রাজশাহীতে জাতীয় ও আন্তার্জিক ক্রীড়া দিসব পালিত

আপডেট: এপ্রিল ৬, ২০২৪, ৯:৪৭ অপরাহ্ণ


ক্রীড়া প্রতিবেদক:‘ক্রীড়ার উন্নয়ন শেখ হাসিনার দর্শন’- এই প্রতিপ্যাদকে সামনে রেখে রাজশাহী জেলা ক্রীড়া সংস্থা বর্ণাঢ্য র‌্যালি ও আলোচনা সভার মধ্য দিয়ে জাতীয় ও আন্তার্জিক ক্রীড়া দিবস পালিত হয়েছে। প্রতি বছর এই দিনটিতে ক্রীড়া দিবস পালিত হয়ে আসছে। শনিবার (৬ এপ্রিল) সকাল ১০টায় মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি স্টেডিয়াম থেকে একটি র‌্যালি বের হয়ে নগরীর গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি স্টেডিয়াম এসে শেষ হয়। র‌্যালিটির নেতৃত্ব দেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ও রাজশাহী জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহ-সভাপতি কল্যাণ চৌধুরী।

এ সময় সাধারণ সম্পাদক মো. ওয়াহেদুন নবীসহ খেলোয়াড় ও কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন। র‌্যালি শেষে স্টেডিয়ামের সভাকক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। রাজশাহী জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মো. ওয়াহেদুন নবীর সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে দেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ও রাজশাহী জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহ-সভাপতি কল্যাণ চৌধুরী। তিনি বলেন, উন্নয়ন ও শান্তির জন্য জাতীয় ও আর্ন্তজাতিক ক্রীড়া দিবস ১৮৯৬ সালে এইদিনে গ্রিসের রাজধানী এথন্সে আধুনিক অলিম্পিক গেমস যাত্রা শুর করে।

জাতিসংঘ সাধারণ সভায় দিনটিকে উন্নয়ন ও শান্তির জন্য আন্তর্জাতিক ক্রীড়া দিবস হিসেবে বেছে নেয়। ২০১৪ সাল থেকে বিশ্বজুড়ে আন্তর্জাতিক ক্রীড়া দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে দিনটি। তারই অংশ হিসাবে প্রতি বছর আমাদের দেশে জাতীয় পর্যায়ে পালিত হয়ে আসছে । ২০১৩ সালের ২৩ আগষ্ট জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির প্রন্তাবে ৬ এপ্রিল -কে জাতীয় ও আর্ন্তজাতিক ক্রীড়া দিবস হিসেবে ঘোষনা করা হয়। আর এটি বাংলাদেশে ২০১৪ সাল থেকে দিবসটি উপলক্ষে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রনালয়, জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ ও দেশের বিভিন্ন ক্রীড়া ফেডারেশন,অ্যাসোসিয়েশন ও সংস্থার নানা কর্মসুচির আয়োজন করে আসছে।

তারই অংশ হিসেবে আমরাও রাজশাহীতে দিবসটি উপলেেক্ষ বিভিন্ন কর্মসুচি গ্রহন করেছি। এছাড়াও তিনি বলেন শরীর মন ভালো রাখতে হলে ক্রীড়ার বিকল্প নাই কাজেই ছেলেমেয়েদের মাদক থেকে সরে এসে লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলায় মনোযোগী হতে হবে তবেই একজন নামীদামি খেলোয়াড়ে পরিণত হওয়া যাবে আর শাকিব আল হাসানের মত সমগ্র দেশ ও জাতির পরিচিত হতে পারবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Exit mobile version