রাজশাহীতে তরুণ উদ্যোক্তাদের মেলা শেষ

আপডেট: মার্চ ৬, ২০২১, ৯:৪৭ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


আল আকসা ডেভেলপার্স প্রেজেন্টস রাজশাহীর উদ্যোক্তা তারুণ্যের মেলা-২০২১ শেষ হয়েছে। শনিবার (০৬ মার্চ) সন্ধ্যায় গ্রিন প্লাজায় আয়োজিত তিন দিনব্যাপী এই মেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি ও বিশিষ্ট সমাজসেবী শাহীন আকতার রেনী।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শাহীন আকতার রেনী বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা একজন উদ্যোক্তাবান্ধব প্রধানমন্ত্রী। তিনি উদ্যোক্তাদের কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছেন। রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনও একজন উদ্যোক্তাবান্ধব মেয়র। তিনি উদ্যোক্তা তৈরি ও কর্মসংস্থান তৈরি এবং রাজশাহীকে একটি উন্নত ও বাসযোগ্য শহর হিসেবে গড়ে তুলতে কাজ করে যাচ্ছেন। ইতোমধ্যে রাজশাহীতে পরিবেশগত ভাবে বিশ^সেরা হয়েছে।
তিনি আরো বলেন, পুরুষের পাশাপাশি নারীরা সমানতালে এগিয়ে চলেছে বলেই বাংলাদেশ আজ জাতিসংঘ কর্তৃক স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের চূড়ান্ত সুপারিশ পেয়েছে। আমরা বিশ^াস করি আগামী ২০৪১ সালের মধ্যে দেশ উন্নত দেশে পরিণত হবে।
তিনি আরো বলেন, চাকরির পেছনে না ছুটে উদ্যোক্তা হতে হবে। আমি নিজে উদ্যোক্তা হবো, এবং অন্যকে উদ্যোক্তা হতে আগ্রহী করবো-আজকের দিনে এই হোক আমাদের প্রত্যয়।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন আল আকসা ডেভেলপার্স লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও রিয়েল এস্টেট এন্ড ডেভেলপার্স এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান কাজী। অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন রাজশাহীর উদ্যোক্তা’র এডমিন ও ক্রিয়েটর তাসনিম আরা। এ সময় উপস্থিত ছিলেন এডমিন ইরফানুল ইসলাম ইরফান, এডমিন নাফিসা তাসনিম ঝিলিক, মডারেটর ফারজান ইসলাম খান, মডারেটর হাসিবা আক্তার শাবনুর সহ তরুণ উদোক্তাবৃন্দ। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি এবং মেলার স্টল ওনার ও উদ্যোক্তাদের সম্মাননা স্মারক প্রদান করা হয়।
মেলার উদ্যোক্তারা জানান, মেলার এই তিন দিনে অনেক ভালোভাবে হয়েছে, তবে প্রথম দিনের চেয়ে মেলার শেষ দুই দিন দশনার্থীদের ভিড় ছিল বেশি।
মায়া বাক্স উদ্যোক্তা শিরিন শিলা বলেন, আমরা অনলাইন থেকে অফলাইনে এসে সবার মাঝে নিজেদের পণ্য বিক্রি করতে পেরে স্বার্থকতা দেখছি। সব থেকে বড় ক্রেডিট দেয়া যায় আমাদের অনলাইন পেজ উদ্যোক্তা অ্যাডমিন ক্রিয়েটর তাসনিম আরা আপুকে। আমি মনে করি প্রত্যেকটি সিটিতে এমন মেয়র হওয়া উচিত, যিনি সকল দিক থেকে সহয়তা করে আমাদের এগিয়ে আসার সুযোগ করে দিয়েছেন। আমাদের প্রশাসনের দিক থেকে সার্পোট দিয়েছেন। আমরা চাই বছরে এমন অনেক কয়টা উদ্যোক্তা মেলা হোক। এভাবে আমরা আবারও আসতে চাই।
কিষানী উদ্যোক্তা আফসানা আশা বলেন, আমরা প্রত্যেকেই মেলায় অনেক সফলতা পেয়েছি। আমাদের পরিচিতি আরও অনেক উদ্যোক্তার আগ্রহ বেড়েছে। আমার কিষানী সাথে যারা আছেন, তারা এখানে এসেছে কিষানীকে দেখতে। কিষানী পণ্য তাদের মাঝে বিপুলভাবে মিশে যাচ্ছে।
ক্রেতা ফাতেমা সরকার জানান, মেলায় কেনার মত জিনিস অনেক। নিজের জন্য হাজার টাকার মত কিছু কসমেটিকস কিনলাম। অনেক ভালো লাগলো, এমন মেলা আমাদের মেয়েদের জন্যে সুযোগ করে দিচ্ছে। পণ্য নিয়ে ঘরে বসে থাকলে তো হবেনা, বের হতে হবে। আগের থেকে এখন মেয়েরা আয়ের দিক থেকে অনেকটা আত্মনির্ভরশীল হয়ে উঠেছে। এভাবেই মেয়েরা পারবে ও পারছেও।
আরও একজন ক্রেতা আতিয়া জানান, কাজের জন্য খুব একটা ঘুরতে যাওয়া হয় না। আজ একটু সুযোগ পেয়ে মেলায় এসেছি। নিজেকে অনেক ভালো লাগছে ‘আমাদের রাজশাহীর উদ্যোক্তা মেলা’। মেলায় কেনাকাটায় কিছুটা সময় পার করলাম রাজশাহীর এমন উদ্যোক্তা মেলা প্রায় হওয়া উচিত।
উল্লেখ্য, গত ৪ মার্চ ফিতা ও কেক কেটে এবং পায়রা উড়িয়ে মেলার তিন দিনব্যাপী এই মেলার উদ্বোধন করেছিলেন সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। প্রতিদিন সকাল ১০ থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত এই মেলা চলে। মেলায় তরুণ-তরুণীদের ২৮টি স্টলে বিভিন্ন পণ্যের স্থান পেয়েছিল। মেলার আয়োজক ছিল ‘রাজশাহীর উদ্যোক্তা’ নামক ফেসবুক গ্রুপ।