রাজশাহীতে জেল হত্যা দিবস পালিত স্বাধীনতা বিরোধী পরাজিত শক্তির স্বপ্ন বাস্তবায়ণ হবে না

আপডেট: নভেম্বর ৩, ২০২১, ১০:৫৮ অপরাহ্ণ


নিজস্ব প্রতিবেদক:


জাতীয় চার নেতা ছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রক্তবন্ধু। বঙ্গবন্ধুকে হত্যা পরবর্তী সময়ে এই স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করেছে। কেননা জাতীয় এই চার নেতা বেঁচে থাকলে তাদের দেশ বিরোধী চক্রান্ত বাস্তবায়ণ হতো না। এই খুনীদেরই জিয়াউর রহমান প্রতিষ্ঠিত করেছে। দেশের গুরুত্বপূর্ণ আসনে পদায়ন করেছে। নানা চড়াই উৎরায় সংগ্রামের পর বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা দেশের ক্ষমতায় আসেন। ক্ষমতা গ্রহণের পর থেকে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে অবিরাম কাজ করে যাচ্ছেন তিনি। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ অনন্য উচ্চতায় পৌছে গেছে। স্বাধীনতাবিরোধী পরাজিত শক্তির স্বপ্ন পূরণ হয় নি। বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের বিচার হয়েছে ও যুদ্ধাপরাধীদের বিচার চলছে। যারা হত্যা ও খুনের সঙ্গে লিপ্ত থাকে তাদের বিরুদ্ধে আমাদের সংগ্রাম অব্যাহত থাকবে। ৩রা নভেম্বর জেল হত্যা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন বক্তারা।

দিবসটি উপলক্ষে বুধবার (৩ নভেম্বর) দিনব্যাপি রাজশাহীর বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে। কর্মসূচির মধ্যে ছিলো-বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবর্ক অর্পণ, জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহিদ এএইচএম কামারুজ্জামানের মাজারে পুষ্পস্তবক অর্পণ, কোরআন খতম, শোক র‌্যালি, বঙ্গবন্ধুর ভাষণ ও কোরআন তেলাওয়াত প্রচার, প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শণ, আলোচনা সভা, দোয়া মাহফিল, রক্তদান কর্মসূচি ও অসহায়-দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরণ।

রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগ: দিবস উপলক্ষে রাজশাহী মহানগরের উদ্যোগে সকাল ১০টায় দলীয় কার্যালয়ের স্বাধীনতা চত্বরে বঙ্গবন্ধুসহ জাতীয় চার নেতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। সকাল ১০.৩০টায় দলীয় কার্যালয় থেকে শোক র‌্যালি বের হয়। র‌্যালিটি নগরীর গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহিদ এএইচএম কামারুজ্জামানের সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। এ সময় মহানগর আওয়ামী লীগের অন্তর্গত থানা আওয়ামী লীগ ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগসহ সকল সহযোগী সংগঠন এবং নগরীর বিভিন্ন শ্রেণিপেশার ব্যক্তিরা শহীদ কামারুজ্জামানের সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। দোয়া মহফিলে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ রাজশাহী মহানগরের সভাপতি ও রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সদস্য এবং বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান বেগম আখতার জাহান, জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অনিল সরকার এবং মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার। এছাড়াও বেলা ১ টায় দলীয় কার্যালয়ে ও মহানগর আওয়ামী লীগের অন্তর্গত পাঁচটি থানায় এবং নগরীর সকল এতিমখানা ও মাদ্রাসায় খাবার বিতরণ বিতরণ করা হয়। নগরীর প্রত্যেক ওয়ার্ডে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ ও কোরআন তেলাওয়াত সম্প্রচার করা হয়।

রাসিক মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারে সদস্যদের এবং ৩রা নভেম্বর জাতীয় চার নেতাকে বিশেষ একটি উদ্দেশ্য নিয়েই স্বাধীনতাবিরোধী চক্ররা নির্মমভাবে হত্যা করেছিল। বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর ঘাতকরা মনে করেছিল, বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ চার সহযোগী জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করা না হলে খুনিদের হীন উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন হবে না। দেশ থেকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ মুছে ফেলা যাবে না। দেশ থেকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও দেশের স্বাধীনতাকে মুছে ফেলতে বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতাকে নির্মমভাবে হত্যা করে দেশের স্বাধীনতা বিরোধী ঘাতকরা। তবে ঘাতকদের সেই অপচেষ্টা বাস্তবায়ন হয়নি। দিন যত যাচ্ছে বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতার প্রতি মানুষের ভালোবাসা ততোই বাড়ছে।

মেয়র আরও বলেন, স্বাধীনতা বিরোধীদের চক্রান্ত ষড়যন্ত্র চলমান আছে। আমাদের সবাইকে বিশেষ করে তরুণ প্রজন্মকে স্বাধীনতা বিরোধী চক্রের বিরুদ্ধে সজাগ ও সচেতন থাকতে হবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, মহানগর আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি শাহীন আকতার রেনী, বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর ইকবাল, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী কামাল, বীর মুক্তিযোদ্ধা নওশের আলী, অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান বাদশা, রেজাউল ইসলাম বাবুল, নাঈমুল হুদা রানা, বদরুজ্জামান খায়ের, যুগ্ম সম্পাদক মোস্তাক হোসেন, আসাদুজ্জামান আজাদ, আহ্সানুল হক পিন্টু, সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাড. আসলাম সরকার, প্রচার সম্পাদক দিলীপ কুমার ঘোষ, কৃষি সম্পাদক মীর তৌফিক আলী ভাদু, আইন সম্পাদক অ্যাড. মুসাব্বিরুল ইসলাম, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক জিয়া হাসান আজাদ হিমেল, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক ফিরোজ কবির সেন্টু, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক রবিউল আলম রবি, মহিলা সম্পাদিকা ইয়াসমিন রেজা ফেন্সি ও মহানগর আওয়ামী লীগ, মহানগর ছাত্রলীগসহ অন্যান্য সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা।

রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগ: জেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে দিবসটি উপলক্ষে অলোকার মোড়স্থ দলীয় কার্যালয় থেকে শোকর‌্যালিসহ জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহিদ এএইচএম কামারুজ্জামান হেনার সমাধীস্থলে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং শহীদ জাতীয় চার নেতার স্মৃতির প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধার্ঘ্য নিবেদন করা হয়। রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অনিল কুমার সরকার এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানের সার্বিক পরিচালনা করেন, রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বাঘা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাড. লায়েব উদ্দিন লাবলু ।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর নেতা, জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের নেতা, জেলা পর্যায়ে আওয়ামী লীগের সকল সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা। সকালে জেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণ, কালো পতাকা উত্তোলন, কালোব্যাজ ধারণ সহ জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহিদ এএইচএম কামারুজ্জামান হেনা এর সমাধীস্থলে সমবিতভাবে সকলে উপস্থিত হয়ে তাদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনায় মিলাদ মাহফিল, ফাতেহা পাঠ, মোনাজাত এবং প্রার্থনা করা হয়।

রাজশাহী সিটি করপোরেশন: দিবসটি যথাযথ মর্যাদায় বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছে রাজশাহী সিটি করপোরেশন। দিবসটি উপলক্ষে বুধবার সকালে নগর ভবন থেকে বিশাল শোক র‌্যালি বের করা হয়। শোক র‌্যালি নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে শহিদ এএইচএম কামারুজ্জামানের মাজারে গিয়ে শেষ হয়। শোক র‌্যালি শেষে শহিদ কামারুজ্জামানের কবরে পুষ্পস্তব অর্পণ করেন মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন ও কাউন্সিলররা। এরপর রাসিকের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও কর্মচারী ইউনিয়নের পক্ষ থেকে পৃথকভাবে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের শহিদদের ও শহিদ এএইচএম কামারুজ্জামানসহ জাতীয় চার নেতার আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া ও মোনাজাত করা হয়।

সিটি করপোরেশনের অন্যান্য কর্মসূচির মধ্যে ছিল কালো ব্যজ ধারণ, নগর ভবনের মসজিদে মাদ্রাসা ছাত্রদের মাধ্যমে পবিত্র কোরআন খতম, আলোচনা সভা, রক্তদান কর্মসূচি, বাদ জোহর সোনাদিঘী জামে মসজিদ, নগর ভবন ওয়াক্তিয়া মসজিদসহ ৩০টি ওয়ার্ডের সকল মসজিদে দোয়া, খাবার বিতরণ, অন্যান্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে বিশেষ প্রার্থনা, নগর ভবনে ড্রপ ডাউন, শহরের গুরুত্বপূর্ণ ৩টি মোড়ে ছবিসহ শোক সম্বলিত বড় ব্যানার টাঙানো এবং কালো পতাকা উত্তোলন, সন্ধ্যায় নগরীর শহিদ এএইচএম কামারুজ্জামান এর বর্ণাঢ্য জীবনীর উপর প্রামান্যচিত্র প্রদর্শন, সকল ওয়ার্ড কার্যালয়ে ব্যানার প্রদর্শন ও মাইকে কোরআন তেলাওয়াত ও ভাষণ প্রচার।

জেল হত্যা দিবস উপলক্ষে রাজশাহী সিটি কপোরেশনের নগরভবন সিটি হল সভা কক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। রাসিকের প্যানেল মেয়র-১ ও ১২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সরিফুল ইসলাম বাবুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, রাসিকের সাবেক মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট আব্দুল হাদী। সভায় বক্তব্য রাখেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রফেসর রুহুল আমিন প্রামানিক, রাসিকের ১৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর তৌহিদুল হক সুমন, ২২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল হামিদ সরকার টেকন, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. এ.বিএম শরীফ উদ্দিন, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী নূর ইসলাম তুষার, কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আজমীর আহমেদ মামুন।

দুপুরে শহিদ এএইচএম কামারুজ্জমান চত্বরে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে পাঁচ শতাধিক মানুষের মাঝে উন্নত মানের খাবার বিতরণ করেন, রাসিক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। এছাড়া দু’টি মাদ্রাসায় ১ হাজার ৩০০ জনকে খাবার প্রদান করা হয়। এ সকল কর্মসূচিতে সিটি করপোরেশনের সকল কাউন্সিলর, বিভাগীয় প্রধান ও শাখা প্রধানসহ অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।

রাজশাহী বিভাগীয় সরকারি প্রশাসন: দিবসটি উপলক্ষে সকাল ১০ টায় বিভাগীয় প্রশাসনের উদ্যোগে জাতীয় চার নেতাকে স্মরণ করে শহিদ এএইচএম কামারুজ্জামানের মাজারে বিনম্র শ্রদ্ধা ও পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়। এরপর বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতাসহ সকল শহিদদের স্মরণে দোয়া করা হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার ড হুমায়ুন কবীর, অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক) জিয়াউল হক, রাজশাহী রেঞ্জ ডিআইজি আব্দুল বাতেন, আরএমপি পুলিশ কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক, জেলা প্রশাসক আব্দুল জলিল, উপ-পরিচালক (স্থানীয় সরকার) শাহানা আখতার জাহান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মুহাম্মদ শরিফুল হক, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) কল্যাণ চৌধুরী, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (অ্যাডমিন) সুজায়েত ইসলাম, বিপিএম অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম অ্যান্ড অপারেশন) মজিদ আলী প্রমুখ।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়: দিবসটির স্মরণে এদিন সকাল ৮:৩০ মিনিটে স্থানীয় কাদিরগঞ্জে শহিদ এএইচএম কামারুজ্জামানের মাজারে উপাচার্য প্রফেসর গোলাম সাব্বির সাত্তার পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এসময় উপ-উপাচার্য প্রফেসর চৌধুরী জাকারিয়া, উপ-উপাচার্য প্রফেসর সুলতান-উল-ইসলাম, রেজিস্ট্রার প্রফেসর আবদুস সালাম, হল প্রাধ্যক্ষ, ছাত্র উপদেষ্টা এম তারেক নূর, ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর লিয়াকত আলী, জনসংযোগ দপ্তরের প্রশাসক ড. আজিজুর রহমানসহ প্রশাসনের ঊর্ধতন কমকর্তা ও শিক্ষকরা উপস্থিত ছিলেন। তারা সেখানে শহিদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে মোনাজাত করেন।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মূল্যবোধে বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ ও বঙ্গবন্ধু পরিষদসহ অন্যান্য কয়েকটি সংগঠন ও প্রতিষ্ঠানও সেখানে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে। এরপর বেলা ১১:৩০ মিনিটে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহিদ তাজউদ্দীন আহমদ সিনেট ভবনে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা। উপাচার্য প্রফেসর গোলাম সাব্বির সাত্তারের সভাপতিত্বে এই আয়োজনে প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ইতিহাস বিভাগের প্রফেসর আবুল কাশেম। প্রধান অতিথি ছিলেন, রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান। বিশেষ অতিথি ছিলেন, উপ-উপাচার্য প্রফেসর চৌধুরী জাকারিয়া ও উপ-উপাচার্য প্রফেসর সুলতান-উল-ইসলাম। বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রফেসর আবদুস সালাম আলোচনা অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন।

প্রসঙ্গত, উপাচার্য জানান যে শিক্ষার্থীদের বৃত্তির জন্য শহিদ কামারুজ্জামান ও জাহানারা জামান ফাউন্ডেশন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়কে পঁচিশ লক্ষ টাকা প্রদান করেছে। ফাউন্ডেশনের এ মহতী উদ্যোগের জন্য উপাচার্য উদ্যোক্তাদের ধন্যবাদ জানান।

রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়: রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (রুয়েট) পক্ষ থেকে জাতীয় চার নেতার অন্যতম রাজশাহীর কৃতি সন্তান শহিদ এএইচএম কামারুজ্জামান হেনার সমাধিস্থলে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিষ্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর ড. সেলিম হোসেন, ডীন যন্ত্রকৌশল অনুষদ প্রফেসর ড. ইমদাদুল হক, পরিচালক ছাত্র কল্যাণ প্রফেসর ড. রবিউল আওয়াল, শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর ড. ফারুক হোসেন, কেন্দ্রীয় কম্পিউটার সেন্টারের প্রশাসক ড. আলী হোসেন, উপ-পরিচালক ছাত্রকল্যাণ মামুনুর রশীদ ও আবু সাঈদ, রুয়েট কর্মকর্তা দিলীপ কুমার ঘোষ, রোকনুজ্জামান, প্রকৌশলী হারুন অর রশীদ, রুয়েট শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) মোহাম্মদ ইসফাক ইয়াসির ইপু ও সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী মাহাফুজুর রহমান তপু , কর্মচারী সমিতির সভাপতি মহিদুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মামুন শুভসহ শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী ও শিক্ষার্থীরা।

রুয়েট প্রশাসনের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদনের পর রুয়েট শিক্ষক সমিতি, কর্মকর্তা, বঙ্গবন্ধু কর্মকর্তা পরিষদ রুয়েট, রুয়েট শাখা ছাত্রলীগ, রুয়েট কর্মচারী সমিতি পৃথক পৃথক ভাবে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করে। শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন শেষে শহিদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে ১ মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। এরপর শহিদ এএইচএম কামারুজ্জামান হেনার কবর জিয়ারত করা হয়। এদিন বাদ জোহর রুয়েট কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে শহিদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।

রাজশাহী মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়: দিবসটি উপলক্ষে রামেবি নানা কর্মসূচি পালন করছে। সকাল ১০ টায় শহিদ এএইচএম কামারুজ্জামান হেনার সমাধিতে ফুলেল শ্রদ্ধাঞ্জলি জানান, উপাচার্য অধ্যাপক ডা. এজেডএম মোস্তাক হোসেন। এরপর সকাল ১১ টায় রামেবি’র কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের অংশগ্রহণে জেল হত্যা দিবসের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এ আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন উপাচার্য অধ্যাপক ডা. এ.জেড.এম মোস্তাক হোসেন।

এ আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন, কোষাধ্যক্ষ প্রফেসর ড. রুস্তম আলী আহমেদ, কোষাধ্যক্ষ ইঞ্জিনিয়ার সিরাজুম মুনির, পরিচালক (প.উ.) ডা. জাকির হোসেন খোন্দকার, পরিচালক (অ.হি.) অধ্যাপক ডা. জাওয়াদুল হক, কলেজ পরিদর্শক রামেবি, ডা. সারওয়ার জাহান, উপ- পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক, উপ- কলেজ পরিদর্শক ডা. মোহাম্মদ মেহেরওয়ার হোসেন, শুভেন্দু দত্ত, সেকশন অফিসার, রাসেদুল ইসলাম, কবির আহমেদ, আব্দুস সোবহান।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সেকশন অফিসার নাজমুল হোসাইন, সিমাআক্তার প্রমুখ। এছাড়া দুপুর ১ টায় রামেবির উপাচার্য রাজশাহীর ছোট মনি নিবাসে ছোট শিশুদের মাঝে খাবার বিতরণ করেন।

রাজশাহী শিক্ষা বোর্ড: দিবস উপলক্ষে সূর্যদয়ের সাথে সাথে রাজশাহী শিক্ষা বোর্ড ভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। সকাল ৭.৩০ মিনিটে রাজশাহী শহরের কাদিরগঞ্জস্থ এএইচএম কামারুজ্জামান এর সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। সকাল ৮.৩০ মিনিটে শিক্ষা বোর্ড চত্বরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে সকল শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

জেল হত্যা দিবসের আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন, কলেজ পরিদর্শক প্রফেসর হাবিবুর রহমান। উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের সচিব ড. মোয়াজ্জেম হোসেন, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ও দায়িত্বপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আরিফুল ইসলাম, বিদ্যালয় পরিদর্শক প্রফেসর দেবাশীষ রঞ্জন রায়, উপ-পরিচালক (হিসাব ও নিরীক্ষা) বাদশা হোসেন, উপ-পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (মাধ্যমিক) ও অফিসার্স কল্যাণ সমিতির সভাপতি মুঞ্জুর রহমান খান, তথ্য ও গণসংযোগ কর্মকর্তা সুলতানা শামীমা আক্তার এবং কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি হুমায়ুন কবীর (লালু) ও সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব আলী। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন, কর্মকর্তা কল্যাণ সমিতি ও কর্মচারী ইউনিয়নের নেতাসহ সকল স্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। আলোচনা অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের সহকারী বিদ্যালয় পরিদর্শক আবু দারদা খান, উপ-পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (মাধ্যমিক) ও অফিসার্স কল্যাণ সমিতির সভাপতি মুঞ্জুর রহমান খান, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ও দায়িত্বপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আরিফুল ইসলাম, বিদ্যালয় পরিদর্শক প্রফেসর দেবাশীষ রঞ্জন রায়, কলেজ পরিদর্শক প্রফেসর হাবিবুর রহমান এবং সচিব ড. মোয়াজ্জেম হোসেন।

পরে বাদ আসর শিক্ষা বোর্ড মসজিদে জাতীয় চার নেতার আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। দোয়া পরিচালনা করেন, বোর্ড মসজিদের ইমাম মাওলানা আবুল হাশেম রহমাতুল্লাহ। সভার সঞ্চালক হিসেবে ছিলেন, রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের একান্ত সচিব মোস্তাফিজুর রহমান।

রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক: দিবসটি উপলক্ষে মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যালয় সংলগ্ন স্বাধীনতা চত্বরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও জাতীয় চার নেতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন ব্যাংকের উর্ধ্বতন নির্বাহীসহ বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। পরবর্তীতে কাদিরগঞ্জে অবস্থিত জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহিদ এএইচএম কামারুজ্জামান এর সমাধিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ এবং দোয়া করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী বিভাগের বিভাগীয় মহাব্যবস্থাপক কামিল বুরহান ফিরদৌস, মহাব্যবস্থাপক (প্রশাসন) জয়নাল আবেদীন, মহাব্যবস্থাপক (নিরীক্ষা, হিসাব ও আদায়) মাকসুদা নাসরীন। কর্মসূচিতে সংশ্লিষ্ট সংগঠনের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। বাদ যোহর রাকাব প্রধান কার্যালয়ের মসজিদে বিশেষ দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়।

বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ: দিবসটি জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহিদ এএইচএম কামরুজ্জামানের সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান, বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান ও সাবেক সাংসদ বেগম আখতার জাহান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, কর্তৃপক্ষের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী শামসুল হোদা, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী ও সচিব (ভারপ্রাপ্ত) ইকবাল হোসেন, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী এটিএম মাহফুজুর রহমান, নির্বাহী প্রকৌশলী শিবির আহম্মেদসহ অন্যান্য নির্বাহী প্রকৌশলী, সহকারী প্রকৌশলী, উপ-সহকারী প্রকৌশলীসহ বিএমডিএ’র সদর দপ্তরের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন, বিএমডিএ সভাপতি,সাধারণ সম্পাদক, ওয়েব, বঙ্গবন্ধু কৃষিবিদ পরিষদ, ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স অ্যাসোসিয়েশন, বঙ্গবন্ধু ডিপ্লোমা প্রকৌশল পরিষদ, ডিকেআইবি, কর্মচারী লীগ রাজ-৩০৪২, কর্মচারী ইউনিয়ন রাজ-১৫০০ ও শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের রাজ-২০৮৮ এর সদস্যরা। দোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন, বিএমডিএ’র পেশ ইমাম রফিকুল ইসলাম।

রাজশাহী চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাষ্ট্রি: দিবসটি উপলক্ষে চেম্বররের উদ্যোগে চেম্বার ভবনে কোরআন খতম, রাজশাহী চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাষ্ট্রির সভাপতি মনিরুজ্জামানের নেতৃত্বে চেম্বার পরিচালনা পর্ষদ কর্তৃক শহিদ এএইচএম কামারুজ্জামান এর কবর জিয়ারত ও পুস্প স্তবক অর্পণ, দোয়া মাহফিল, দরিদ্র ও অসহায়দের মাঝে খাবার বিতরণ করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাষ্ট্রির বর্তমান সিনিয়র সহ-সভাপতি (নব-নির্বাচিত সভাপতি) মাসুদুর রহমান রিংকু, পরিচালক শাহাদৎ হোসেন বাবু, সাদরুল ইসলামসহ অন্যান্য পরিচালক, সচিবসহ কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।

রাজশাহী কলেজ: দিবসটি উপলক্ষে রাজশাহী কলেজ দিনব্যাপি বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে। কর্মসূচির মধ্যে ছিলো-বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতার ছবি সম্বলিত ব্যানার প্রদর্শণ, জাতীয় চার নেতার ছবি বাঁধায় ও প্রদর্শণ, শোক র‌্যালি, শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন, প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন ও আলোচনা সভা। সকাল সাড়ে ৯ টায় কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর আব্দুল খালেকের নেতৃত্বে জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহিদ এএইচএম কামারুজ্জামানের সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। বেলা সাড়ে ১০ টায় বঙ্গবন্ধুর মুর‌্যাল ও জাতীয় চার নেতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। বেলা ১১ টায় কলেজ অডিটরিয়ামে প্রাম্যণ্যচিত্র প্রদর্শণ, আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে সভাপতিত্ব করেন,অধ্যক্ষ প্রফেসর আব্দুল খালেক। মুখ্য আলোচক ছিলেন ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর ড. ইয়াসমীন আকতার সারমিন। আলোচনায় অংশ নেন বাংলা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর ড. শিখা সরকার, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক কমিটির আহ্বায়ক ও বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. ইব্রাহিম আলী ও শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক প্রফেসর আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ।

রাজশাহী সরকারি মহিলা কলেজ: দিবসটি উপলক্ষে সকাল ৯ টায় কলেজ প্রাঙ্গণে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ এবং শোক র‌্যালি অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ৯:৩০ মিনিটে জাতীয় নেতা শহিদ এএইচএম কামারুজ্জামান এর সমাধিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন, কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. জুবাইদা আয়েশা সিদ্দীকা। সকাল ১০টায় আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় প্রধান আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন, শাহ্ মখ্দুম ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ (অব.) ড. তসিকুল ইসলাম (রাজা)। সভাপতিত্ব করেন, এ কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. জুবাইদা আয়েশা সিদ্দীকা। বক্তব্য রাখেন, শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন মোল্লা। শহিদদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে দোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন, হাফেজ মাওলানা ইবরাহিম খলিল। সকল কর্মসূচিতে কলেজের সকল শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী ও ছাত্রীরা অংশগ্রহণ করে।

মহানগর যুবলীগ: দিবসটি উপলক্ষে মহানগর যুবলীগের আয়োজনে বিভিন্ন কর্মসূচি পালিত হয়। মহানগর যুবলীগের সভাপতি রমজান আলীর সভাপতিত্বে এসকল কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন সাধারণ সম্পাদক মোসারফ হোসেন বাচ্চু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তৌরিদ আল মাসুদ রনিসহ মহানগর যুবলীগের অন্যান্য নেতা-কর্মীরা।

রাজশাহী জেলা যুবলীগ: দিবসটি উপলক্ষে সকাল ১০.৩০ মিনিটে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাথে শোক র‌্যালিতে যোগদান সহকারে জাতীয় নেতা এ এইচ এম কামারুজ্জামানের কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধাঞ্জলি জ্ঞাপন করা হয়। পরে সকাল ১১ টায় লক্ষ¥ীপুরে দলীয় কার্যালয়ে আলোচনা সভা ও দোয়ার আয়োজন করা হয়। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন, জেলা যুবলীগ এর সভাপতি আবু সালেহ। সঞ্চালনায় ছিলেন, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আলী আজম সেন্টু। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ। আলোচনা সভায় বক্তব্য প্রদান করেন, সহ-সভাপতি ওবায়দুর রহমান ও মাহমুদ হাসান ফয়সল। সভায় উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী জেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি আলমগীর মোর্শেদ, আনোয়ার হোসেন, তসিকুল ইসলাম, রাজশাহী মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জোবায়ের হোসেন রুবন, রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের নির্বাহী সদস্য ফারুক হোসেন ডাবলু, রাজশাহী জেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ওয়াসিম রেজা লিটন প্রমুখ। সভা শেষে শহিদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া পরিচালনা করেন রাজশাহী জেলা ওলামা লীগের সভাপতি মওলানা আইনুল হক। সর্বশেষে দুপুর ২ টায় অসহায়দের মাঝে খাবার বিতরণ করা হয়।

মহানগর কৃষক লীগ: দিবসটি উপলক্ষে মহানগর কৃষক লীগের আয়োজনে বিভিন্ন কর্মসূচি পালিত হয়েছে। মহানগর কৃষক লীগের সভাপতি রহমত উল্লাহ সেলিমের সভাপতিত্বে কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন সাধারণ সম্পাদক সাকির হোসেন বাবুসহ অন্যান্য নেতা-কর্মীরা।

রজনীগন্ধা প্রতিবন্ধী উন্নয়ন সংস্থা: দিবসটি উপলক্ষে শোক সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। বেলা ১২ টায় শহিদ এএইচএম কামারুজ্জামান কেন্দ্রীয় উদ্যানের বিপরীতে ভাটাপাড়ায় অবস্থিত রজনীগন্ধা প্রতিবন্ধী উন্নয়ন সংস্থার আয়োজনে এই শোক সভা অনুষ্ঠিত হয়। রজনীগন্ধা প্রতিবন্ধী উন্নয়ন সংস্থার সভাপতি আসাদুজ্জামান চৌধুরী রাসেলের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ বন ও পরিবেশ বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য ও রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ডা. আনিকা ফারিহা জামান অর্ণা। সঞ্চলনা করেন, রজনীগন্ধা প্রতিবন্ধী উন্নয়ন সংস্থার সাধারণ সম্পাদক রুনা বেগম।

ডা. আনিকা ফারিহা জামান অর্ণা: দিবসটি উপলক্ষে জাতীয় চার নেতার অন্যতম এএইচএম কামারুজ্জামানের পৌত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য ও রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ডা. আনিকা ফারিহা জামান অর্ণা শহিদ এএইচএম কামারুজ্জামানের সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, ডা. অর্ণা জামানের স্বামী রাবির ক্রপ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি বিভাগের প্রভাষক রেজভী আহম্মেদ ভূইয়াসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা। শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে জাতীয় নেতার রুহের মাগফিরাত কামনা করে দোয়া মাহফিল করা হয়। ডা. আনিকা ফারিহা জামান তার বক্তব্যে বলেন, ১৯৭৫ সালে ১৫ আগস্ট জাতীর জনক বঙ্গবন্ধুকে পরিকল্পিত ভাবে স্বপরিবারে হত্যা করা হয়। তার কিছুদিন না যেতেই ৩ রা নভেম্বর জেল খানার ভেতরে জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করে জাতির জীবনে কালো অধ্যায়ের সূচনা করা হয়। এসব হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত খন্দকার মোশতাকসহ তাদের অনুসারীর। তিনি জাতীয় চার নেতার হত্যা কন্ডের সাথে জড়িত ও যাদের বিচার হয়েছে তাদের দেশে ফিরিয়ে এনে ফাঁসি কার্যকরের আহ্বান জানান।

সোনালী ব্যাংক লিমিটেড: দিবসটি উপলক্ষে সোনালী ব্যাংক লিমিটেড রাজশাহী বিভাগের পক্ষ থেকে শহিদ কামারুজ্জামান এর প্রতি গভীর শ্রদ্ধাজ্ঞাপনসহ কাদিরগঞ্জস্থ সমাধিস্থলে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার রাজশাহী শাহাদত হোসেন, অ্যাসিস্ট্যান্ট জেনারেল ম্যানেজার রথীন্দ্রনাথ চক্রবর্তী, মোর্শেদ ইমাম প্রমুখ। এ সময় সোনালী ব্যাংক অন্যান্য উর্ধ্বতন কর্মকর্তা-কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।

পবা: দিবস উপলক্ষে দুপুরে পবা উপজেলা মিলনায়তনে আলোচনা সভা, দোয়া মাহফিল ও বঙ্গবন্ধুসহ জাতীয় চার নেতার প্রতিকৃতিতে ফুলের শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করন, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযাদ্ধা ইয়াসিন আলী। পবা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোতাহার হোসেনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি গোলাম মোস্তফা, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক, আবু সামা, উপজলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আরজিয়া বেগম। সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, সহ দফতর সম্পাদক নজরুল ইসলাম প্রমুখ।

বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ চাই: দিবস উপলক্ষে বিকেল ৪টায় সাহেববাজার জিরোপয়েন্ট (প্রেসক্লাব চত্বর) এলাকায় স্বাধীনতার স্বপক্ষের অরাজনৈতিক সামাজিক সংগঠন ‘বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ চাই’ আয়োজিত এই কর্মসূচিতে সভাপতিত্ব করেন, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ চাই’র আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট আসলাম-উদ-দৌলা।

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, বিশিষ্ট কলামিস্ট বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রশান্ত কুমার সাহা। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, শহিদ লেফটেনেন্ট সেলিম মঞ্চের সভাপতি প্রকৌশলী শামসুল আলম। স্বাগত বক্তব্য রাখেন, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ চাই’র সদস্য ও জেলা যুবলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ইয়াসির আরাফাত সৈকত।

আলোচনা রাখেন, রাজশাহী প্রেসক্লাবের আজীবন সদস্য গোলাম সারওয়ার, রাজশাহী জেলা রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক ও মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সভপতি শফিকজ্জামান শফিক, জননেতা আতাউর রহমান স্মৃতি পরিষদ সহ-সভাপতি সালাউদ্দিন মিন্টু প্রমুখ।