রাজশাহীতে ফারাক্কা লংমার্চ দিবসে আলোচনা সভা II পানির ন্যায্যহিস্যা আদায়ে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে

আপডেট: মে ১৬, ২০২৪, ১১:১৫ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


রাজশাহীতে ফারাক্কা লংমার্চ দিবস স্মরণে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, গঙ্গা-পদ্মার পানির ন্যায্যহিস্যার জন্য লড়াইয়ে দলমত নির্বিশেষে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। ৪৭ বছর আগে মাওলানা ভাসানী যে উপলব্ধির প্রকাশ ঘটিয়েছিলেন আজ তা বাস্তবে ঘটে চলেছে।

বৃহস্পতিবার (১৬ মে) ফারাক্কা লংমার্চের ৪৮তম বার্ষিকী স্মরণে হেরিটেজ রাজশাহীর উদ্যোগে নগরীর একটি কনভেনশন সেন্টারে ‘ফারাক্কা লংমার্চের ঐতিহাসিক পটভূমি ও মাওলানা ভাসানী’ শীর্ষক এই আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

আলোচনা সভায় প্রধান বক্তা ছিলেন বিশিষ্ট- শিক্ষাবিদ ও চিন্তক- অধ্যাপক ড. সলিমুল্লাহ খান। হেরিটেজ রাজশাহীর সভাপতি-গবেষক ও লেখক মাহবুব সিদ্দিকীর সভাপতিত্বে মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন সাংবাদিক ও লেখক সরদার আবদুর-রহমান। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন সাবেক যুগ্ম সচিব ও জাতীয় জাদুঘরের সাবেক মহাপরিচালক ফয়জুল লতিফ চৌধুরী, রাজশাহী বার এসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট আবুল কাসেম,

ড্যাবের কেন্দ্রীয় নেতা ডা. ওয়াসিম হোসেন, রাজশাহী বারের সাবেক সাধারণ-সম্পাদক এড. পারভেজ টি. জাহেদী, প্রফেসর ড. কাজী মোস্তাফিজুর রহমান, প্রফেসর ড. তারেক ফজল, মাওলানা ভাসানীর পরিবারের সদস্য আজাদ খান ভাসানী প্রমুখ। স্বাগত বক্তব্য দেন হেরিটেজ রাজশাহীর সাধারণ সম্পাদক তৌফিকুর রহমান লাভলু। সঞ্চালনা করেন প্রফেসর ড. ইফতিখারুল আলম মাসউদ।

ড. সলিমুল্লাহ খান বলেন, মাওলানা ভাসানী সেদিন গুরুতর অসুস্থতা নিয়েই এই লংমার্চের নেতৃত্ব দেন জাতীয় স্বার্থে। এই নেতৃত্ব আজো দেশপ্রেমিক জনতার জন্য প্রেরণার উৎস হয়ে আছে। বাংলাদেশের পানির অধিকার নিয়ে গত পাঁচ দশকে ফারাক্কা নিয়ে ভারতের অনড় অবস্থানে বিশেষ পরিবর্তন হয়নি। তবে ফারাক্কার কারণে বাংলাদেশ যেমন ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে ভারতের দশাও এখন এমন।

সভায় অতিথিরা এ উপলক্ষে প্রকাশিত ১টি স্মরণিকার মোড়ক উন্মোচন করেছেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ