রাজশাহীতে বিএসটিআইয়ের অভিযানে তিন প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা, একটি বন্ধ

আপডেট: এপ্রিল ২৪, ২০২৪, ৯:৫২ অপরাহ্ণ


নিজস্ব প্রতিবেদক:


বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশনের (বিএসটিআই) অভিযানে রাজশাহীতে তিনটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। ও একটি কারখানা বন্ধ করে দেওয়া হয়। বুধবার (২৪ এপ্রিল) প্রতিষ্ঠানটির বিভাগীয় কার্যালয়ের উদ্যোগে সার্ভিল্যান্স অভিযান পরিচালিত হয়।

বিএসটিআইয়ের পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বিএসটিআইয়ের গুণগত মানসনদ গ্রহণ না করে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে শিশুখাদ্য আর্টিফিশিয়াল ফ্লেভার্ড ড্রিংকস ও আইস ললি উৎপাদন ও বিক্রয়-বিতরণ করায় এবং মোড়কে অবৈধভাবে বিএসটিআই এর মানচিহ্ন সম্বলিত মনোগ্রাম ব্যবহার করেছে মেসার্স তৃপ্তি কেমিক্যাল অ্যান্ড ফুড ইন্ডাস্ট্রিজ। নগরীর সিটিহাটের পশ্চিমে ওবাইয়ের মোড়ে ২০ হাজার পিস আর্টিফিশিয়াল ফ্লেভার্ড ড্রিংকস ও আইস ললি এবং ৩ লক্ষ পিস লেবেল/প্যাকেট জব্দ করা হয়েছে।

সেই সঙ্গে উৎপাদনে ব্যবহৃত অবৈধ ও নন-ফুডগ্রেড রঙ এবং ফ্লেভার জব্দ করে প্রতিষ্ঠানটির স্বত্ত্বাধিকারী শামীম রেজার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়। একই সঙ্গে কারখানাটি বন্ধ করে দেওয়া হয়।
একই অপরাধে মহানগরীর রামচন্দ্রপুর এলাকায় অবস্থিত মেসার্স ক্রিস্টাল এন্টারপ্রাইজ থেকে প্রায় ৪০ হাজার পিস ‘আইস ললি’ জব্দ করা হয়। সেই সাথে প্রতিষ্ঠানটির স্বত্ত্বাধিকারী শফিকুল আলমের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ও কারখানা বন্ধ করে দেওয়া হয়।

এছাড়া বিসিক শিল্প নগরীতে অবস্থিত জে.কে ফুড প্রোডাক্টস প্রতিষ্ঠানটি বিএসটিআই’র গুণগত মানসনদ গ্রহণ না করে অবৈধভাবে সফট ড্রিংকস পাউডার বিক্রয়-বিতরণ করে। তাদের মোড়কে অবৈধভাবে বিএসটিআইয়ের মানচিহ্ন সম্বলিত মনোগ্রাম ব্যবহার করায় ৬ কার্টুন সফট ড্রিংকস পাউডার জব্দ করা হয় এবং নিয়মিত মামলা দায়েরের কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়।
সার্ভিল্যান্স অভিযানটি পরিচালনা করেন বিএসটিআই বিভাগীয় কার্যালয়ের কর্মকর্তা শরীফ হোসেন ও প্রকৌশলী জুনায়েদ আহমেদ।। জনস্বার্থে এধরণের অভিযান নিয়মিতভাবে অব্যাহত থাকবে বলে জানানো হয়।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

Exit mobile version