোলাপ হোসেন, সাংবাদিক নেতা মোবারক হোসেন শিশির, রবিউল ইসলাম রবি, মিজান মাহী, এস এম শাহাজামাল প্রমুখ।
বাগমারা : বাগমারা প্রতিনিধি জানান, বাংলাদেশ পুলিশ রাজশাহীর বাগমারা থানা পুলিশের উদ্যোগে রোববার বিকেলে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ উদযাপন ও বাংলাদেশ এলডিসি থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরনে জাতিসংঘের চুড়ান্ত সুপারিশ প্রাপ্তিতে আনন্দ উদযাপন করা হয়। বাগমারা থানা চত্বরে আয়োজিত ৭ই মার্চের অনুষ্ঠানে রাজশাহী রেঞ্জের ডিআইজি আব্দুল বাতেন বিপিএম, পিপিএম প্রধান অতিথি হিসেবে কেক কাটার মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা করেন। জেলা পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন, বিপিএম, বার এর সভাপতিত্বে মুঠোফোনে বক্তব্য রাখেন, রাজশাহী-৪ বাগমারা আসনের সাংসদ ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক। এসময় অন্যান্যের মধেক্তব্য রাখেন, বাগমারা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অনিল কুমার সরকার, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মাহমুদুল হাসান, ভবানীগঞ্জ পৌর মেয়র আব্দুল মালেক মন্ডল, উপজেলা আ’লীগের সাধারন সম্পাদক অধ্যক্ষ গোলাম সারোয়ার আবুল, বাসুপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল জব্বার মন্ডল, ভবানীগঞ্জ মহিলা ডিগ্রি কলেজের প্রভাষক রিনা খাতুন প্রমূখ। এসময় উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুমন দে, বাগমারা থানার অফিসার ইনচার্জ মোস্তাক আহমেদ, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান জাকিরুল ইসলাম সান্টু, বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, শিক্ষক, সাংবাদিকসহ বিভিন্ন শ্রেনী-পেশার লোকজন উপস্থিত ছিলেন। শেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়।
সাপাহার : সাপাহার (নওগাঁ) প্রতিনিধি জানান, নওগাঁর সাপাহারে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপন করা হয়েছে।
রোববার সকালে উপজেলা পরিষদ হল রুমে স্বাধীন বাংলার স্থাপতি বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ ই মার্চ ভাষণের গুরুত্ব এবং তাৎপর্য তুলে ধরে আলোচনা সভা, বীর মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশ, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের মধ্যদিয়ে দিবসটি উদযাপন করা হয়।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) কল্যাণ চৌধুরী’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান¡ শাহজাহান হোসেন মন্ডল।
এসময়ে সহকারী কমিশনার (ভূমি) সোহরাব হোসেন, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মুজিবুর রহমান, ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নার্গিস সরকার, সাপাহার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) তারেকুর রহমান সরকার, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আলহাজ্ব ওমর আলী, উপজেলার বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা কর্মচারী, বীর মুক্তিযোদ্ধা, শিক্ষক, শিক্ষার্থী সহ আরো অনেকেই উপস্থিত ছিলেন।
গোমস্তাপুর: চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুরে দিবসটি উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসন, আওয়ামী লীগ, গোমস্তাপুর থানা, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পৃথক পৃথক ভাবে নানা কর্মসূচি পালন করেছে। উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক গৃহীত কর্মসূচির মধ্যে ছিল, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান, ঐতিহাসিক ৭ মার্চের বঙ্গবন্ধুর ভাষণ প্রচার ও আলোচনা সভা। এ উপলক্ষে রোববার সকালে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিজানুর রহমানের সভাপতিত্বে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হুমায়ুন রেজা। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন, গোমস্তাপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জাহিদুর রহমান, সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহরিয়ার নজির, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মাহফুজা খাতুন, উপজেলা কৃষি অফিসার মাসুদ হোসেন, গোমস্তাপুর থানার ওসি দিলীপ কুমার দাস, জেলা পরিষদের সদস্য ও জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হালিমা বেগম, সাবেক উপজেলা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মোস্তফা কামাল প্রমুখ। আলোচনা শেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও আলকাপ গান অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া সকালে উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান, জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন, সাবেক সংসদ সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম মোস্তফা বিশ্বাসসহ উপজেলা, পৌর আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতারা। অন্যদিকে, উপজেলা অডিটোরিয়ামে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মহাসাবেশ ও গোমস্তাপুর থানা পুলিশ ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ উপলক্ষে থানা চত্বরে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।
মান্দা: নওগাঁর মান্দায় শহিদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ, আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, রচনা ও বক্তৃতা প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণের মধ্য দিয়ে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ পালন করা হয়েছে। রোববার সকাল ১০ টার দিকে উপজেলা কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলির পর পরিষদ মিলনায়তনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
ইউএনও আব্দুল হালিমের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন, উপজেলা চেয়ারম্যান মোল্লা এমদাদুল হক, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মাহবুবা সিদ্দিকা রুমা, উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) ইমরানুল হক, মান্দা থানার ওসি শাহিনুর রহমান, সিপিবি কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ডা. এসএম ফজলুর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা অ্যাড. আব্দুল মান্নান ও খোদাবকস মিয়া, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা রেজাউল করিম, শিক্ষক সাইফুর রহমান, শিক্ষার্থী শাহিনুর ফেরদৌস শোভন প্রমুখ। শেষে প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।
অন্যদিকে, উপজেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে মাল্যদান, আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের মধ্যদিয়ে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ পালন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নাজিম উদ্দিন মন্ডলের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. নাহিদ মোর্শেদ বাবু, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ জহুরুল ইসলাম, সাবেক দপ্তর সম্পাদক অনুপ কুমার মহন্ত, সাবেক সহপ্রচার সম্পাদক শরিফুল ইসলাম, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ভাইস চেয়ারম্যান গৌতম কুমার মহন্ত, উপজেলা যুবমহিলা লীগের সভাপতি ও ভাইস চেয়ারম্যান মাহবুবা সিদ্দিকা রুমা প্রমুখ। এছাড়া উপজেলার মান্দা মমিন শাহানা সরকারি কলেজ, গোটগাড়ী শহিদ মামুন সরকারি হাইস্কুল ও কলেজ, রেবা আখতার আলিম মাদরাসাসহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যথাযোগ্য মর্যাদায় দিবসটি পালন করা হয়।
ইলা মিত্র শিল্পী সংঘ: দিবসটি উপলক্ষে নিজ কার্যালয়ে আলোচনা সভা করে, ইলা মিত্র শিল্পী সংঘ। সভায় সভাপতিত্ব করেন, সংঘের সভাপতি এসএম আবু বকর। এ সময় বক্তারা বলেন, ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তৎকালীন রেসর্কোস ময়দানে যে ভাষণ দিয়েছিলেন তা মুক্তিকামী বাঙালি জাতিকে মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ার নির্দেশ দেন। বঙ্গবন্ধুর ভাষণ আজ বিশে^ সমাদৃত। যে ভাষণ বিশে^র সকল স্বাধীনতাকামী মানুষকে অনন্তকাল অনুপ্রেরণা যোগায়।