রাজশাহীতে বিধিনিষেধ মানাতে কড়াকড়ি

আপডেট: জুন ১০, ২০২১, ১০:৩৫ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


রাজশাহীতে করোনার সংক্রমণ বাড়ছে। মৃত্যুর মিছিলে যুক্ত হচ্ছে নতুন সংখ্যা। এই পরিস্থিতিতে সংক্রমণ রোধে সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় কড়াকড়ি বিধিনিষেধ আরোপ করছে জেলা প্রশাসন। বিধি-নিষেধ অনুযায়ী বিকেল ৫ টা থেকে সকাল ৬ টা পর্যন্ত অপ্রয়োজনে মানুষের চলাচল নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এসময় জরুরি সেবা ছাড়া সকল প্রকার দোকানপাট, মার্কেট, শপিংমল ও গণপরিবহণ চলাচল কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে।
রাজশাহী জেলা প্রশাসন ৬ টি বিধিনিষেধ আরোপ করেছে। যেগুলো কঠোরভাবে বাস্তবায়নে বৃহস্পতিবার (১০ জুন) আইন শৃঙ্খলাবাহিনীর তৎপরতা দেখা গেছে। নগরীর প্রবেশ মুখগুলোতে নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। সন্দেহ হলেই প্রশ্নের সম্মুখিন হতে হচ্ছে পরিবহণ চালকসহ যাত্রীদের। নগরীতে জেলা প্রশাসনের ৬ টি ভ্রাম্যমাণ টিমও কাজ করছে। এতে অন্যান্য সময়ের চেয়ে দিনেও মানুষের সমাগম কিছুটা কমেছে।
নগরীতে বিকেল ৫ টার পর অপ্রয়োজনে কেউ বের হলে তাকে আইন শৃঙ্খলাবাহিনি সদস্যদের জিজ্ঞাসাবাদের সম্মুখিন হতে হচ্ছে। অপ্রয়োজনে ঘুরে বেড়ালে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থাও নেয়া হচ্ছে। এদিন নগরীর গুরুত্বপূর্ণ এলাকাগুলো ঘুরে দেখা যায়, সকাল ৬ টার আগে জরুরি পণ্য ছাড়া অন্য কোনো গাড়ি নগরীতে প্রবেশ করতে দেয়া হচ্ছে না। ৬ টার পর নগরীর প্রবেশপথ দিয়ে পাশর্^বর্তী পবা উপজেলার কিছু গাড়ি প্রবেশ করছে। সেক্ষেত্রে বাধ্যতামূলক মাস্কের ব্যবহার নিশ্চিত করা হচ্ছে। আর চাঁপাইনবাবগঞ্জের গাড়ি রাজশাহীতে প্রবেশে একাধিক চেকপোস্ট পার হতে হচ্ছে। সীমান্তবর্তী চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার পাশর্^বর্তী উপজেলা গোদাগাড়ি থেকে আসা গাড়িগুলোও নগরীতে প্রবেশে নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে বলে জানাচ্ছেন অটো চালকরা।
নগরীতে চলাচলে অধিকাংশ মানুষকে এখন মাস্ক ব্যবহার করতে দেখা যাচ্ছে। মাস্ক ছাড়া অনেক গাড়ি চালকই গাড়িতে উঠতে দিচ্ছেন না। তবে এর বিপরীত চিত্রও আছে। মাস্ক থাকলেও সঠিকভাবে তা পরছে না। কখনো নাকের নিচে আবার হাতে নিয়েও ঘুরে বেড়াতে দেখা যাচ্ছে। বিশেষ করে বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে গরম বাড়তে থাকলে অনেক পথচারীই মাস্ক হাতে নিয়ে ঘুরছেন।
অটো রিকশা চালক রবিন জানান, এখন গাড়ি খুব সাবধানে চালাতে হচ্ছে। মাস্ক না থাকলে তাকে গাড়িতে তুলছেন না। কেননা সকালের দিকে কয়েকটি পয়েন্টে পুলিশ চেক করছে। আবার কখনও ভ্রাম্যমাণ আদালত চেক করছে। মাস্ক না থাকলে জরিমানাও গুনতে হচ্ছে। যাত্রীর জন্য তাকেও কথা শুনতে হচ্ছে। তাই তিনি মাস্ক ছাড়া যাত্রী তুলছেন না।
নগরীর কোর্ট এলাকায় মাস্ক হাতে নিয়ে হেঁটে যাচ্ছিলেন আফজাল হোসেন। জানতে চাইলে তিনি জানান, গরমের কারণে তিনি মাস্কটা কিছুক্ষণের জন্য খুলেছেন। তিনি বাইরে বের হলেই মাস্ক পরেন। কেননা রাজশাহীতে করোনার সংক্রমণ বেড়েছে।
রাজশাহী অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু আসলাম জানান, রাজশাহীতে বিধিনিষেধ বাস্তবায়নে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে সমন্বয় করে জেলা প্রশাসন কাজ করছে। তারা সচেতনামূলক বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনার পাশাপাশি জরিমানাও করছেন। আর আগের চেয়ে মানুষের মাঝে সচেতনা বেড়েছে, মাস্কও পরছে।